মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে যারা হলেন ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান  » «   সালাম দিয়ে পার্লামেন্টে বক্তব্য শুরু করলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী  » «   ক্রাইস্টচার্চে নিহতদের শোকসভায় তোপের মুখে চেলসি ক্লিনটন  » «   রাজধানীতে বাসচাপায় বিইউপির ছাত্র নিহত, সড়ক অবরোধ  » «   সুনামগঞ্জে আ. লীগ নেতাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা, আটক ৩  » «   বিয়ানীবাজারে পল্লবের অর্ধেক ভোটও পাননি নৌকার আতাউর  » «   উপজেলা নির্বাচন: গোলাপগঞ্জে কে পেলেন কত ভোট  » «   একতরফা নির্বাচন গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত: মাহবুব তালুকদার  » «   উপজেলা নির্বাচন: দ্বিতীয় ধাপের ভোট গ্রহণ শেষ, চলছে গণনা  » «   পুলিশ কেন জনগণের বন্ধু নয়?  » «   ভোটার শূন্য ভোটকেন্দ্রে, দোল খাচ্ছেন নিরাপত্তা কর্মীরা  » «   অসুস্থতার কারণে খালেদা জিয়ার গ্যাটকো মামলার শুনানি পিছিয়েছে  » «   বাংলা ভাষার বঙ্গবন্ধু’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   চাঁদপুরের ৫০০ বছরের পুরনো মসজিদ সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত  » «   কাঙালের ধন চুরি…  » «  

পাঁচ দিন ধরে বাড়ির আঙিনায় পড়ে আছে প্রবাসীর মরদেহ!



নিউজ ডেস্ক :: পরিবহন খরচ দিতে না পারায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার টিঘর গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী সেলিম মিয়ার মরদেহ টানা পাঁচদিন বাড়ির আঙিনায় পড়ে রয়েছে।
সেলিম মিয়ার স্ত্রী সালেহা বেগম জানান, ৯ বছর ধরে মালয়েশিয়ায় ছিলেন তার স্বামী সেলিম মিয়া। গত ৩১ আগস্ট মালয়েশিয়ায় মারা যান তিনি। গত ৮ সেপ্টেম্বর সেলিমের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে আসে।
সেলিমের মরদেহ দাফনের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন তার স্বজনরা। কিন্তু মরদেহ দেশে পাঠাতে প্রতিবেশী করম আলীর খরচ হওয়া তিন লাখ টাকা পরিশোধের পর মরদেহ দাফন করতে বলেন তিনি।
এলাকাবাসী জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে প্রতিবেশী করম আলী ফোন করে টাকা পরিশোধের পর মরদেহ দাফন করতে বলেন। সেলিমের পরিবার খরচের টাকা যোগাড় করতে না পারায় তার মরদেহ দাফন করা সম্ভব হয়নি।
তারা আরও জানান, বাড়ির আঙিনায় টানা পাঁচ দিন পড়ে থেকে মরদেহের বিভিন্ন অংশে পচন ধরতে শুরু করেছে। পরে ১২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে এলাকায় মিছিল করেছেন স্থানীয়রা।
তবে দাফনে বাধা দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে করম আলীর স্ত্রী আলেয়া বেগম জানান, লাশের পরিবহন খরচ বাবদ তার স্বামী তিন লাখ টাকা দিয়েছেন। তিনি টাকা চেয়েছেন। কিন্তু লাশ দাফনে বাধা দেননি।
টিঘর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রইস মিয়া জানান, খবর পেয়ে রাতে টিঘর গ্রামে সেলিম মিয়ার বাড়িতে যায় পুলিশ। ১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেলের মধ্যে পুলিশ লাশ দাফন করার নির্দেশও দেন।
জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আগে পুলিশকে জানানো হয়নি। গতকাল পুলিশ গিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দিয়েছে। আজ লাশ দাফন হবে। প্রয়োজনে এ ব্যাপারে মামলা হবে।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: