বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
খালেদা জিয়ার সুবিধার্থে কেরানীগঞ্জে আদালত স্থাপনের সিদ্ধান্ত: তথ্যমন্ত্রী  » «   বুথফেরত জরিপের ফলেই ‘বিজয়োৎসব’ শুরু বিজেপির  » «   হুতি বিদ্রোহীদের হামলা, সৌদির পাশে থাকবে পাকিস্তান  » «   ধানক্ষেতে আগুনের ঘটনা তদন্তে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ  » «   মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ছে  » «   বালিশ দুর্নীতি: নির্বাহী প্রকৌশলী প্রত্যাহার  » «   এফআর টাওয়ার নির্মাণে ত্রুটি, তদন্ত প্রতিবেদনে দোষী ৬৭ জন  » «   ক্ষতিপূরণ দিতে গ্রিনলাইনকে আদালতের আল্টিমেটাম  » «   প্রখ্যাত তিন ইসলামি স্কলারের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করছে সৌদি  » «   মৌলভীবাজারে কে এই ‘পীর’ আজাদ?  » «   ৮০ বছরের মধ্যে সাগরে ডুবে যাবে বাংলাদেশ!  » «   অনলাইনে ট্রেনের টিকিট: বিক্রি শুরুর আগেই টিকিট শেষ!  » «   আজ সিলেটের যে নয়টি এলাকায় গ্যাস সংযোগ বন্ধ থাকবে  » «   অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার বিক্রির দায়ে ইষ্টিকুটুম-মধুবনকে জরিমানা  » «   বুধবারীবাজার ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতি রফিক উদ্দিনের জানাযায় মানুষের ঢল  » «  

বর্বর নির্যাতনের কথা স্বীকার করেছে সিআইএ



cia-agentঅনলাইন ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে নাইন ইলেভেন হামলার পর আটককৃত সন্দেহভাজন আল-কায়েদা সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদের সময় সিআইএ বর্বর নির্যাতন চালিয়েছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে, তা স্বীকার করেছেন সংস্থাটির পরিচালক।

টেলিভিশনে দেয়া বিরল এক সাক্ষাতকারে সিআইএ’র পরিচালক জন ব্রেনান স্বীকার করেছেন যে আটকদের জিজ্ঞাসাবাদের কিছু পদ্ধতি জঘন্য ছিল।

তবে অাত্নপক্ষও সমর্থন করেছেন সিঅাইএ পরিচালক। তিনি বলেন, এসব জেরা থেকে মূল্যবান তথ্য সংগ্রহ করে একই ধরনের আক্রমণ প্রতিহত করে মানুষের জীবন রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সিআইএ’র কর্মকর্তাদের জেরার পদ্ধতি নিয়ে মার্কিন সিনেটে রিপোর্ট প্রকাশিত হওয়ার পর সমালোচনা মুখে এসব মন্তব্য করেন জন ব্রেনান।

যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে বিমান হামলার পর ২০০১ সাল থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত সন্দেহভাজনদের উপর ব্যাপকভাবে এই জিজ্ঞাসাবাদ কার্যক্রম চালানো হয়। পরবর্তীতে বারাক ওবামা ২০০৯ সালে এই কর্মসূচী বন্ধ করে দেন। জিজ্ঞাসাবাদে নানান ধরনের ভয়াবহ নির্যাতনমূলক পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে বলে সিনেটের রিপোর্টে উঠে এসেছে।

সিনেটের প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর জিজ্ঞাসাবাদের সাথে জড়িত কর্মকর্তাদের বিচারের আওতায় আনার জন্য দাবি তুলেছে জাতিসংঘ ও বেশ কিছু মানবাধিকার সংস্থা।

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: