বুধবার, ১৫ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
১৫ আগস্ট কেন ভারতের স্বাধীনতা দিবস?  » «   খালেদার জন্মদিনে ফখরুল‘প্রাণ বাজি রেখে লড়াই করতে হবে’  » «   রাজধানীতে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে ২ শ্রমিকের মৃত্যু  » «   ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট  » «   ঢাকায় ইলিশের কেজি মাত্র ৪০০ টাকা!  » «   অস্ট্রেলিয়ান সিনেটে প্রথম মুসলিম নারী  » «   প্রধানমন্ত্রী নয়, ইসির নির্দেশনায় চলবে প্রশাসন : নাসিম  » «   সৌদি আরবে আরও ৫ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু  » «   মৃত পুরুষকে বিয়ে করলেন নারী, এরপর…  » «   যা করবেন সন্তানকে বুদ্ধিমান ও চটপটে বানাতে  » «   নিউইয়র্কে লাঞ্ছিত ইমরান এইচ সরকার  » «   কুরবানির গোশত অন্য ধর্মাবলম্বীকে দেওয়া যাবে?  » «   শাহরুখের গাড়ি-বাড়ি ও ঘড়ির দাম এত?  » «   ভ্যান চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নামে জমি, এরপর…  » «   মোবাইল ফোনে নতুন কলচার্জ নিয়ে যা বলছেন গ্রাহকরা  » «  

ফুলবাড়ীতে ২শ ভূমিহীন পরিবার ১০ টাকা কেজির চাল থেকে বঞ্চিত



kurigram-rice-corruption20161009215704কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় হত দরিদ্রদের জন্য দেওয়া ফেয়ার প্রাইজের কার্ড নিয়ে চলছে ভেলকিবাজি। স্বজনপ্রীতি, দলীয়করণ, স্বচ্ছল পরিবারসহ একাধিক ব্যক্তির নামেও কার্ড দেবার অভিযোগ উঠেছে।

অথচ ফুলবাড়ির নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের চর গোরকমণ্ডল, বস্তি গোরকমণ্ডল এবং সদর ইউনিয়নে ফুলসাগর গুচ্ছ গ্রামের প্রায় ১৯৫ জন ভূমিহীন পরিবার এই কার্ড পায়নি।

খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ফুলবাড়ীর ৬টি ইউনিয়নে ১২ জন ডিলারের মাধ্যমে প্রথম পর্যায়ে ৯ হাজার ২৯৮ জন কার্ডধারীকে নির্বাচন করা হয়। গত ৩০ সেপ্টেম্বর ১০ টাকা মূল্যের ৩০ কেজি করে চাল বিতরণের উদ্বোধন করা হয়।

কার্ড না পাওয়া প্রসঙ্গে গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দা আজিজার হক (৬৫), কবিরা বেগম (৬০), জ্যোসনা রানী (৬০) দ্বিনেশ চন্দ্র (৬৪), নাছিমা (৪৫) জানান, মেম্বার ও চেয়ারম্যানদের পছন্দের লোকজনদেরকে এই কার্ড দেয়া হয়েছে। যাদের মধ্যে অনেকেই স্বচ্ছল পরিবারের সদস্য। দিন এনে দিন খাওয়া পরিবারগুলোই এই কার্ড পাচ্ছিনা। শুধু স্বল্প মূল্যের চালের কার্ড না এখানকার অনেকেই বয়স্ক ভাতা, বিধবাভাতা থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

ফুলবাড়ী সদর ইউপি চেয়ারম্যান মইনুল হক বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, কিছু দলীয় নেতাকর্মীসহ ফেয়ার প্রাইজের ডিলার জড়িত। তারা ফ্লুইট কালি দিয়ে নাম মিশিয়ে নিজেদের পছন্দ ব্যক্তির নামের তালিকা করেছে।

এ ব্যাপারে নাওডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান মুসাব্বের আলী মুছা জানান, ১০ টাকা কেজি চালের কার্ড ৭-৮ বছর আগে করা। তৎকালিন চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের নেতারা ওই তালিকা করেছে। এখানে আমার কিছুই করার নেই। এ তালিকা আমাদের আমলে হয়নি। আমরা শুধু কার্ডগুলো নাম অনুযায়ী তাদের বাড়িতে পাঠিয়েছি।

ফেয়ার প্রাইজ কার্ডে দলীয়করণের বিষয়ে নাওডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব আলী বলেন, চালের কার্ডের তালিকা কোনো নেতাকর্মী করেনি। সব তালিকা বিগত দিনের চেয়ারম্যান মেম্বাররাই করেছে। সে হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান মেম্বাররা যাচাই-বাছাই না করে কার্ডগুলো বিতরণ করেছে।

এ বিষয়ে ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও জানান, গুচ্ছ গ্রামসহ যে সমস্ত হত দরিদ্র এই কার্ড পায়নি, তাদের নতুন করে তালিকা করে কার্ডের আওতায় নিয়ে আসা হবে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হবে।

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: