সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অর্থনীতিতে নোবেল পেলেন যারা  » «   যুবলীগের পদ বেচে ঢাকায় ৪৬ ফ্ল্যাট-দোকানের মালিক ‘ক্যাশিয়ার আনিস’  » «   বরফ গলছে সৌদি-ইরানের, নেপথ্যে ইমরান খান  » «   ক্যাসিনো পঞ্চপাণ্ডবের রইল বাকি ১  » «   পুলিশের ওপর হামলা: দুই ‘জঙ্গি’ আটক  » «   সিলেট-জকিগঞ্জ সড়কে চালকদের প্রতিযোগিতায় যাত্রীবাহী বাস খাদে, আহত ৭  » «   ইনস্টাগ্রামে ট্রাম্প-ওবামাকে পেছনে ফেললেন মোদি!  » «   একটি মোবাইল চার্জারের দাম ২২ হাজার টাকা  » «   বেতন বৈষম্য: কর্মবিরতিতে সাড়ে ৩ লাখ শিক্ষক  » «   আবরার হত্যা: শেষ চার ঘণ্টার নৃশংসতার চিত্র  » «   সংবিধান পড়ে শোনালেন আমান, পুলিশ বলল ‘গো ব্যাক’  » «   বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা শুরু  » «   আবরার হত্যায় এবার মুজাহিদের স্বীকারোক্তি  » «   তিন সপ্তাহ ধরে কার্যালয়ে যান না যুবলীগ চেয়ারম্যান  » «   নোবেল পুরস্কার র‌্যাব-পুলিশের হাতে নয় : রিজভী  » «  

ফেসঅ্যাপ ব্যবহার করে বিপদ ডেকে আনছেন না তো?



তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:: সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কয়েক দিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই নিজের বুড়ো বয়সের ছবি পোস্ট করছেন। ফেসঅ্যাপ নামে একটি অ্যাপ ব্যবহার করে এই ধরনের ছবি তৈরি করা যাচ্ছে।আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স ব্যবহার করে এই কাজ করছে জনপ্রিয় মোবাইল অ্যাপটি। তবে ফেসঅ্যাপ ব্যবহার কিন্তু পরে বিপদ ডেকে আনতে পারে। ফেসঅ্যাপ ব্যবহারের শর্তাবলী সেই কথা বলছে। খবর এনডিটিভির

আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স ব্যবহার করে নিখুঁতভাবে যে কোন মানুষের ছবিকে এডিট করে দেবে ফেসঅ্যাপ। সে কারণেই আবার জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছেছে মোবাইল অ্যাপটি। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস ডিভাইস থেকে ব্যবহার করা যায় এই অ্যাপ। ছবিতে বয়স কমানো অথবা বাড়ানো ছাড়াও এই অ্যাপ ব্যবহার করে চুল ও দাঁড়ির কায়দা বদল করা সম্ভব। স্মার্টফোন থেকে যে কোন ছবি নিজেদের সার্ভারে আপলোড করে এই ছবি এডিটিং এর কাজ করে ফেসঅ্যাপ। আর সেখানেই সন্দেহের সূত্রপাত।

টুইটারে এলিজাবেথ পটস উইন্সটাইন নামে এক নারী ফেসঅ্যাপ ব্যবহারের শর্তাবলী পোস্ট করে একটি টুইট করেছেন। সেখানে যা লেখা রয়েছে তা পড়লে চমকে যেতে পারেন। ফেসঅ্যাপ ব্যবহারের শর্তাবলীতে লেখা রয়েছে, এই অ্যাপ ব্যবহার করলে আপনি কোম্পানির সার্ভারে আপলোড করা সব ছবি, নিজের নাম, আপনি কী পছন্দ করেন, আপনার গলা এই সব তথ্য বাণিজ্যিক কারণে ব্যবহারের আনুমতি দিচ্ছেন।

ইউরোপের একাধিক দেশে ব্যক্তিগত তথ্য গ্রাহককে না জানিয়ে ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ বেআইনি। সেই ক্ষেত্রে ফেসঅ্যাপ যে দেশে ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ বেআইনি নয় সেই দেশে এই সেই তথ্য পাঠিয়ে অন্য দেশের নিয়ম দেখিয়ে তথ্য সংগ্রহ চালিয়ে যাবে ফেসঅ্যাপ।

নিজের সব ধরনের ব্যক্তিগত তথ্য ফেসঅ্যাপ এর সাথে ভাগ করে নিতে না চাইলে এই অ্যাপ থেকে দূরে থাকাই ভালো। এর আগেও একাধিক অ্যাপ এই ধরনের কাজ করে কয়েক কোটি মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে। অনলাইন দুনিয়ায় এখন সব থেকে দামি জিনিস গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য। সেই তথ্য গ্রাহকের অজান্তে হাতিয়ে বিপুল টাকা রোজগার করছে এই কোম্পানিগুলো।

এর আগেও ২০১৭ সালে ভাইরাল হয়েছিল ফেসঅ্যাপ। তখনও এই অ্যাপ ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। তাই মজার ছলে ফেসঅ্যাপ ব্যবহার করে আদতে নিজের বিপদ ডেকে আনছে না তো?

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: