শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় বোনকে কুপিয়ে আহত করলো ভাই! ভাবী গ্রেফতার



বড়লেখা প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় ছোটো বোনের স্বামীর জমি বিক্রির ৩ লাখ টাকা ধার নিয়ে মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলেন বড়োভাই রনজিত বিশ্বাস। ৬ মাস পর পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় আপন বোনকে তিনি দা দিয়ে কুপিয়ে হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। আইনের আশ্রয় নেওয়ায় তিনিসহ মামলার স্বাক্ষীদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে রনজিত গংরা। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার সাহীন আহমদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে রনজিৎ বেপরোয়া আচরণ করছেন।
এলাকাবাসী, থানা পুলিশসহ একাধিক সূত্র জানায়, উপজেলার বর্ণি ইউনিয়নের পানিশাইল গ্রামের মৃত কুলেন্দ্র বিশ্বাসের স্ত্রী সুলতা রাণী বিশ্বাস প্রায় ৬ মাস আগে পারিবারিক প্রয়োজনে স্বামীর জমি বিক্রি করেন। এ খবর পেয়েই বড়োভাই রনজিৎ বিশ্বাস তার মেয়ে পলিতা রাণী বিশ্বাসের বিয়ের ব্যয়ভার মেটাতে ৩ মাসের মধ্যে ফেরত দেওয়ার শর্তে ৩ লাখ টাকা ধার নেন। প্রায় ৬ মাস অতিবাহিত হওয়ার পর গত বুধবার বিকেলে সুলতা রাণী বড়লেখা সদর ইউপি’র আহমদপুর গ্রামে বাবার বাড়িতে গিয়ে ভাইয়ের কাছে পাওনা টাকা ফেরত চান। এ সময় রনজিৎ বিশ্বাস ও তার স্ত্রী দৈবকি রাণী বিশ্বাসসহ আরও কয়েকজন একত্রিত হয়ে সুলতা রাণী বিশ্বাসের ওপর হামলা চালায়। রনজিৎ তার আপন বোনকে হত্যার উদ্দেশ্যে দা দিয়ে কোপ দিলে সুলতা বামহাত তুলে নিজেকে রক্ষা করেন। দা’র কোপে বামহাতে মারাত্মক জখম হলে স্বজনরা তাকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় সুলতা রাণী বাদী হয়ে বড়োভাই রনজিৎ বিশ্বাসসহ ৬জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা সুলতা রাণী বিশ্বাস জানান, থানায় মামলা করায় আসামীরা তিনিসহ স্বাক্ষীদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। ধারালো অস্ত্র নিয়ে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে। এলাকাবাসী প্রধান আসামীকে আটকিয়ে স্থানীয় ইউপি মেম্বার সাহিন আহমদের কাছে সোপর্দ করে থানায় খবর দেন। কিন্তু পুলিশ যাওয়ার আগেই সাহীন মেম্বার তাকে সরিয়ে দেন। এ বিষয়ে বড়লেখা থানার সেকে- অফিসার এসআই অমিতাভ দাস তালুকদার জানান, আসামীদের গ্রেফতারের জন্যে একাধিকবার অভিযান চালানো হয়েছে। আসামীকে গ্রেফতারে জোর পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত আছে। প্রধান আসামী পালিয়ে গেলেও দুই নম্বর আসামী দৈবকি রাণী বিশ্বাসকে বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেফতার করা হয়।
বড়লেখা প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় ছোটো বোনের স্বামীর জমি বিক্রির ৩ লাখ টাকা ধার নিয়ে মেয়ের বিয়ে দিয়েছিলেন বড়োভাই রনজিত বিশ্বাস। ৬ মাস পর পাওনা টাকা ফেরত চাওয়ায় আপন বোনকে তিনি দা দিয়ে কুপিয়ে হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। আইনের আশ্রয় নেওয়ায় তিনিসহ মামলার স্বাক্ষীদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে রনজিত গংরা। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার সাহীন আহমদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে রনজিৎ বেপরোয়া আচরণ করছেন।
এলাকাবাসী, থানা পুলিশসহ একাধিক সূত্র জানায়, উপজেলার বর্ণি ইউনিয়নের পানিশাইল গ্রামের মৃত কুলেন্দ্র বিশ্বাসের স্ত্রী সুলতা রাণী বিশ্বাস প্রায় ৬ মাস আগে পারিবারিক প্রয়োজনে স্বামীর জমি বিক্রি করেন। এ খবর পেয়েই বড়োভাই রনজিৎ বিশ্বাস তার মেয়ে পলিতা রাণী বিশ্বাসের বিয়ের ব্যয়ভার মেটাতে ৩ মাসের মধ্যে ফেরত দেওয়ার শর্তে ৩ লাখ টাকা ধার নেন। প্রায় ৬ মাস অতিবাহিত হওয়ার পর গত বুধবার বিকেলে সুলতা রাণী বড়লেখা সদর ইউপি’র আহমদপুর গ্রামে বাবার বাড়িতে গিয়ে ভাইয়ের কাছে পাওনা টাকা ফেরত চান। এ সময় রনজিৎ বিশ্বাস ও তার স্ত্রী দৈবকি রাণী বিশ্বাসসহ আরও কয়েকজন একত্রিত হয়ে সুলতা রাণী বিশ্বাসের ওপর হামলা চালায়। রনজিৎ তার আপন বোনকে হত্যার উদ্দেশ্যে দা দিয়ে কোপ দিলে সুলতা বামহাত তুলে নিজেকে রক্ষা করেন। দা’র কোপে বামহাতে মারাত্মক জখম হলে স্বজনরা তাকে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় সুলতা রাণী বাদী হয়ে বড়োভাই রনজিৎ বিশ্বাসসহ ৬জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা সুলতা রাণী বিশ্বাস জানান, থানায় মামলা করায় আসামীরা তিনিসহ স্বাক্ষীদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। ধারালো অস্ত্র নিয়ে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে। এলাকাবাসী প্রধান আসামীকে আটকিয়ে স্থানীয় ইউপি মেম্বার সাহিন আহমদের কাছে সোপর্দ করে থানায় খবর দেন। কিন্তু পুলিশ যাওয়ার আগেই সাহীন মেম্বার তাকে সরিয়ে দেন। এ বিষয়ে বড়লেখা থানার সেকে- অফিসার এসআই অমিতাভ দাস তালুকদার জানান, আসামীদের গ্রেফতারের জন্যে একাধিকবার অভিযান চালানো হয়েছে। আসামীকে গ্রেফতারে জোর পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত আছে। প্রধান আসামী পালিয়ে গেলেও দুই নম্বর আসামী দৈবকি রাণী বিশ্বাসকে বৃহস্পতিবার রাতে গ্রেফতার করা হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: