সোমবার, ১৮ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষকের কুকীর্তি ফাঁস!  » «   মায়ের পছন্দ ব্রাজিল, সমর্থক জয়ও  » «   পুলিশ কমিশনার‘ঈদগাহে ছাতা ও জায়নামাজ ছাড়া অন্য কিছু নয়’  » «   ‘আমিও প্রেগনেন্ট হয়েছি, অনেকবার অ্যাবরশনও করিয়েছি’  » «   গুগল পেজ ইরর দেখায় কেন?  » «   রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, সিইসি কে কোথায় ঈদ করছেন  » «   ইসি সচিব : তিন সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা  » «   বিপজ্জনক রূপ নিয়েছে মনু ও ধলাই  » «   বিশ্বকাপের একদিন আগে বরখাস্ত স্পেন কোচ!  » «   ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে ৭ কি.মি. যানজট  » «   শারীরিক সম্পর্ক নিয়ে আলিয়ার সোজা কথা!  » «   যে কারণে ইউনাইটেড হাসপাতালে যেতে চান খালেদা  » «   খালেদা চিকিৎসা চান নাকি রাজনীতি করছেন : সেতুমন্ত্রী  » «   যানজটের কথা শুনিনি, কেউ অভিযোগও করেননি  » «   ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান ‘বকশিসের নামে নীরব চাঁদাবাজি নেই’  » «  

দেখে ফেলায় ফের ধর্ষণ



নিউজ ডেস্ক:: রাজশাহীর পুঠিয়ায় কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগে দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে ও বুধবার ভোরে আলাদা অভিযানে উপজেলার জামিরা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতাররা হলেন- জামিরা এলাকার মাহবুর রহমানের ছেলে রনি (৩০) ও আরমান আলীর ছেলে আব্দুর রহিম (৪৫)। নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরীর মামলায় বুধবার দুপুরের পর তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়।
ওই কিশোরীকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ওসিসিতে নেয়া হয়েছে। এ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ।
পুঠিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সায়েদুর রহমার ভুঁইয়া বলেন, অভিযোগ পেয়ে রাতেই ধর্ষক আব্দুর রহিমকে গ্রেফতার করা হয়। পরে বুধবার সকালে গ্রেফতার করা হয় আরেক ধর্ষক রনিকে। পরে ওই কিশোরীর দায়ের করা মামলায় তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলাহাজতে পাঠানো হয়।
অভিযোগের বরাত দিয়ে ওসি বলেন, নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভনে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণ করে আসছিলেন রনি। এলাকার একটি আখখেতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রনি ওই কিশোরীকে আরেক দফা ধর্ষণ করেন।
এ সময় দেখে ফেলেন অভিযুক্ত আব্দুর রহিন। ভয়ভীতি দেখিয়ে তিনিও ধর্ষণ করেন ওই কিশোরীকে। পরে বাড়ি ফিরে গিয়ে এ ঘটনা পরিবারকে জানায় ওই কিশোরী। এ নিয়ে রাতেই থানায় মামলা হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: