শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

পুলিশের বিরুদ্ধে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ আটক ২



নিউজ ডেস্ক::মাদকদ্রব্যের মামলার ভয় দেখিয়ে সোর্সের মাধ্যমে অর্থ বাণিজ্য করার অভিযোগ উঠেছে ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার জগন্নাথপুর পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জের বিরুদ্ধে। পুলিশের এ বাণিজ্যে রুষ্ট হয়ে জনতা শুক্রবার (২ মার্চ) দুপুরে ক্যাম্পের দুই কর্মকর্তাকে অবরুদ্ধ করে এবং ইব্রাহীম নামে পুলিশের এক সোর্সকে উত্তম মধ্যম দেয়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে পরে থানা পুলিশ ইব্রাহীমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

এলাকার লোকজনের অভিযোগ, বৈরচুনা বাজারের ভারতী ফার্মেসীতে কৌশলে ১ বোতল ফেন্সিডিল ঢুকিয়ে দিয়ে জগন্নাপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এস আই মোস্তফা এবং এএসআই শামসুজ্জোহা বৃহস্পতিবার (১ মার্চ) বিকালে ঐ ফার্মেসীতে অভিযান চালায়। এসময় ঐ ওষুধের দোকান থেকে ১ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। এরপর দোকান মালিক অনিলকে পুলিশ ক্যাম্পে যেতে বলে।

এরই মধ্যে পুলিশের সোর্স ইব্রাহীম এসে বিষয়টি মিটমাট করে দেওয়ার কথা বলে ৫ হাজার টাকা চায় দোকান মালিকের কাছে। তারপর দরবারে এক পর্যায়ে সন্ধ্যায় ২ হাজার টাকা নিয়ে ইব্রাহীম ও পুলিশ কেটে পড়ে।

দোকান মালিক বিষয়টি শুক্রবার (২ মার্চ) বৈরচুনা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দকে জানায়। এ নিয়ে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে বৈঠক বসে। এতে ক্যাম্প ইনচার্জ মোস্তফা এবং এ এস আই শামসুজ্জোহা, সোর্স ইব্রাহীম উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় অতিষ্ঠ লোকজন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের অফিস ঘিরে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। তারা ঐ দু’পুলিশ কর্মকর্তা সহ ইব্রাহীমের বিচার দাবী করে এবং আ’লীগের অফিসের ভিতরে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখে। এ সময় সোর্স ইব্রাহীম ঐ ওষুধ ব্যসায়ীকে ২ হাজার টাকা ফেরত দেয়।

পরে থানার ওসি আমিরুজ্জামান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আখতারুল ইসলাম ঘটনাস্থলে যায়। এ সময় জনতার মাঝে উত্তেজিত ভাব দেখে পরিস্থিতি সামাল দিতে সোর্স ইব্রাহীমকে আটক করে পুলিশ। পরে জগন্নাথপুর পুলিশ ক্যাম্পে থানার ওসি সহ উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের নেতাদের উপস্থিতিতে আবারো বৈঠক হয়। বৈঠকে ইব্রাহীম সহ পুলিশের ৯ জন সোর্সের নাম উঠে আসে। পুলিশ সহ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানানো হয় বৈঠকে।

কিন্তু থানার ওসি আমিরুজ্জামান পুলিশকে আড়াল করে শুধু সোর্সদের নামে মামলা করার কথা জানান। সুত্র জানায় ক্যাম্প ইনচার্জ মোস্তফা থানার ওসি আমিরুজ্জামানের খালাতো ভাই হওয়ায় তাকে আড়াল করা হয়।

এদিকে রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাতে ক্যাম্প ইনচার্জ মোস্তফা জামিনী মোড়ে নশা নামে এক সাধারণ লোককে আটক করে তার কাছে মাদক আছে বলে দাবী করে। তল্লাসী করে তার কাছ থেকে ২ টি ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া গেছে এমন ভয় দেখিয়ে ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় এবং আরো ১২ হাজার টাকা দাবী করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

উল্লেখ্য, জগন্নাথপুর পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই মোস্তফার নেতৃত্বে মাদক মামলার ভয় দেখিয়ে এলাকার নিরিহ লোকদের কাছ থেকে তার নিযুক্ত সোর্সের মাধ্যমে টাকা আদায় বাণিজ্যের খোরাক হয়ে উঠেছে ঐ এলাকার সাধারণ মানুষ।

এ বিষয়ে মোবাইল ফোনে পীরগঞ্জ থানার ওসি আমিরুজ্জামানের মতামত চাওয়া হলে তিনি বলেন, ইব্রাহীমে বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়ার কথা বলেছি। তারা সন্ধ্যায় দিতে চেয়েছে। দেখি কি করা যায়। তবে পুলিশের বিরুদ্ধে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবী করেন তিনি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: