শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
যমুনা নদীতে বিলীন হচ্ছে বসত বাড়ি, দেখার কেউ নেই!  » «   নতুন চলচ্চিত্রের জন্য ইরানে অনন্ত  » «   নেইমারের জার্সি গায়ে অপু ও জয়  » «   সিসিক নির্বাচন: আ.লীগ মেয়র প্রার্থী হলেন কামরান  » «   বাসায় ঢুকে অভিনেত্রীকে শ্লীলতাহানি!  » «   আর্জেন্টিনার হার, বেরিয়ে এলো বিস্ফোরক তথ্য!  » «   দুর্ঘটনা সড়কে মৃত্যুর মিছিল, নিহত ৩০, আহত ৪৭  » «   ‘নির্বাচনে জয়ী হতে গিয়ে যেন দলের বদনাম না হয়’  » «   হাসপাতালে পরীমনি  » «   আর্জেন্টিনার হার, ‘সুইসাইড নোট’ লিখে নিখোঁজ মেসি ভক্ত  » «   সাপাহারে ট্রাক ও ভ্যানের মুখো-মুখি সংঘর্ষে নিহত-২  » «   দুর্ঘটনার দিন ঢাকাতেই ছিলাম না’  » «   ভক্তদের হতাশ করেনি ব্রাজিল : অতিরিক্ত সময়ই বিশ্বকাপে টিকিয়ে রাখল নেইমারদের  » «   হাসপাতালের এক্সরে রুমে রোগীর মাকে ধর্ষণের চেষ্টা!  » «   গজারী বনে যুবতীর অর্ধগলিত লাশ  » «  

পূর্ব শত্রুতার জের ধরেকালীগঞ্জে ৭ বাড়িতে হামলা ভাংচুর বোমার বিস্ফোরণ



ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ৬ থেকে ৭ টি বাড়িতে ভাংচুর, লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) দিনগত রাত সাড়ে ৮ টার দিকে উপজেলার মনোহরপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। হামলা ও লুটপাটের সময় বেশ কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। হামলায় মুরাদ আলী (৩৪) নামের এক ব্যক্তি আহত হয়েছে। তাকে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পরে পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সিমলা-রোকনপুর ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দীন পক্ষের প্রায় অর্ধশত লোকজন সঙ্গবদ্ধ হয়ে কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি ইসরাইল হোসেনের আত্নীয়-স্বজন ও তার পক্ষের লোকজনের উপর এ হামলা চালায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দীন।

কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি ইসরাইল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) দুপুরে মনোহরপুর গ্রামের আকরাম হোসেনের ছেলে আরিফুল ইসলাম জুম্মার নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় চেয়ারম্যান নাছির পক্ষের রিয়াজ ও তৌহিদ তাকে মারপিট করে। পরে রাতে তারা সঙ্গবদ্ধ হয়ে পুনরায় আমার আত্নীয়-স্বজন ও পক্ষের ৬ থেকে ৭ জন লোকের বাড়িতে যেয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় তারা মনোহরপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা টিপু সুলতানের ছেলে টিটন, সোবহানের ছেলে মামুন, আমার ভাই ইকবাল হোসেন, মান্দার মন্ডলের ছেলে ফজলু ও বজলুসহ ৬ থেকে ৭ টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে। সে সময় ওই বাড়ি গুলি থেকে হামলাকারীরা নগদ টাকা, স্বর্ণলংকার, ধান, মসুড়ি, টিভি, রাইচ কুকার লুট করে নিয়ে যায়। হামলার সময় তারা বেশ কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় এবং বাড়ির মহিলাদের মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে হুমকি ধামকি দেয় ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।

ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি ইসরাইল হোসেন আরো জানান, চলতি বছরের ১৪ মার্চ তার ভাইপো যুবলীগ নেতা বিপুল হোসেনকে হত্যা করা হয়। ওই মামলার আসামিরা জামিন পেয়ে পুনরায় আবার হামলা ও লুটপাট চালিয়েছে।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দীন জানান, শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) দুপুরে আরিফুল কে মারপিট করা হয়নি। বরং আরিফুল ও হাসান নামের দু’জন মিলে রিয়াজ ও তৌহিদ নামের দুই ব্যক্তিকে মারপিট করে। এ ঘটনায় একটু হালকা পাতলা গোলযোগ হয়েছে। বাড়ি-ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের কোন ঘটনা ঘটেনি। তারা নিজেরাই এ গুলি করে আমাদের উপর দোষ চাপাচ্ছে।

কালীগঞ্জ থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান খানের কাছে হামলা, ভাংচুর ও বোমা বিস্ফোরণের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

তবে ঘটনাস্থলে দায়িত্ব পালনকারী থানার এসআই অমিত কুমার দাস জানান, ছাত্রলীগ নেতা ইসরাইল, তার বোন ও মামুন নামের তিন জনের বাড়িতে ভাংচুর করা হয়েছে। এ ছাড়া রাস্তার উপর কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ হয়। আমরা আলামত উদ্ধার করেছি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: