শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সুস্থ থাকলে শেখ হাসিনার বিকল্প দরকার নেই  » «   নন্দলালের ভূমিকায় অবতীর্ণ হবেন না: ইসি রফিকুল  » «   এমপি হিসেবে শপথ নিলেন সৈয়দ আশরাফের বোন ডা. জাকিয়া  » «   রোহিঙ্গাদের নৃশংসতার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান মিয়ানমার সেনাপ্রধানের!  » «   যেসব শর্তে আত্মসমর্পণ করছেন ১০২ ইয়াবা ব্যবসায়ী  » «   নাসা আ্যপস চ্যালেঞ্জে বিশ্বসেরা শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়  » «   বাংলা একাডেমিতে আল মাহমুদের মরদেহ, শ্রদ্ধা নিবেদন  » «   আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে জোবায়ের অনুসারীদের ইজতেমা শেষ  » «   যেভাবে ভারতীয় সেনাবহরে হামলা চালায় জঙ্গিরা  » «   রোহিঙ্গা নিপীড়ন তদন্তে মার্চে বাংলাদেশ আসছে আইসিসি প্রতিনিধিদল  » «   ব্যাটিং ব্যর্থতায় সিরিজ হার বাংলাদেশের  » «   যুক্তরাষ্ট্রে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করলেন ট্রাম্প  » «   টেকনাফে ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্পণ আজ  » «   বিশ্ব ইজতেমা: প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত আজ  » «   ৩৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে সিমেন্সের সঙ্গে চুক্তি  » «  

ফের বাড়তে শুরু করেছে ডিমের দাম



নিউজ ডেস্ক::রমজান মাসে মুরগির প্রতি হালি ডিমের দাম ২২-২৬ টাকায় বিক্রি হলেও। ঈদ শেষ হওয়ার পর থেকেই বাড়তে শুরু করেছে ডিমের দাম। ডিমের দাম বেড়ে বাজেরে এখন প্রতি হালি ডিম ৩০-৩৪ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। অর্থাৎ প্রতি হালি ডিমের দাম বেড়েছে অন্তত আট টাকা। রাষ্ট্রায়ত্ত বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশনের (টিসিবি) বাজার বিশ্লেষণের তথ্য মতে, এক মাসের ব্যবধানে প্রতি হালি ডিমের দাম বেড়েছে ১৩.২১ শতাংশ।

রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, খুচরা দোকানগুলোতে প্রতি হালি ডিম বিক্রি হচ্ছে ৩২ টাকায়। বাজারগুলোতে যেসব দোকান রয়েছে শুধুই ডিম বিক্রি করে তারা আবার ৩০ টাকা হালিতে বিক্রি করছে।অর্থাৎ প্রতি ডজন ফার্মের মুরগির ডিম কিনতে ভোক্তাদের খরচ করতে হচ্ছে ৯০-১০০ টাকা পর্যন্ত, যা রোজার মধ্যে ৭০-৭৫ টাকায় নেমে এসেছিল।

দোকানে ডিম কিনতে আসা এক ক্রেতা বলেন, ‘চার-পাঁচ দিন আগেও আমি ডিম কিনেছি ২৮ টাকা হালি। আজকে কিনলাম ৩২ টাকায়।’

ডিমের দাম বাড়ার কারন জানতে চাইলে এক দোকানী বলেন, ‘পাইকারি বাজারে দাম বেড়ে গেছে, এ জন্য আমরাও বেশি দামে বিক্রি করছি।’

কাওরান বাজারের পাইকারী ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রতি ১০০ ডিম তারা বিক্রি করছে ৭০০ টাকায়। অর্থাৎ প্রতিটি ডিমের দাম পড়ছে সাত টাকা করে। অর্থাৎ এক হালির হিসাব করলে এটা দাঁড়ায় ২৮ টাকায়।

ঈদের ছুটিতে রাজধানীর মানুষ ছুটিতে যাওয়ার কারণে বেশ কিছুদিন ফাঁকাই ছিল ঢাকা। বন্ধ ছিল হোটেল-রেস্টুরেন্ট। তবে ছুটি শেষে সবাই যখন আবার টেঢাকায় ফিরেছে এবং হোলগুলো খুলতে শুরু করেছে তখনই একটু একটু করে বাড়তে শুরু করে চাহিদা। আবার চাহিদা কম থাকায় ঢাকায় সে সময় সরবরাহও ছিল কম। এখন চাহিদা সরবরাহের চেয়ে বেশি হওয়ায় ডিমের দাম বেড়েছে বলে দাবি করেন এসব ব্যবসায়ী।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: