রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
চ্যারিটেবল মামলায় দণ্ডের বিরুদ্ধে খালেদার আপিল  » «   সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলা; শিশু ও নারীসহ নিহত ৪৩  » «   থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা  » «   দু’দিনের মধ্যেই খাশোগি হত্যার পরিপূর্ণ তদন্ত রিপোর্ট : ট্রাম্প  » «   বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন তারেক  » «   বাড়িতে বাবার লাশ, পিএসসি পরীক্ষা দিতে গেল মেয়ে  » «   প্রবাসী স্ত্রীকে লাইভে রেখে সিলেটের স্বামীর আত্মহত্যা!  » «   খাশোগি হত্যা: যুক্তরাষ্ট্র-সৌদির নীল নকশা ও তুরস্কের উদ্দেশ্য  » «   দুই নম্বরি কেন ১০ নম্বরি হলেও ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে থাকবে: ড. কামাল  » «   বোরকার বিরুদ্ধে সৌদি নারীদের অভিনব প্রতিবাদ  » «   আজ থেকে শুরু হচ্ছে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষা  » «   সিডরে নিখোঁজ শহিদুল বাড়ি ফিরলেন ১১ বছর পর!  » «   ভাওতাবাজির জন্য সরকারকে গোল্ড মেডেল দেওয়া উচিৎ: ড. কামাল  » «   দিল্লির লাল কেল্লা দখলের হুমকি পাকিস্তানের!  » «   সত্য বলায় এসকে সিনহাকে জোর করে বিদেশ পাঠানো হয়েছে: মির্জা ফখরুল  » «  

থেরেসা মে’র ‘প্রেমের দূত’ ছিলেন বেনজির ভুট্টো!



অনলাইন ডেস্ক:: ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র সহপাঠী ছিলেন পাকিস্তানের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টো। দু’জনের মধ্যে সে সময় গড়ে উঠেছিল চমৎকার সম্পর্ক। সেই সুবাদে বেনজির ভুট্টো থেরেসার ‘প্রেমের দূত’ বা ‘ঘটকের’ ভূমিকাও পালন করেছিলেন। ২১ জুন বেনজির ভুট্টোর ৬৪তম জন্মবার্ষিকীতে এ খবর প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মেইল।

১৯৭৬ সালে অক্সফোর্ডের ছাত্রী ছিলেন বেনজির ভুট্টো। তার সঙ্গেই পড়তেন থেরেসা মে। সে সময় অক্সফোর্ডের ছাত্রনেতা ছিলেন ফিলিপ মে। তিনি ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট ও কনজারভেটিভ পার্টির উদীয়মান নেতা। তাকেই পছন্দ করেছিলেন থেরেসা। মনের কথা বান্ধবী বেনজিরকে খুলে বলেন থেরেসা।

বেনজির সোজা গিয়ে ফিলিপের কাছে থেরেসার প্রসঙ্গ তোলেন। প্রস্তাব পেয়ে দ্বিতীয়বার ভাবেননি থেরেসার থেকে দুই বছরের ছোট ফিলিপ। শুরু হলো শতাব্দী প্রাচীন অক্সফোর্ডের রোমান্টিক ইতিহাসের এক পর্ব। ১৯৮০ সালে বিয়ে করেন তারা। সেই শুরু থেকে দীর্ঘ সময় পার করে দু’জনই এখনও সুখী দাম্পত্য জীবন কাটাচ্ছেন।

অন্যদিকে, পড়া শেষে লন্ডন থেকে করাচিতে ফিরেছিলেন বেনজির ভুট্টো। বাবার মৃত্যুর পর রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন তিনি। ১৯৯৩ সালে হন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী। পরে অবশ্য ক্ষমতা হারিয়ে দেশ ছেড়েছিলেন। আট বছরের স্বেচ্ছা নির্বাসন কাটিয়ে ২০০৭-এর অক্টোবরে বেনজির পাকিস্তানে ফেরেন। ওই বছরেরই ২৭ ডিসেম্বর রাওয়ালপিন্ডির এক নির্বাচনী সমাবেশ শেষে সভাস্থল ত্যাগ করার সময় এক হামলায় নিহত হন বেনজির ভুট্টো।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: