মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লিপস্টিক যখন মাজাদার খাবার!  » «   কিশোরী ধর্ষণের প্রমান মেলায় ২ নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র  » «   শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমৃদ্ধ শিক্ষা দিতে হবে- রেজাউল রহিম লাল  » «   মাশরাফির রংপুরের কাছে নাসিরের সিলেটের পরাজয়!  » «   যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু  » «   সালমানের স্ত্রী-সন্তান থাকে বিদেশে!  » «   পুলিশ পেটালো ছাত্রলীগ!  » «   চুয়াডাঙ্গায় সাপের কামড়ে একজনের মৃত্যু  » «   বিপিএল পয়েন্ট টেবিলে কে কোথায় দাঁড়িয়ে  » «   আম্পায়ারের সঙ্গে সাকিবের এ কেমন আচরণ!  » «   সংসদে বাদলকে তুলোধুনো করলেন নৌমন্ত্রী  » «   ৭ মার্চ কেন জাতীয় দিবস নয় : হাইকোর্ট  » «   আজ সুফিয়া কামালের জন্মদিন  » «   অভিবাসীবিরোধী নন ট্রাম্প  » «   আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধন করবেন শাহরুখ  » «  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারাবন্দী দিবস আজ



নিউজ ডেস্ক::২০০৭ সালের এই দিনে (১৬ জুলাই) বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে কারাবন্দী করা হয়। সেনা সমর্থিত ফখরুদ্দীন-মইনউদ্দিনের নেতৃত্বাধীন জরুরি অবস্থার সরকার বঙ্গবন্ধু কন্যাকে কারাবন্দি করেন। এগারো মাস তাকে কারাবন্দি থাকতে হয়। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চাপের মুখে ২০০৮ সালের ১১ জুন কারামুক্ত হন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী।

২০০৭ সালের আজকের এই দিনে খুব ভোরে আওয়ামী লীগ সভাপতির বাসভবন সুধাসদন থেকে আটক করা হয় শেখ হাসিনাকে। পরে কথিত দুর্নীতির কয়েকটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সংসদ ভবন এলাকায় স্থাপিত বিশেষ কারাগারে বন্দি রাখা হয় তাকে। এর প্রতিবাদে ফেটে পড়েন দলটির সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। জরুরি অবস্থার তোয়াক্কা না করেই পুরান ঢাকার আদালত চত্বরে হাজার হাজার মানুষ জড়ো হয়ে গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানান।

জরুরি অবস্থার মধ্যে দেশজুড়ে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা বিভিন্নভাবে তাদের আন্দোলন অব্যাহত রাখেন। ধীরে ধীরে তা তীব্র হয়ে ওঠে। বাড়তে থাকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চাপ। চাপের মুখে এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য আট সপ্তাহের জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়। মুক্তি পাওয়ার পরদিনই তিনি চিকিৎসার উদ্দেশে যুক্তরাষ্ট্রে যান। সেখানে চিকিৎসা শেষে ২০০৮ সালের ৬ নভেম্বর দেশে ফেরেন শেখ হাসিনা। এরপরই শুরু হয় নির্বাচনী দেন দরবার। ক্ষমতা ছাড়তে উদগ্রীব হয়ে পড়ে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ত সরকার। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ফখরুদ্দীন আহমেদের নেতৃত্বাধীন সরকার আওয়মী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাসহ রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে প্রকাশ্যে ও অন্তরালে শুরু করে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেওয়ার দেন-দরবার। প্রকাশ্য আসতে থাকে রাজনৈতিক নেতা ও রাজনীতি।

এক পর্যায়ে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেই নির্বাচনে দুই তৃতীয়াংশেরও বেশি আসন নিয়ে বিজয় লাভ করে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার। ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোটের সরকার গঠিত হয়। অবসান ঘটে সেনা সমর্থিত সরকারের,ফিরে আসে সংসদীয় গণতন্ত্র ও রাজনৈতিক সরকার।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: