বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
১৪৪ ধারা ভঙ্গের অপরাধে ৩ জনকে জরিমানা, দায়িত্বে অবহেলায় ৪ জনকে অব্যাহতি  » «   মুক্তিযোদ্ধা হতে একাত্তরে ন্যূনতম বয়স নিয়ে রুল  » «   এবার নেচে গেয়ে দর্শক মাতাবেন শামীম ওসমান  » «   বাংলাদেশ সচেতন ছাত্র ফোরামের উদ্যেগে দুঃস্থ ও এতিমদের নিয়ে তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মদিন পালন  » «   বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস ভাংচুর মামলার আসামী যখন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থী  » «   ভর্তি জালিয়াতি চক্রের দুইজন আটক  » «   পাবনায় আইডিবি’র ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিক উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত  » «   তারেক রহমানের ৫৩তম জন্মদিন পালন করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দল ফ্রান্স শাখা  » «   আরব সভ্যতা টিকবে না : আদোনিস  » «   জন্মদিনে তারেকের সুস্থতা কামনা করে খালেদার টুইট  » «   তনুর পরিবারকে ঢাকায় ডেকেছে সিআইডি  » «   যৌন হয়রানির শিকার উত্তর কোরিয়ার নারী সৈন্যরা  » «   মোদির বিরুদ্ধে আঙুল তুললে কেটে ফেলা হবে, হুমকি বিজেপি নেতার  » «   কমলগঞ্জে সংখ্যালঘুর বাড়িতে হামলা: পিইসি পরীক্ষার্থী সহ আহত ৩  » «   নাতির সঙ্গে পিএসপি পরীক্ষা দিচ্ছেন নানি  » «  

পাঁচ দিন ধরে বাড়ির আঙিনায় পড়ে আছে প্রবাসীর মরদেহ!



নিউজ ডেস্ক :: পরিবহন খরচ দিতে না পারায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার টিঘর গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী সেলিম মিয়ার মরদেহ টানা পাঁচদিন বাড়ির আঙিনায় পড়ে রয়েছে।
সেলিম মিয়ার স্ত্রী সালেহা বেগম জানান, ৯ বছর ধরে মালয়েশিয়ায় ছিলেন তার স্বামী সেলিম মিয়া। গত ৩১ আগস্ট মালয়েশিয়ায় মারা যান তিনি। গত ৮ সেপ্টেম্বর সেলিমের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে আসে।
সেলিমের মরদেহ দাফনের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন তার স্বজনরা। কিন্তু মরদেহ দেশে পাঠাতে প্রতিবেশী করম আলীর খরচ হওয়া তিন লাখ টাকা পরিশোধের পর মরদেহ দাফন করতে বলেন তিনি।
এলাকাবাসী জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে প্রতিবেশী করম আলী ফোন করে টাকা পরিশোধের পর মরদেহ দাফন করতে বলেন। সেলিমের পরিবার খরচের টাকা যোগাড় করতে না পারায় তার মরদেহ দাফন করা সম্ভব হয়নি।
তারা আরও জানান, বাড়ির আঙিনায় টানা পাঁচ দিন পড়ে থেকে মরদেহের বিভিন্ন অংশে পচন ধরতে শুরু করেছে। পরে ১২ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে এলাকায় মিছিল করেছেন স্থানীয়রা।
তবে দাফনে বাধা দেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে করম আলীর স্ত্রী আলেয়া বেগম জানান, লাশের পরিবহন খরচ বাবদ তার স্বামী তিন লাখ টাকা দিয়েছেন। তিনি টাকা চেয়েছেন। কিন্তু লাশ দাফনে বাধা দেননি।
টিঘর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য রইস মিয়া জানান, খবর পেয়ে রাতে টিঘর গ্রামে সেলিম মিয়ার বাড়িতে যায় পুলিশ। ১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার বিকেলের মধ্যে পুলিশ লাশ দাফন করার নির্দেশও দেন।
জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আগে পুলিশকে জানানো হয়নি। গতকাল পুলিশ গিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দিয়েছে। আজ লাশ দাফন হবে। প্রয়োজনে এ ব্যাপারে মামলা হবে।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: