বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ধাপে ধাপে জরিমানা নেবে ট্রাফিক পুলিশ  » «   আগামীকাল থেকে আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে ওয়াজ মাহফিল শুরু  » «   ঘরের ছেলে ঘরে ফিরেছে: ইনাম চৌধুরী প্রসঙ্গে মিসবাহ সিরাজ  » «   উল্টো আ’লীগ থেকে বিএনপিতে আসার অবস্থা: মির্জা ফখরুল  » «   এবার তাজমন্দিরে রূপান্তরিত হচ্ছে আগ্রার তাজমহল  » «   বান্দরকে লাই দিলে গাছের মাথায় ওঠে : রাঙ্গাকে ফিরোজ রশীদ  » «   আবরার হত্যায় ২৫ জনকে আসামি করে চার্জশিট জমা  » «   ২০২১ সালের মধ্যে দেশের সব ঘরে বিদ্যুৎ: প্রধানমন্ত্রী  » «   সরকারবিরোধী হলে ৩০ ডিসেম্বরের পরই রাস্তায় নামতাম : ভিপি নুর  » «   আজ ৭ বিদ্যুৎকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী  » «   সিধুকে নিয়ে করা ইমরান খানের মন্তব্য ভাইরাল  » «   পায়ের ওপর দিয়ে বাস, মৃত্যুর কাছে হার মানলেন সেই নারী  » «   পুরোনো বগিতে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে চলছিল উদয়ন  » «   ট্রেন দুর্ঘটনা: লাশ হয়ে বাড়ি ফিরছেন চাঁদপুরের দম্পতি  » «   ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত ১০ জনের পরিচয় মিলেছে  » «  

প্রধানমন্ত্রীর পাঠানো চকলেট বাড়ি ফিরে সবাইকে দেখাতে চায় মুক্তামণি



নিউজ ডেস্ক:: মুক্তামণির ডান হাত অক্ষত রেখেই সেখান থেকে প্রায় তিন কেজি ওজনের টিউমার অপসারণ করা হয়েছে গত শনিবার। শরীর অসুস্থ থাকায় নানা জটিলতা দেখা দেয় মুক্তামণির কিন্তু অস্ত্রোপচারের ধকল বেশ খানিকটা কাটিয়ে উঠেছে মুক্তামণি। এখন আর আগের মতো জ্বরও নেই। মুক্তামণি সুযোগ পেলেই এখন অনেক কথা বলছে। জানা গেছে, অস্ত্রোপচারের আগে প্রধানমন্ত্রী মুক্তামণির জন্য কিছু চকলেট পাঠিয়েছে। আর সেই চকলেট মুক্তামণি অনেক যত্ন করে রেখেছেন।
১৫ আগস্ট মঙ্গলবার মুক্তামণির বাবা ইব্রাহিম হোসেন জানান, অস্ত্রোপচারের আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তামণিকে শুভকামনা জানিয়ে বার্ন ইউনিটের কেবিনে চকলেট পাঠিয়েছিলেন। তখনই মুক্তামণি কিছু চকলেট আলাদা করে গুছিয়ে রেখেছে বাড়ি নিয়ে যাবে বলে। মুক্তামণিকে তার বাবা প্রশ্ন করেন প্রধানমন্ত্রী তোমাকে যে চকলেট দিয়েছেন তা খাবে না? উত্তরে মুক্তামণি জানায়, ‘খাইলে তো ফুরাইয়া যাবে। বাড়ি ফিরে সবাইকে দেখাইতে হবে না, প্রধানমন্ত্রী আমার জন্য চকলেট পাঠাইছেন।’
এর আগে ১৪ আগস্ট সোমবার রাতে মুক্তামণির বেশ জ্বর ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা হয়। তবে মঙ্গলবার তার তেমন কোনো সমস্যা হয়নি। এখন মুক্তামণি সুযোগ পেলেই অনেক কথা বলছে। কথা বলতে পারলেই মনে হয় বেশি ভালো থাকে।
প্রসঙ্গত, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার দক্ষিণ কামারবায়সা গ্রামের মুদি দোকানি ইব্রাহীম হোসেনের জমজ মেয়েদের একজন মুক্তামনি। তার জমজ হীরামনি সুস্থ থাকলেও দেড় বছর বয়স থেকে হাতে টিউমার শুরু হয় মুক্তামনির। সাতক্ষীরা, খুলনাসহ বিভিন্নস্থানে চিকিৎসা করালেও সুস্থ হয়নি সে। পরে অর্থাভাবে চিকিৎসা বন্ধ হয়ে গেলে ফুলে যাওয়া হাতটি গাছের বাকলের (ছাল) মতো হয়ে যায় এবং দুর্গন্ধ ছড়াতে শুরু করে।

গণমাধ্যমে তার খবর প্রকাশ হলে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেয় সরকার। ভর্তি করা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের অধীনে। ইতোমধ্যে তার চিকিৎসার বিষয়ে সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকদের মতামত নেওয়া হলে তারা এই অসুখ নিরাময়যোগ্য নয় বলে মত দেয়। বাংলাদেশের চিকিৎসকরা তার বিষয়ে আশা না ছেড়ে শেষ পর্যন্ত চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।
ভর্তি করা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের অধীনে। ইতোমধ্যে তার চিকিৎসার বিষয়ে সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকদের মতামত নেওয়া হলে তারা এই অসুখ নিরাময়যোগ্য নয় বলে মত দেয়। বাংলাদেশের চিকিৎসকরা তার বিষয়ে আশা না ছেড়ে শেষ পর্যন্ত চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।
সে অনুযায়ী তার বায়োপসি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। ০৫ আগস্ট সকাল আটটা থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের মেডিকেল বোর্ড মুক্তামনির অস্ত্রোপচার শুরু করে। প্রথম অস্ত্রোপচার শেষে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ)তে রাখা হয়।
০৮ আগস্ট সকালে মুক্তামনির বায়োপসির রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরে বেলা ১১টার পরে সাংবাদিকদের মুক্তামনির চিকিৎসা গঠিত ঢামেক বার্ন ইউনিটের সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন জানান, বায়োপসি রিপোর্টে প্রাথমিকভাবে দেখা গেছে, মুক্তামণির রক্তনালিতে টিউমার দেখা দিয়েছে। এই রোগটার নাম ‘হেমানজিওমা’। বায়োপসির প্রতিবেদন নিয়ে মেডিকেল বোর্ড বসে শনিবার সকাল ৮টায় মুক্তামনির হাতে অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায়, হেমানজিওমা হলো শিশুদের রক্তনালীর মধ্যে টিউমার যেগুলোতে ক্যান্সার থাকে না। এই টিউমার শিশুদের মধ্যে প্রায়ই দেখা যায়। ত্বকের উপরিভাগে লাল গুটির মতো দেখতে এই টিউমার একটা সময়ের পর বিনা চিকিৎসায় মিশে যায়। বেশিরভাগ শিশুরই এতে কোনো সমস্যা হয় না।
তবে ফেটে গিয়ে রক্ত বের হলে তা যন্ত্রণাদায়ক হয়। টিউমারের আকার ও অবস্থানের উপর নির্ভর করে এটা বিকৃতও হয়ে যেতে পারে। উপরন্তু এগুরো স্নায়তন্ত্র বা মেরুদণ্ডের সমস্যাও তৈরি করতে পারে। ত্বক ছাড়াও যকৃত ও ফুসফুসের মতো আভ্যন্তরীণ অঙ্গেও হেমানজিওমা হতে পারে। এগুলোও সাধারণত সমস্যা করে না।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: