শুক্রবার, ২২ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পাবনায় ছাত্রদলের কমিটি বাতিল এবং যোগ্য ও মেধাবীদের নিয়ে নতুন কমিটির দাবিতে বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দের পদত্যাগ  » «   পবিত্র হজকে রাজনীতির হাতিয়ার বানিয়েছে সৌদি  » «   চুয়াডাঙ্গায় সাপের কামড়ে বৃদ্ধার মৃত্যু  » «   সিটি নির্বাচন ১৭ প্রার্থীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে বিএনপি  » «   বৃদ্ধ মাকে মারধর, যে পরিণাম হল সন্তানের  » «   এমপিপুত্র শাবাবকে ‘শনাক্তে’ পুলিশের হাতে সিসিটিভি ফুটেজ  » «   জেনে নিন শাওয়াল মাসের ছয়টি রোজার ফজিলত  » «   মৃত্যুভয়ে ১১ তলা পাইপ বেয়ে নামে শিশুটি  » «   বিএনপির কর্মীরা এখন ঢাকায় রিকশা চালায় : ফখরুল  » «   দীপিকা-রণবীরের বিয়ের দিনক্ষণ ফাঁস!  » «   জনপ্রিয়তা বেড়েছে বিটিভির  » «   দিনদুপুরে পার্কে গণধর্ষণ, সেনাবাহিনী ঘিরে ফেলে পার্ক এলাকা  » «   ফের দক্ষিণের ১৫ রুটে বাস চলাচল বন্ধ  » «   স্বামী-সন্তানের স্বীকৃতির দাবিতে প্রবাসী স্ত্রীর অনশন  » «   সাবেক প্রেমিকা কোপাল বর্তমান প্রেমিকাকে!  » «  

তিন বৃটিশ কিশোরী আইএসে: স্তম্ভিত বৃটেনবাসী



AE2897B0-8C87-4528-85AD-2838F332EAC5_cx38_cy4_cw55_w987_r1_s_r1আন্তর্জাতিক ডেস্ক: তিন বৃটিশ কিশোরীর আইএসে যোগ দিতে সিরিয়ায় যাওয়া এবং তাদের একজনের নিহত হওয়ার খবরে স্তম্ভিত বৃটেনবাসী। বৃটিশদের মধ্যে থেকে এ পর্যন্ত আটশয়েরও বেশী আইসিসে যোগ দিয়েছে বলে জানা গেছে। খবর-ভয়েজ অব আমেরিকা।
নিহত কিশোরী খাদিজা সুলতানা বাংলাদেশী বংশদ্ভুত। তার বয়স ১৭। তার অপর দুই সঙ্গী আমিরা ও শামীমা বেগমের বয়স মাত্র ১৫।
খাদিজার পরিবারের আইনজীবী তাসনিম আকুঞ্জি বলেছেন, তিনি মনে করেন কয়েক সপ্তাহ আগে খাদিজা মারা গেছেন।
এদিকে বৃটিশ পররাষ্ট্র দপ্তর বলেছে, তারা এখনও তার মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত নয়। পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিনের এই তিন কিশোরী এ লেভেল পড়া ফেলে আইসিস যোদ্ধাদের বিয়ে করে তাদের সহযোদ্ধা হওয়ার পরিকল্পনাতেই বৃটেন থেকে পালায়। সেখানে তারা বিয়েও করেছে বলে ধারণা করা হয়। এর মধ্যে নিহত খাদিজার স্বামী সোমালি বংশদ্ভুত একজন মার্কিন। তিনি গত বছরের শেষের দিকে নিহত হন।
লন্ডন ভিত্তিক আইটিভি অবশ্য দাবি করেছে যে, নিহত খাদিজা সুলতানা বিপথগামী হওয়ার ভুল বুঝতে পেরে তুরস্ক হয়ে পুনরায় বৃটেনে ফিরতে তার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে চলছিল। খাদিজার সঙ্গে তার বড় বোন হালিমার কথা হয়। সে তখন বলছিল, আমার ভালো লাগছে না, বড় ভয় করছে। মনে হয় আর কখনও ফিরতে পারবো না।
উল্লেখ্য যে, এই তিন কিশোরীকে ফিরিয়ে আনতে তাদের প্রত্যেকের পরিবার ইস্তানবুলেও ছুটে গিয়েছিল।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: