সোমবার, ২৪ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
প্রথমবার সিলেট-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে উড়বে ইউএস-বাংলা  » «   ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো ইন্দোনেশিয়ায়-জাপান-অস্ট্রেলিয়া  » «   ভোটকেন্দ্রেই ঘুমিয়ে পড়লেন কর্মকর্তা  » «   ‘জয় শ্রীরাম’ না বলায় পিটিয়ে মুসলিম যুবককে হত্যা  » «   নয়াপল্টনে একের পর এক ককটেল বিস্ফোরণ  » «   অফিসে বসে বসে শুধু কি চা খাইলে হবে? দেশপ্রেম থাকতে হবে: হাইকোর্ট  » «   বিকেলের মধ্যে উদ্ধার কাজ শেষ হবে: রেলসচিব  » «   বাংলাদেশের নামে সড়কের নামকরন যুক্তরাষ্ট্রে  » «   সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বাড়লেও দুর্নীতি কমছে না : টিআইবি  » «   দেশসেরা প্রধান শিক্ষক হবিগঞ্জের শাহনাজ কবীর  » «   বাঘের খাবারও চুরি হয় ঢাকা চিড়িয়াখানায়, ফেসবুকে ভাইরাল  » «   দুই মাস ওমরাহ ভিসা স্থগিত করল সৌদি  » «   বীমার আওতায় যেসব সুবিধা পাচ্ছে সরকারি চাকরিজীবীরা  » «   কারাগারে সুনামগঞ্জের আ. লীগ নেতা শামীম আহমদ  » «   মুক্তি পেয়ে নতুন যে বাড়িতে থাকবেন খালেদা  » «  

প্রেমিকাকে ডেকে বন্ধুদের হাতে তুলে দেয় প্রেমিক, এরপর…



নিউজ ডেস্ক::প্রেমিকাকে দেখা করার কথা বলে ডেকে বন্ধুদের হাতে তুলে দিয়েছে এক প্রেমিক। এছাড়া বন্ধুদের কাছে তুলে দেয়ার পর বন্ধুদের নিয়ে প্রেমিকাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে হাওরে ফেলে যায় ওই প্রেমিক। রোববার (১৫ জুলাই) রাতে হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার হাড়িয়া হাওরে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর অভিযুক্ত চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার দুপুরে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। ধর্ষণের শিকার তরুণীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো: মীরনগর গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২২), আবু জাহেরের ছেলে শাহ আলম (৩৬), আঞ্জব আলীর ছেলে নুর রহমান (৩৭) এবং পূর্ব মাধবপুর গ্রামের নুর ইসলামের ছেলে এমরান মিয়া (২৫)।

হবিগঞ্জ সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন বলেন, ওই নারী শ্রমিককে কৌশলে অপহরণের পর গণধর্ষণ করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বাকিদের ধরতে পুলিশি অভিযান চলছে। নির্যাতিত নারীকে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা শেষে সোমবার দুপুরে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় নির্যাতিত তরুণীর মা বাদী হয়ে সাতজনের নাম উল্লেখ করে অপহরণ ও গণধর্ষণের মামলা করেছেন।

পুলিশ জানায়, হতদরিদ্র ওই তরুণী কিছুদিন আগে নোয়াপাড়ায় একটি কটন মিলে শ্রমিকের কাজ নেয়। এসময় তার পরিচয় হয় পূর্ব মাধবপুর গ্রামের নুর ইসলামের ছেলে এমরান মিয়ার সঙ্গে। এরপর তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

এরই একপর্যায়ে গতকাল রাত ৮টার দিকে দেখা করার কথা বলে প্রেমিকাকে ফোন করে নোয়াপাড়ায় নিয়ে যায় প্রেমিক এমরান মিয়া। নোয়াপাড়া থেকে সিএনজিযোগে প্রেমিকাকে মীরনগর গ্রামের একটি বাড়িতে নিয়ে যায় এমরান। সেখান থেকে কৌশলে প্রেমিকাকে হাড়িয়া হাওরে নিয়ে যায় এমরান। এর আগে এমরান তার অন্যান্য বন্ধুদের ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করে হাড়িয়া হাওরে নিয়ে যায়। এরপর প্রেমিকাকে বন্ধুদের হাতে তুলে দেয় এমরান। সেখানে প্রেমিকাকে পালাক্রমে ধর্ষণের পর হাওরে ফেলে পালিয়ে যায় এমরান ও তার বন্ধুরা।

এরপর ওই তরুণীকে হাওর থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে রাতেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত প্রেমিকসহ চারজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: