সোমবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে বিএনপি নেতাকর্মীদের মারধর ও ধরপাকড়ের অভিযোগ  » «   আটকে রেখে তিন সাংবাদিককে পেটালো বুয়েট ছাত্রলীগ  » «   সিরিয়ায় মসজিদ ধ্বংস করল মার্কিন জোট  » «   বাবার স্বপ্ন পূরণে বড় চাকরি ছেড়ে আপনাদের সেবায় এসেছি: রেজা কিবরিয়া  » «     » «   নির্বাচনে ‘সংঘাত’ একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না: সিইসি  » «   জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ২৫ সদস্যের সমন্বয়ক কমিটি  » «   আফগানিস্তানে মার্কিন বিমান হামলায় ১২ শিশুসহ নিহত ২০  » «   মহান বিজয় দিবসে জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা  » «   চমক থাকছে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে  » «   দুই-তিন দিনের মধ্যে ইসিতে যাবে বিএনপি  » «   কাদের সিদ্দিকী রাজাকার, বদমাইশ : মির্জা আজম  » «   নির্বাচনের ৭ দিন আগে ব্যালট পৌঁছে যাবে: ইসি সচিব  » «   রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে চান ড. কামাল  » «   যুক্তরাষ্ট্র-অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড কানাডায় বোমা হামলার হুমকি  » «  

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার সম্ভাব্য সময়



নিউজ ডেস্ক:: সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘সহকারী শিক্ষক’ নিয়োগের পরীক্ষা অক্টোবর মাসে হচ্ছে না তা এক প্রকার নিশ্চিত। ১২ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের জন্য আবেদন এসেছে ২৪ লাখ ১ হাজার ৫৯৭টি।প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রের জানা গেছে, অক্টোবরে নিয়োগ পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত থাকলেও তা পিছিয়ে নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্র জানায়, নিয়োগ পরীক্ষা খুব বেশি পেছাবে না। আগামী শিক্ষাবর্ষের আগেই শিক্ষক সঙ্কট সমস্যার সমাধান চান কর্তৃপক্ষ। যে কারণে নভেম্বরের মধ্যেই পরীক্ষা নেয়া হতে পারে।গত ৩০ জুলাই ‘সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৮’ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। অনলাইন আবেদন শেষ হয় ৩০ আগস্ট। সূত্র জানায় সারাদেশ থেকে মোট ২৪ লাখ ১ হাজার ৫৯৭টি আবেদন এসেছে।

নিয়োগ পরীক্ষার বিষয়ে গত মঙ্গলবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষ্যে সচিব আকরাম আল হোসেনের সভাপতিত্বে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সে সভায় পরীক্ষাকেন্দ্র বাড়ানো, নিয়োগ পরীক্ষার ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রশ্নপত্র প্রণয়নসহ অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা হলেও পরীক্ষা সংক্রান্ত আরো বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এফ এম মনজুর কাদির বলেন, সভায় নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে সার্বিক বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। যেহেতু এবার ১২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের জন্য ২৪ লাখের বেশি প্রার্থী আবেদন করেছে, সেহেতু আমাদের বড় ধরনের প্রস্তুতির প্রয়োজন রয়েছে। পরীক্ষাকেন্দ্র বাড়ানো, নিরাপত্তা নিশ্চিতসহ পূর্বের ক্রটি-বিচ্যুতিগুলো সংশোধন করে নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে। এ কারণে অক্টোবরে পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তাবনা থাকলেও তা পিছিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে দিন তারিখ এখনো ঠিক হয়নি।’

বৈঠকে যোগদানকারী আরেক অতিরিক্ত সচিব হাসিবুর রহমান বলেন, আমি বৈঠকে উপস্থিত ছিলাম, তবে আমি কমিটির সদস্য নই। বৈঠকের আলোচ্য বিষয়ে কথা বলার যোগ্য ব্যক্তিও আমি না। সচিব মো: আকরাম আল হোসেনের সভাপতিত্বে গতকাল বেলা ৩টায় মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ বৈঠক শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত চলে। বৈঠক সম্পর্কে সচিব কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। বৈঠকে নিয়োগ কমিটির সদস্যদের মধ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) মহাপরিচালক ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল, জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা অ্যাকাডেমি (নেপ) পরিচালকসহ অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সূত্র জানায়, পরীক্ষা গ্রহণের জন্য সব প্রস্তুতি নিতে ডিপিই, নেপসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্ব বণ্টনসহ নানা সিদ্ধান্ত হয়েছে। পরীক্ষার ফল প্রস্তুতে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) আইসিটি বিভাগকে নিয়োগ দেয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: