বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
যেভাবে আরবদের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা হয়ে উঠেছেন এরদোগান  » «   উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নার্সকে মেরে ফেলল বখাটে  » «   সড়কে নামাজ ঠেকাতে রাস্তায় বসে বিজেপির মন্ত্র পাঠ  » «   খুনির সঙ্গে রিফাতের স্ত্রী মিন্নির ‘সম্পর্কের তথ্য’ ফাঁস  » «   প্রাথমিকের শিক্ষক বদলির নীতিমালায় ফের পরিবর্তন।  » «   রিফাতের হত্যাকারীদের গ্রেফতারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর  » «   মুসলিম যুবককে হত্যার ঘটনায় উত্তাল ভারত, বিচারের আশ্বাস দিলেন মোদী  » «   টিম ইন্ডিয়ার কমলা জার্সি নিয়ে চলছে রাজনীতি  » «   ভারতীয় এমপির যে ভাষণে উত্তাল স্যোশাল মিডিয়া  » «   দুই প্রকৌশলীকে পেটালেন আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ নেতারা  » «   সিলেটে বিদেশী মদসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার  » «   রেল লাইন সংস্কারের দাবিতে শাহবাগে সিলেটি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধবন  » «   আসামে নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়লেন আরও এক লাখ  » «   বিশ্বনাথে ডাকাতের সঙ্গে গোলাগুলি, ৫ পুলিশ গুলিবিদ্ধ  » «   প্রাথমিকে চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের জন্য সুখবর  » «  

নবীগঞ্জে নেই কৃষকের ঈদ আনন্দ, ব্যবসায়ীরাও হতাশ



নিউজ ডেস্ক:: নবীগঞ্জ উপজেলাজুড়ে কৃষকের মাঝে নেই ঈদ আনন্দ। ধানের মূল্য কম হওয়ায় উপজেলার কৃষক পরিবারের ঈদ আনন্দ ম্লান হয়ে গেছে। ঈদ দুয়ারে কড়া নাড়লেও ঈদের আনন্দ যেন তাদের কাছে বিষাদে রূপ নিয়েছে।

এদিকে কৃষক পরিবারে ঈদ না থাকার চাপ পড়েছে ঈদ বাজারেও। ক্রেতাশূন্য ঈদ বাজারে মাথায় হাত পড়েছে ব্যবসায়ীদেরও। বিভিন্ন ধরণের জিনিস আর বাহারি সব কাপড়ের পসরা সাজিয়ে বসলেও কাঙ্কিত ক্রেতার দেখা মিলছে না।

নবীগঞ্জ শহরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতাশূন্য বিতাণী বিতানগুলো। ক্রেতার দেখা না মেলায় বসে রয়েছে কর্মচারিরা। শুধু কৃষক পরিবারই নয়, ভালো বেচা-বিক্রি না হওয়ায় ঈদ নিয়ে বিষাদে পুড়ছেন ব্যবসায়ীরাও। কর্মচারিদের বেতন-বোনাস দেয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছে ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন- উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারগুলোতে ঈদে জামজমাট বিকি-কিনি হলেও এ বছরের দৃশ্য অন্যরকম। ঈদের বর্ণিল সাজে দোকানগুলো সাজলেও ক্রেতা কম। কারণ একটাই ধানের মূল্য কম।

নবীগঞ্জ শহরের ব্যবসায়ী মঈনুল হক জানান, ঈদ উপলক্ষে ভালো বিক্রির আশায় অনেক কাপড় দোকানে তুলেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত তিন ভাগের এক ভাগও বিক্রি করতে পারিনি।’ তিনি বলেন- ‘লাভ তো দূরের কথা, কর্মচারিদের বেতন-বোনাস কি করে দেব তা বুঝে উঠতে পারছি না। এ অবস্থা আমাদের বিশাল লোকসান গুণতে হবে।’

শেরপুর রোডের ব্যবসায়ী তৌফিক ইসলাম জানান- ‘গত বছরের তুলনায় এ বছর অনেক কম বিকি-কিনি হচ্ছে। কাপড় ব্যবসায়ীরা আশায় থাকেন ঈদে ভালো বিক্রি করার। কিন্তু এই ঈদ যেন কাপড় ব্যবসায়ীদের জন্য হতাশা নিয়ে এসেছে।

এ ব্যাপারে উপজেলার বাউশা গ্রামের আজাদ মিয়া জানান- এ বছর ধানের বাম্পার ফলন হয়েছিলো। ভেবেছিলাম ঈদে ছেলে মেয়েদের ভালো কাপড়-চোপড় কিনে দেব। কিন্তু আমাদের সেই আনন্দ মলিন করে দিয়েছে ধানের কম দাম।’

তিনি বলেন- ভালো কাপড় কেনাতো দূরের কথা পুরাতন কাপড়ও ছেলে মেয়েদের দিতে পারব কি-না জানি না।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: