সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে কমতে শুরু করেছে ডেঙ্গুর প্রকোপ  » «   শোভন-রাব্বানীর পর এবার আলোচনায় যুবলীগ  » «   মধ্যরাতে ‘এক কাপড়ে’ সৌদি থেকে ফিরলেন ১৭৫ বাংলাদেশি  » «   ভারতে ভয়াবহ নৌকাডুবি: নিহত ১২, নিখোঁজ ৩০  » «   এবার রিফাত হত্যার নতুন ভিডিও প্রকাশ্যে  » «   সিলেটে গ্রেফতার সেই ডিআইজির পক্ষে দাঁড়ালেন সাবেক খাদ্যমন্ত্রী  » «   পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের সঙ্গে সিলেট বিভাগের পৌর মেয়রদের বৈঠক  » «   কমিশন কেলেঙ্কারিতে ফেঁসে যাচ্ছেন জাবি উপাচার্য  » «   সৌদির তেলক্ষেত্রে হামলার পর থেকেই তেলের দাম ১০ শতাংশ বৃদ্ধি  » «   ইতালির নাগরিকত্ব হারাতে পারেন ৩ হাজার বাংলাদেশি  » «   নবীগঞ্জে আগুনে পুড়ে ছাই ৫টি ঘর, ১২ লাখ টাকার ক্ষতি  » «   ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি-সম্পাদকের প্রতিশ্রুতি  » «   শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে রণক্ষেত্র, আহত ৩০  » «   চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর  » «   মাসিক বেতনে চালক নিয়োগের নির্দেশ হাইকোর্টের  » «  

ফেসবুকে কপাল পুড়লো ঝিনুককন্যা রাফিয়ার



নিউজ ডেস্ক:: ক’দিন আগেও যে রাফিয়া নিয়মিত স্কুলে যেত, ঝিনুক হাতে সমুদ্র সৈকতে ঘুরে বেড়াত, ঝিনুক বিক্রির টাকা দিয়ে সংসারের ভরণপোষণ করত, সে দুরন্ত রাফিয়া এখন ঘরবন্দি। ঘরের সীমানায় মনমরা হয়ে বসে থাকেন সারাক্ষণ। তার অভিযোগ, তার পরিবারের আহার ও হাসি কেড়ে নিয়েছে ভিনদেশি এক যুবক। সম্প্রতি ওই যুবক ফেসবুকে রাফিয়ার একটি ছবি আপলোড দেয়। ফেসবুকের কল্যাণে রাফিয়ার ছবিটি ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। সঙ্গে সঙ্গে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। আর এ ছবিটিই তার চলার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

কক্সবাজার সদরের ঝিলংঝা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড কলাতলীর ঝিরঝিরি পাড়ায় তার বাড়ি। সে ওই এলাকার দরিদ্র আবদুল করিমের কন্যা রাফিয়া। বাবা দিনমজুর, মা রহিমা বেগম গৃহিণী। রাফিয়ার বয়স মাত্র ১০ বছর। পরিবারে চার ভাই-বোনের মধ্যে রাফিয়া মেজ। বাবা আব্দুল মালেক নির্মাণ কাজ করতে গিয়ে পড়ে কোমরে আঘাত পান। এরপর থেকে তিনি কোনো কাজ করতে পারেন না। বাবার এমন পরিস্থিতিতে পরিবারে অন্য কোনো উপার্জনক্ষম ব্যক্তি না থাকায় অল্প বয়সেই পরিবারের হাল ধরেন ছোট্ট রাফিয়া। নিজ কাঁধে তুলে নেন সংসারের ভার। স্কুল শেষ করেই ঝিনুকের ঝুড়ি হাতে নিয়ে ছুটে যান সৈকতে। সৈকতের এ প্রান্ত থেকে ওই প্রান্তে হেঁটে হেঁটে ঝিনুক বিক্রি করতেন।

একদিন ছোট্ট রাফিয়ার মায়াবি চেহারা ও হাসির ঝিলিক নজর কাড়ে সৈকতে ভ্রমণে আসা ভিনদেশি এক যুবকের। সে রাফিয়ার একটি ছবি তোলে ফেসবুকে আপলোড করে দিলে সঙ্গে সঙ্গে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। অনেক ফেসবুক ব্যবহারকারী রাফিয়াকে নিয়ে চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে। কেউ কেউ হলিউড বলিউডের বিখ্যাত সুন্দরী নায়িকাদের সঙ্গেও তুলনা করছে তাকে। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা বিখ্যাত নায়িকাদের সঙ্গে রাফিয়ার ছবি দিয়ে ফেসবুকে লিখছেন, কে বেশি সুন্দর? কক্সবাজারের ঝিনুক বিক্রেতা রাফিয়া না ইন্ডিয়ার ক্যাটরিনা? অথবা কার হাসি বেশি সুন্দর ইত্যাদি। আর এতেই সামাজিকভাবে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছে রাফিয়া ও তার পরিবার। তাদের মতে, রাফিয়া এখন ঘর থেকে বের হলে সবাই তার দিকে তাকিয়ে থাকে। অনেকেই তাকে নিয়ে সেলফি তুলার বায়না ধরে।

এটিই রাফিয়া ও তার পরিবার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। কক্সবাজার সদরের ঝিলংঝা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড ঝিরঝিরি পাড়ার দরিদ্র আবদুল করিমের কন্যা রাফিয়া। বাবা দিনমজুর, মা রহিমা বেগম গৃহিণী। রাফিয়ারা দুই ভাই, দুই বোন।তাদের মধ্যে রাফিয়া মেজ, বড় ভাই আবদুল্লাহ নবম শ্রেণিতে পড়ে।রাফিয়া কলাতলির সৈকত প্রাইমারি বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী। তবে আপাতত তার স্কুলে যাওয়া বন্ধ রয়েছে।

রাফিয়ার চাচা মহিউদ্দীন জানান, ফেসবুকে ছবি ভাইরাল হওয়ার পর থেকে রাফিয়া ঝিনুক নিয়ে সৈকতে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। একই ভাবে স্কুলেও যাচ্ছে না। আপাতত রাফিয়া অনেকটা ঘরবন্দি বলে জানান তার চাচা। এতে বিপাকে পড়েছে রাফিয়ার অসুস্থ পিতা-মাতা। এমনকি এ ঘটনায় তার পরিবার চরম অস্বস্তিতে রয়েছে।

মা রহিমা বেগম জানান, রাফিয়ার বাবা অসুস্থ হওয়ার পর শিশু কন্যাকে ঝিনুক নিয়ে সৈকতে পাঠাতো। সে ঝিনুক বিক্রি করে যা আয় করতো তা দিয়ে চলতো তাদের সংসার।সে প্রতিদিন ৩০০ থেকে ৪০০টাকা আয় করতো। এ টাকা দিয়ে সে সংসার ও তার লেখাপড়ার খরচ চালাতো। কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে ঝিনুক নিয়ে সৈকতে যাচ্ছে না রাফিয়া। আর এতে সংসারে নেমে এসেছে অভাব। ঘরে একটি টাকাও যেমন নেই, তেমনি নেই চাল, ডালসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র।

ভিনদেশি পর্যটক তার ক্ষতি করেছে জানিয়ে রাফিয়া বলেন, ফেসবুক কি সে চিনে না। ফেসবুকে ছবি দিলে এমন পরিণতি হবে জানলে সে ছবি তুলতে দিত না। রাফিয়া জানান, সংসার চালাতে সে আবারও ঝিনুক বিক্রি করবে। নিয়মিত স্কুলেও যাবে। বলেন, বাবার কষ্ট দেখে পড়াশোনার পাশাপাশি ঝিনুক বিক্রি করতাম। প্রতিদিন ঝিনুক বিক্রি করে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা আয় হতো। সেই টাকা দিয়ে চলত পড়া-লেখার খরচ ও পরিবারের খরচ।

কিন্তু ফেসবুকে ছবি ছাড়ার পর থেকে এলাকার লোকজনের পাশাপাশি বাইরে গেলে মানুষ আমাকে নিয়ে নানান কথা বলে তাই বাড়ি থেকে বের হতে পারি না। রাফিয়া বলে, আমি ঘরবন্দি হয়ে নয় অন্য ১০ জনের মতো আবারো পড়ালেখা করতে চাই। আমি লেখাপড়া করে ভবিষ্যতে বড় কিছু হতে চাই।
সূত্র: মানবজমিন

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: