শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

তাজমহল দেখতে অগ্রিম টিকিট কাটা যাবে ইন্টারনেটে



15. taj mahalতথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক::
তাজমহল ও হুমায়ুনের সমাধি দেখার জন্য এবার টিকিট মিলবে ইণ্টারনেটে। দেশের পাশাপাশি বিশ্ববাসীর কাছে ভারতের পর্যটন শিল্পকে তুলে ধরতে শুক্রবার ‘ই-টিকিট’ পরিষেবার উদ্বোধন করলেন ভারতের কেন্দ্রীয় পর্যটনমন্ত্রী মহেশ শর্মা। পর্যটকদের সাহায্যে চালু করলেন হেল্প লাইন নম্বরও। পর্যটন শিল্পকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে, পর্যটকদের নিরাপদ পরিবেশ দিতে এটা একটা সূচনা বলেই জানালেন মন্ত্রী। তার স্পষ্ট কথা, যে কোনও জায়গা নোংরা করা, কাজকর্মে ঢিলেমি এইসব আর চলবে না। ‘ভারতে সব চলতা হ্যায়’-এখন থেকে আর কোনও ভাবেই হবে না।

মহেশ শর্মা পর্যটন মন্ত্রকের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই ভারতে আসা বিদেশি পর্যটকদের নিরাপত্তায় জোর দিয়েছেন। চালু করেছেন টোল ফ্রি হেল্পলাইন নম্বর। জোর দিয়েছেন পর্যটনস্হলের নিরাপত্তাতেও। সেই কর্মসূচিরই একটি পদক্ষেপ তাজমহল ও হুমায়ুন সমাধির জন্য ই-টিকিট। জানা গিয়েছে, ৯০ দিন আগে থেকে টিকিট কাটা যাবে। আপাতত হিন্দি ও ইংরেজিতে ওয়েব সাইটটিতে তথ্য ও পরিষেবা দেওয়া হচেছ। দ্রুত সাইটটিতে জার্মান, ফ্রেঞ্চ ভাষারও সুবিধা পাওয়া যাবে। টিকিট কাটা যাবে ডেভিড, ক্রেডিট কার্ড ও নেট ব্যাঙ্কিং-এর মাধ্যমে। বিদেশি , দেশীয় ও সার্ক তালিকাভুক্ত দেশ পর্যটকদের তিনটি বিভাগে ভাগ করে তিন ধরনের ই-টিকিটের ব্যবস্হা করা হয়েছে।দিল্লির বিভিন্ন স্মৃতি সৌধ নিয়ে ইতিহাস সম্বলিত একটি বইও প্রকাশ করেছেন পর্যটনমন্ত্রী মহেশ শর্মা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: