শুক্রবার, ২০ অক্টোবর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ কার্তিক ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নিজেকে খলিফা ও ইমাম মাহাদী দাবিকারী গ্রেফতার  » «   কুয়েতে এসি বিস্ফোরণে নিহত: গ্রামের বাড়িতে মরদেহ গ্রহণ, স্বজনদের কান্নার রোল  » «   ‘রোহিঙ্গা সংকটের জন্য মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দায়ী’  » «   অভিষেক ম্যাচেই যাদু, কে এই বিষ্ময় যুবক!  » «   দোয়ারাবাজারে মাছের অাঘাতে একজনের মৃত্যু !  » «   সৌদিতে থাকা বাংলাদেশিদের জন্য সুখবর  » «   তরুণ ও গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতন, আটক ৬  » «   এ মাসেই নির্মাণকাজ উদ্বোধন বস্তিবাসীদের জন্য ৫৫০ বহুতল ভবন  » «   কান কি পরিষ্কার করা উচিত? জানলে চমকে যাবেন  » «   ভারতীয় তিন টিভির সম্প্রচার বন্ধে আপিল শুনানি রোববার  » «   ঢাবিতে ভারপ্রাপ্ত প্রক্টরের দায়িত্ব গোলাম রব্বানী  » «   আইপিইউ সম্মেলনে রোহিঙ্গা ইস্যুবাংলাদেশের কাছে ৯৮০ ভোটে হেরে গেল মিয়ানমার  » «   প্রেমিকসহ ধর্ষিতা নিখোঁজপ্রেমিককে গাছে বেঁধে প্রেমিকাকে গণধর্ষণ  » «   লেজ আকৃতির অদ্ভুত সন্তান প্রসব গৃহবধূর!  » «   সাগরে নিম্নচাপ, ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত  » «  

পাক ব্যাংকে দুর্নীতি, অভিযুক্ত ৭ বাংলাদেশি



নিউজ ডেস্ক::পাকিস্তানের অন্যতম এক বাণিজ্যিক ব্যাংক ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তানের ঢাকা শাখা থেকে ১ হাজার ৮’শ ৫০ কোটি রুপি দুর্নীতি হয়েছে। ২০০৩-২০১২ সাল পর্যন্ত এ দুর্নীতি হয়। এ দুর্নীতিতে জড়িত অভিযোগে প্রদীপ, সলিমুল্লাহ, কাজী নিজামসহ সাত বাংলাদেশিসহ ব্যাংকটির ১৬ শীর্ষ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে পাকিস্তানের দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টেবিলিটি ব্যুরো-ন্যাব।

শুক্রবার আদালতের নির্দেশের এনবিপির সাবেক প্রেসিডেন্ট সাঈদ আলী রাজা, ঢাকা শাখার মহাব্যবস্থাপক ওয়াসিম খান, কর্মকর্তা তালহা ইয়াকুব, যোবায়ের আহমেদ ও ড. মির্জা আবরার বেগকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাঁচ ব্যাংক কর্মকর্তাকে ন্যাবের হাজতখানায় রাখা হয়েছে। শনিবার তাদের করাচির দুর্নীতিবিরোধী আদালতে হাজির করার কথাও রয়েছে।

এনবিপির সাবেক প্রেসিডেন্টসহ পাঁচ অভিযুক্তের আগাম জামিন আবেদন নাকচ করে তাদের গ্রেফতারের আদেশ দেওয়া হয়। এরপর অভিযুক্তরা গ্রেফতার এড়ানোর জন্য আদালতের এজলাশে দীর্ঘ সময় অবস্থান করে। একই সময়ে ন্যাব কর্মকর্তারা এজলাশের বাইরে অপেক্ষা করতে থাকেন। একপর্যায়ে সাঈদ আলী রাজা ও বাকি চার অভিযুক্ত বের হওয়া মাত্রই তাদের ধরে ফেলেন ন্যাব কর্মকর্তা।

জানা গেছে, এনবিপির কিছু কর্মকর্তা কোনো ধরনের যথাযথ জামানত ছাড়াই ক্ষমতার অপব্যবহার করে বিভিন্ন বিতর্কিত প্রতিষ্ঠানকে বাংলাদেশ শাখা থেকে ঋণ অনুমোদন করে। এভাবে তারা পাকিস্তানের জাতীয় রাজস্বের ক্ষতি করেছেন এমন অভিযোগ এনে তাদের বিরুদ্ধে গত বছর তদন্ত শুরু করে ন্যাব।

শুক্রবার সিন্ধু হাইকোর্টকে ন্যাবের তদন্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, অভিযুক্তরা এনবিপির বাংলাদেশ শাখার মাধ্যমে পাকিস্তানের শত শত কোটি রুপি ক্ষতি করেছে। অনিয়মের বিষয়টি জানাজানি হয়। এতে পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একজন সাবেক গভর্নর অভিযোগ করেন, এনবিপির কর্মকর্তারা দুর্নীতিতে জড়িত।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: