শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

নামাজের মধ্যে যে কাজগুলো ফরজ



নামাজের মধ্যে যে কাজগুলো ফরজ

আল্লাহ তাআলাকে স্মরণ করার অন্যতম মাধ্যম হলো নামাজ। এটা ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ ও দ্বিতীয় রুকনও বটে। আল্লাহ তাআলা প্রাপ্ত বয়স্ক, সুস্থ্য মস্তিষ্কসম্পন্ন মুসলিম পুরুষ ও মহিলার জন্য নামাজকে ফরজ করেছেন।

নামাজের মধ্যে আবশ্যক পালনীয় কিছু কাজ রয়েছে। নামাজকে সুন্দরভাবে আদায় করতে হলে এগুলো জানা আবশ্যক। নামাজ আদায়ের সুবিধার্থে আবশ্যক করণীয় কাজগুলো ধারাবাহিকভাবে তুলে ধরা হলো-

তাকবিরে তাহরিমা
আল্লাহর মহত্ত্ব প্রকাশ পায় এমন শব্দ ‘(اَللهُ اَكْبَر) আল্লাহু আকবার’ দ্বারা নামাজ আরম্ভ করা ফরজ। আর এ তাকবির বলাকেই তাকবিরে তাহরিমা বলা হয়।
তাকবিরে তাহরিমার দ্বারা নামাজ শুরু সঙ্গে সঙ্গে দুনিয়ার অন্যান্য কাজ নামাজির জন্য নিষিদ্ধ হয়ে যায়। আল্লাহ বলেন, তোমার প্রতিপালকের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা কর। (সুরা মুদদাসসির : আয়াত ৩)

কিয়াম করা
নামাজের উদ্দেশ্যে সোজা হয়ে দাঁড়ানো ফরজ। কোনো সমস্যা ছাড়া বসে বসে ফরজ নামাজ আদায় করা যাবে না। আল্লাহ বলেন, তোমরা আল্লাহর উদ্দেশ্যে বিনীতভাবে দাঁড়াবে। (সুরা বাক্বারা : আয়াত ২৩৮)

কিরাআত পড়া
সুরা ফাতিহার পর সুরা মিলানো ফরজ। ফরজ নামাজের প্রথম দুই রাকাআতে এবং ওয়াজিব, সুন্নাত ও নফল নামাজের প্রত্যেক রাকাআতে সুরা ফাতিহার পর সুরা মিলানোই ফরজ। আল্লাহ বলেন, তোমরা কুরআন থেকে যতটুকু সহজ হয়, ততটুকু পড়। (সুরা মুযযাম্মিল : আয়াত ২০)

রুকু করা
প্রত্যেক রাকাআতে একবার রুকু করা ফরজ। রুকু আদায় ব্যতীত নামাজ পড়লে তা আদায় হবে না। আর বসে নামাজ পড়ার সময়ও রুকুর সময় সামনের দিকে ঝুঁকতে হবে; যেন কপাল হাঁটু বরাবর গিয়ে পৌঁছে। আল্লাহ বলেন, ‘তোমরা রুকুকারীদের সঙ্গে রুকু কর। (সুরা বাক্বারা : আয়াত ৪৩)

রুকু হলো- দাঁড়িয়ে সুরা ফাতিহা ও সুরা মিলানোর পর তাকবিরে বলে অর্থনমিত হওয়া। যেন দু`হাত হাঁটু পর্যন্ত পৌছে যায়। মাথা এবং পিঠ এক সমান্তরালে চলে আসে।

সিজদা করা
নামাজের প্রত্যেক রাকাআতে দু`টি সিজদা আদায় করা ফরজ। সিজদার সময় নাক ও কপাল মাটিতে রাখা। উভয় হাত কাঁধ ও কানের মধ্যবর্তী সন্থানে থাকবে। আল্লাহ বলেন, হে ঈমানদারগণ! তোমরা রুকু কর এবং সিজদা কর। (সুরা হজ : আয়াত ৭৭)

শেষ বৈঠক
নামাজের শেষ বৈঠকে বসা। নামাজের শেষ রাকাআতে সিজদার পর তাশাহহুদ পড়তে যতটুকু সময় লাগে ততটুকু পরিমাণ সময় বসা (অবস্থান করা) ফরজ। তাশাহহুদ পড়া দরূদ পড়া এবং  দোয়া পড়া।

সালামের মাধ্যমে নামাজ সমাপ্ত করা
তাশাহহুদ পড়ার পর ‘(اَلسَّلَامُ عَلَيْكُمْ وَ رَحْمَةُ اللهَ) আস-সালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ’ বলে সালাম ফিরানোর মাধ্যমে নামাজ সম্পন্ন করা ফরজ।

পরিশেষে…
উল্লেখিত কাজগুলো নামাজের মধ্যে আদায় করা ফরজ। প্রত্যেক মুমিন মুসলমানের উচিত, নামাজের ভিতরের ফরজগুলো যথাযথভাবে আদায় করা।

যেহেতু নামাজ মুমিনের জন্য মিরাজ স্বরূপ। তাই আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে নামাজের ফরজ রুকনগুলো যথাযথভাবে আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: