শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সাপাহারে ট্রাক ও ভ্যানের মুখো-মুখি সংঘর্ষে নিহত-২  » «   দুর্ঘটনার দিন ঢাকাতেই ছিলাম না’  » «   ভক্তদের হতাশ করেনি ব্রাজিল : অতিরিক্ত সময়ই বিশ্বকাপে টিকিয়ে রাখল নেইমারদের  » «   হাসপাতালের এক্সরে রুমে রোগীর মাকে ধর্ষণের চেষ্টা!  » «   গজারী বনে যুবতীর অর্ধগলিত লাশ  » «   ‘খালেদা চেয়েছিলেন আমি কারাগারেই মরি’: এরশাদ  » «   রাজনীতিতে ভালবাসার কোনো স্থান নেই : কাদের  » «   ফতুল্লার ব্রাজিল বাড়িতে নিজ দেশের খেলা দেখবেন রাষ্ট্রদূত  » «   সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ দিতে উদ্যোগ নিচ্ছে গুগল  » «   জামিনের ৭ দিন পরে ফের ইয়াবাসহ আটক  » «   প্রিয়জনের রাগ ভাঙাবেন যেভাবে!  » «   নদী ভাঙনে বড়লেখার ৫ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ চরমে  » «   আইসিআরসি প্রেসিডেন্ট আসছেন ৩০ জুন  » «   মা হলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী!  » «   যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে নিহত ২  » «  

প্রধানমন্ত্রীর শ্বশুরবাড়িতে নৌকা-ধানের শীষের লড়াই



2016_03_30_17_54_49_KSPTJ8LWzDSUmc9zXzO7EMXRlYCFgc_originalনিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়াজেদের শ্বশুরবাড়ি আর স্পিকার শিরিন শারমিন এমপির নির্বাচনী এলাকা পীরগঞ্জে জমে উঠেছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। প্রার্থীদের উৎসবের আমেজে প্রচার প্রচারণা শেষ হয়েছে মঙ্গলবার।

এদিকে ভোটগ্রহণের জন্য সবধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) পীরগঞ্জ উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

তবে ভোট যতই ঘনিয়ে আসছে ততোই জয় নিশ্চিত করতে মরিয়া হয়ে উঠছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত নৌকার মাঝিরা। অন্যদিকে বিএনপির দাবি সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে জয়ী হবেন তারা। জয়ের অংক কষতে পিছিয়ে নেই এরশাদের লাঙল প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীরাও। তবে ভোটযুদ্ধের এই উত্তাপে নৌকা ও ধানের শীষ প্রতীকের মধ্যেই মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে মনে করছেন ভোটাররা।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার পীরগঞ্জ উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ১১টিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পীরগঞ্জ পৌরসভার সীমানা নির্ধারণ না হওয়ায় পীরগঞ্জ, রামনাথপুর, রায়পুর এবং মেয়াদ পূর্ণ না হওয়ায় বড়আলমপুর ইউনিয়নে বর্তমানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।

এসব ইউনিয়নের ১০৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ৮৭টিই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। এখানে ১১টি ইউনিয়নে এক লাখ ৯৯ হাজার ৩৪৯ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯৮ হাজার ৯৩৯ এবং মহিলা ভোটার এক লাখ ৪১০ জন রয়েছে।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ১১ জন, বিএনপি মনোনীত ৭জন, জাতীয় পার্টির ৮ জন রয়েছে। এছাড়াও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ৩, বিএনপির ২ জনসহ স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ মোট ৫৩ জন নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।

অপরদিকে, ৩৩টি সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১৪৬ জন এবং সাধারণ সদস্যের ৯৯টি পদে ৪৮৩ জনসহ মোট ৬৯৩ জন প্রার্থী নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতার মাঠে থাকছন।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন- চৈত্রকোল ইউপিতে জিয়াউর রহমান সবুজ, ভেণ্ডাবাড়ীর আব্দুল হালিম সরকার, বড়দরগায় মোতাহারুল হক বাবলু, কুমেদপুরে আলহাজ্ব মোশফাক হোসেন খাঁন চৌধুরী ফুয়াদ, মদনখালীতে সামছুল আলম, টুকুরিয়ায় আতাউর রহমান মণ্ডল, শানেরহাটে মিজানুর রহমান মন্টু, পাঁচগাছীতে লুৎফর রহমান লতিফ, মিঠিপুরে এসএস ফারুখ আহম্মেদ, চতরায় এনামুল হক প্রধান শাহীন এবং কাবিলপুরে রবিউল ইসলাম রবি।

ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন- চৈত্রকোলের লিয়াকত আলী মণ্ডল, ভেণ্ডাবাড়ীর তৌহিদুল ইসলাম, বড়দরগার সোহেল রানা, মদনখালীর জাহিদুল ইসলাম, পাঁচগাছীর নজরুল ইসলাম, মিঠিপুরের রায়হান প্রধান, চতরার আব্দুল কাফি মন্ডল এবং কাবিলপুরের মাসুদ রানা।

জাতীয় পার্টির লাঙল প্রতীকের প্রার্থীরা হলেন- চৈত্রকোল ইউপির ইছাহাক আলী মাস্টার (অব.), ভেণ্ডাবাড়ীর মোস্তাফিজার রহমান, বড়দরগায় ফারুক মিয়া, কুমেদপুরে মকবুল হোসেন, টুকুরিয়ায় মিজানুর রহমান শাহীন, শানেরহাটে আবেদ হোসেন খাঁন মাজু, পাঁচগাছীতে ওয়ালিউর রহমান সাকি, মিঠিপুরে হারুন অর রশিদ, চতরায় জয়নাল আবেদীন এবং কাবিলপুরে লুৎফর রহমান।

এছাড়া আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন- কুমেদপুর ইউপির মোজাম্মেল হক লাল, পাঁচগাছী ইউপির বাবলু মণ্ডল এবং কাবিলপুর ইউপিতে শামছুল হক। অন্যদিকে বিএনপির বিদ্রোহীরা হলেন- চৈত্রকোল ইউপির আরিফুল ইসলাম ও ভেণ্ডাবাড়ী ইউপির রবিউল ইসলাম রবি।

পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কেএন রায় নিয়তী বাংলামেইলকে বলেন, নির্বাচনে ১১টি ইউনিয়নের ১০৭টি ভোট কেন্দ্রে প্রায় ২ হাজার আনসার সদস্য, এক হাজার পুলিশ, দেড় শতাধিক বিজিবি, র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা থাকবেন।

এদিকে, পীরগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে কেউ ঝামেলা করলে তাকে ছাড় দেয়া হবে না বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন রংপুরের পুলিশ সুপার আব্দুর রাজ্জাক পিপিএম। তিনি বলেছেন, জনগণ যাকে ভোট দিবেন, তিনিই নির্বাচিত হবেন। নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। এরপরেও যদি কেউ ক্ষমতার দাপট, বল প্রয়োগ করার চেষ্টা করেন, তাহলে আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: