বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বাংলাদেশে আরো সৌদি বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী  » «   কানাডায় প্রকাশ্যে গাঁজা বিক্রি শুরু, ক্রেতাদের ভিড়  » «   ৩৮৭ কোটি টাকা ব্যয়ে সংস্কার হবে সিলেট ওসমানী বিমানবন্দর  » «   ৪০ ঘণ্টা পর মানারত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী দুই নারী জঙ্গির আত্মসমর্পণ  » «   পূজায় বিজিবিকে মিষ্টি পাঠিয়েছে বিএসএফ  » «   উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে ‘ট্রেনে কাটা’ পড়ে মৃত্যু  » «   আত্মসমর্পণের আহ্বানে সাড়া দিচ্ছে না জঙ্গিরা  » «   শিশু জয়নাব ধর্ষণ-হত্যা : ইমরানের ফাঁসি কার্যকর  » «   ‘বেত ও বেলুন দিয়ে মারে,পরে নখে সুই ঢুকিয়ে মাথার চুল কেটে দেয়’  » «   বউকে বৃষ্টিতে ফেলে ছাতা মাথায় ট্রাম্প!  » «   ঋণের পরিবর্তে শারীরিক সম্পর্কের প্রস্তাব ব্যাংক ম্যানেজারের,অতঃপর..  » «   খাশোগি নিখোঁজ, বেনিফিট অব ডাউটের সুবিধা পাচ্ছে সৌদি  » «   নিরাপদ খাদ্যে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি: ক্যাব সভাপতি  » «   শাবিপ্রবি’র ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ  » «   আত্মসমর্পণ না করলে ‘নিলুফা ভিলায়’ অভিযান আজ  » «  

পাঁচ দিন ধরে বাড়ির আঙিনায় পড়ে আছে প্রবাসীর মরদেহ!



নিউজ ডেস্ক :: পরিবহন খরচ দিতে না পারায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার টিঘর গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী সেলিম মিয়ার মরদেহ টানা পাঁচদিন বাড়ির আঙিনায় পড়ে রয়েছে।
সেলিম মিয়ার স্ত্রী সালেহা বেগম জানান, ৯ বছর ধরে মালয়েশিয়ায় ছিলেন তার স্বামী সেলিম মিয়া। গত ৩১ আগস্ট মালয়েশিয়ায় মারা যান তিনি। গত ৮ সেপ্টেম্বর সেলিমের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে আসে।
সেলিমের মরদেহ দাফনের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন তার স্বজনরা। কিন্তু মরদেহ দেশে পাঠাতে প্রতিবেশী করম আলীর খরচ হওয়া তিন লাখ টাকা পরিশোধের পর মরদেহ দাফন করতে বলেন তিনি।
এলাকাবাসী জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে প্রতিবেশী করম আলী ফোন করে টাকা পরিশোধের পর মরদেহ দাফন করতে বলেন। সেলিমের পরিবার খরচের টাকা যোগাড় করতে না পারায় তার মরদেহ দাফন করা সম্ভব হয়নি।
তারা আরও জানান, বাড়ির আঙিনায় টানা পাঁচ দিন পড়ে থেকে মরদেহের বিভিন্ন অংশে পচন ধরতে শুরু করেছে। পরে ১২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে এলাকায় মিছিল করেছেন স্থানীয়রা।
তবে দাফনে বাধা দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে করম আলীর স্ত্রী আলেয়া বেগম জানান, লাশের পরিবহন খরচ বাবদ তার স্বামী তিন লাখ টাকা দিয়েছেন। তিনি টাকা চেয়েছেন। কিন্তু লাশ দাফনে বাধা দেননি।
টিঘর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রইস মিয়া জানান, খবর পেয়ে রাতে টিঘর গ্রামে সেলিম মিয়ার বাড়িতে যায় পুলিশ। ১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেলের মধ্যে পুলিশ লাশ দাফন করার নির্দেশও দেন।
জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আগে পুলিশকে জানানো হয়নি। গতকাল পুলিশ গিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দিয়েছে। আজ লাশ দাফন হবে। প্রয়োজনে এ ব্যাপারে মামলা হবে।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: