শুক্রবার, ২২ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পাবনায় ছাত্রদলের কমিটি বাতিল এবং যোগ্য ও মেধাবীদের নিয়ে নতুন কমিটির দাবিতে বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দের পদত্যাগ  » «   পবিত্র হজকে রাজনীতির হাতিয়ার বানিয়েছে সৌদি  » «   চুয়াডাঙ্গায় সাপের কামড়ে বৃদ্ধার মৃত্যু  » «   সিটি নির্বাচন ১৭ প্রার্থীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে বিএনপি  » «   বৃদ্ধ মাকে মারধর, যে পরিণাম হল সন্তানের  » «   এমপিপুত্র শাবাবকে ‘শনাক্তে’ পুলিশের হাতে সিসিটিভি ফুটেজ  » «   জেনে নিন শাওয়াল মাসের ছয়টি রোজার ফজিলত  » «   মৃত্যুভয়ে ১১ তলা পাইপ বেয়ে নামে শিশুটি  » «   বিএনপির কর্মীরা এখন ঢাকায় রিকশা চালায় : ফখরুল  » «   দীপিকা-রণবীরের বিয়ের দিনক্ষণ ফাঁস!  » «   জনপ্রিয়তা বেড়েছে বিটিভির  » «   দিনদুপুরে পার্কে গণধর্ষণ, সেনাবাহিনী ঘিরে ফেলে পার্ক এলাকা  » «   ফের দক্ষিণের ১৫ রুটে বাস চলাচল বন্ধ  » «   স্বামী-সন্তানের স্বীকৃতির দাবিতে প্রবাসী স্ত্রীর অনশন  » «   সাবেক প্রেমিকা কোপাল বর্তমান প্রেমিকাকে!  » «  

ঢামেক হাসপাতাল‘সরকারী কাজ এমনই হয়!’



ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সরকারী এ্যাম্বুলেন্স আছে কিন্তু চালক নেই। চালক সংকটে রোগীদের সঠিক সেবা দিতে পারছে না বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের যানবাহন শাখার সুপার ভাইজার মোঃ নাছির উদ্দিন নান্নু।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকা মেডিকেল ইমারজেন্সি বিভাগের সামনে কোন সরকারী এ্যাম্বুলেন্স দাঁড়ানো নেই কিন্তু প্রাইভেট এ্যাম্বুলেন্সের অভাব নেই। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, এক প্রাইভেট এ্যাম্বুলেন্সের মালিক বলেন, সরকারী এ্যাম্বুলেন্স কোথাও যায় না। আর যদি যায় তাহলে ভাড়া আমাদের থেকে কম নেয় না। ঐ ভাড়ার চাট শুধু লাগানো থাকে কাজের বেলায় কিছুই না।

ঢাকা মেডিকেলের ইমারজেন্সি বিভাগের সামনে দাঁড়িয়ে দেখা যায়, সরকারী এ্যাম্বুলেন্স থেকে রোগী নামার পর ভাড়া আদায় করছে। সরকারী ভাড়া থেকে তিন গুণ বেশী।

এক রোগীর ছেলে ইয়াসিন শিকদার  জানান, সরকারী এ্যাম্বুলেন্স নাকি তা জানি না। আমার ইমারজেন্সি এ্যাম্বুলেন্স দরকার ছিল। তাই আমি চলে এসেছি। সরকারি না বেসরকারী আমি তা বলতেও পারবো না।

হাসপাতাল থেকে বের হওয়া এক রোগীর জন্য এ্যাম্বুলেন্স খোঁজ করছিলেন রোগীর আত্মীয়রা। সেখানে দেখা যায় বেসরকারী এ্যাম্বুলেন্সের চালকরা তার দিকে দৌড়ে আসে এবং রোগীকে বেসরকারী এ্যাম্বুলেন্সে করে নিয়ে যাচ্ছে। তার কাছে সরকারী এ্যাম্বুলেন্সের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঐ এ্যাম্বুলেন্স আসতে আসতে আমার রোগীর বারোটা বেজে যাবে।

মেডিকেলের সামনে সরকারী এ্যাম্বুলেন্সের সাথে যোগাযোগ করার জন্য যে নম্বর দেওয়া আছে, সেই নম্বরে একাধিক বার ফোন দিলেও কেউ সেই ফোন ধরে নি। ফোন না ধরার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট তথ্য দাতার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সরকারী কাজ এমনই হয়, আপনি প্রাইভেট এ্যাম্বুলেন্স নেন।’

ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালের জন্য সরকারী এ্যাম্বুলেন্স আছে ৬টি। তার মধ্যে ৪টি এ্যাম্বুলেন্সই নষ্ট। আর ২টি এ্যাম্বুলেন্স সেবায় বাহিরে আছে বলে জানান যানবাহন শাখার সুপারভাইজার।

তিনি বলেন, আমারা ২০টি এ্যাম্বুলেন্স আর ১০ জন চালকের জন্য আবেদন করেছি মন্ত্রণালয়। আগামী বছরের মধ্যে আশা করছি সরকার আমাদের এই চাহিদা পূরণ করবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: