শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা  » «   সীমান্তের খালে মিয়ানমারের সেতু, বন্যার আশঙ্কা বাংলাদেশে  » «   দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাবে বাংলাদেশ: শাবিতে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   আতিয়া মহল মামলা: ৫ দিনের রিমান্ডে ৩ আসামি  » «   শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলা: হাইকোর্টে আপিল শুনানি শুরু  » «   টিআইবির রিপোর্টে সরকার ও ইসির আঁতে ঘা লেগেছে: বিএনপি  » «   মাফিয়াদের স্বর্গরাজ্যে দশ বাংলাদেশির অনন্য সাহসিকতার নজির  » «   ১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে থাকাই ভালো: ওবায়দুল কাদের  » «   সন্ত্রাস-মাদক-জঙ্গিবাদের মতো দুর্নীতির বিরুদ্ধেও ‘জিরো টলারেন্স’ : প্রধানমন্ত্রী  » «   সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ  » «   কৃত্রিম কিডনি তৈরি করলেন বাঙালি বিজ্ঞানী  » «   ব্রেক্সিট ইস্যু: অনাস্থা ভোটে টিকে গেলেন তেরেসা মে  » «   টিআইবির প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয়, পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করি: সিইসি  » «   জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করছেন শেখ হাসিনা  » «   সংসদ কার্যকর রাখতেই বিরোধী দলে জাপা : জিএম কাদের  » «  

ফেসবুকে ব্যস্ত ‘ওয়ার্ড বয়’, রোগীর মৃত্যু



আন্তর্জাতিক ডেস্ক::বর্তমানে ফেসবুকের মতো সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই আজকাল মোহগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। ফেসবুক এতটাই আকৃষ্ট করে নিয়েছে। যার ফলে মানুষের মধ্যে স্বাভাবিক বিবেক বুদ্ধিগুলোও লোপ পেয়েছে। আর কেউ-কেউ এতোটাই মোহগ্রস্ত যে হিতাহিত জ্ঞান ও মানবিকবোধ শূন্য হয়ে পড়েন, আশপাশের মৃত্যুযন্ত্রনাও কানে পৌঁছায় না। এমনই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের জলপাইগুড়ির একটি হাসপাতালে।

জানা গেছে, ভারতের জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের স্ট্রেচারে কাতরাচ্ছিলেন এক রোগী। সে সময় হাসপাতালের ওয়ার্ড বয় ব্যস্ত ছিলেন ফেসবুক নিয়ে। তাও আবার পাঁচ দশ মিনিট নয় টানা দুই ঘণ্টা! আর এই সময়েই ঘটে যায় চরম পরিণতি। ওয়ার্ড বয় তথা কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

সূত্র জানায়, রবিবার পেটে ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন জলপাইগুড়ির রায়কত পাড়ার বাসিন্দা শম্ভু কুমারের স্ত্রী মঞ্জু দেবী। রোগীর রিপোর্ট দেখে চিকিৎসক তাকে দ্রুত ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) ভর্তির পরামর্শ দেন।

অভিযোগ, সে সময় কর্তব্যরত ওয়ার্ড মাস্টার দুই ঘণ্টা মঞ্জু দেবীকে হাসপাতালে আটকে রাখেন। ওয়ার্ড মাস্টার সে সময় ফেসবুকে নিমগ্ন ছিলেন। ঘণ্টা দুয়েক পর অ্যাম্বুলেন্স এলে রোগীকে জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা রোগীকে মৃত ঘোষণা করেন।

এই প্রেক্ষিতে ক্ষোভে ফেটে পড়েন রোগীর পরিবার। ওয়ার্ড মাস্টারের বিরুদ্ধে শুরু হয় বিক্ষোভ। থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন হাসপাতাল সুপার।

সূত্র: জি-নিউজ

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: