মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
কমলগঞ্জে সংখ্যালঘুর বাড়িতে হামলা: পিইসি পরীক্ষার্থী সহ আহত ৩  » «   নাতির সঙ্গে পিএসপি পরীক্ষা দিচ্ছেন নানি  » «   তবু চলছে সৌদি হামলা; আরো ১২ ইয়েমেনি নিহত  » «   হাইকোর্টের রুল জারি মুক্তি বার্তায় নাম থেকেও, তালিকায় অন্তর্ভুক্তি নয় কেন?  » «   ২০ কোটি টাকায় ‘ভার্জিনিটি’ নিলামে বেচলেন যে মডেল  » «   ওসমানীনগর উপজেলা স্বেচ্চাসেবক দলের মত বিনিময়  » «   ‘সংবিধান অনুসারেই জাতীয় নির্বাচন করতে হবে’  » «   টিকল না ১০ নম্বর সম্পর্কও? সুস্মিতার বয়ফ্রেন্ডের তালিকা…  » «   জাতীয় পতাকা উত্তোলন ছাড়াই চলছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়  » «   বিয়ের রাতে পালালেন সাবিলা নূর!  » «   নিজেকে আরো সুন্দর করে তুলতে ব্যবহার করুন এই ৭ তেল  » «   ‘দু:শাসনের জন্য আ’লীগকে জবাবদিহি করতে হবে’  » «   হাসপাতাল ও হোটেলে র‌্যাবের অভিযান : জরিমানা ২২ লাখ টাকা  » «   জঙ্গি সংগঠনের কার্যক্রম ঠেকাতে ইজতেমায় পুলিশের কড়া নজরদারি থাকবে  » «   ঢাকা সেনানিবাসে প্রধানন্ত্রী‘বাঙালি জাতিকে ধ্বংস করতেই জাতির পিতাকে হত্যা’  » «  

ডিজিটাল পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের কাগজ যাচাই করা হবে



27.simতথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক::
বর্তমানে একাধিক সিম কার্ড দিয়ে বিভিন্ন অপরাধ সংগঠিত হয়। তাই বেআইনী নিবন্ধিত সিম কার্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ডিজিটাল পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে।

নিরাপত্তা উদ্বেগের করনে বিটিআরসি এবং মোবাইল ফোন অপারেটর একসাথে কাজ শুরু করে দিয়েছে ইতোমধ্যে।

বিটিআরসির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের ডাটাবেস সম্বলিত সার্ভার আগামি নব্বই দিনের মধ্যে উন্নত করা হবে।

তিনি আরও বলেন সার্ভারটির কার্যক্রম তৃতীয় পক্ষের কোন প্রতিষ্ঠান দ্বারা চালান হবে। একবার সিস্টেমটি প্রয়োগ করার পর একটি টেক্সট পাঠানোর মাধ্যমে গ্রাহকের ডকুমেন্টের সত্যতা সেকেন্ডের মধ্যেই যাচাই করা যাবে।

এই পদ্ধতিতে গ্রাহকের জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম ও জন্ম তারিখের ভিত্তিতে সিমের সাথে দেয়া ডকুমেন্টের তথ্য মিলিয়ে দেখা হবে। না মিললে সিম কার্ডটি নেটওয়ার্ক সাপোর্ট করবে না।

ডকুমেন্ট যাচাইয়ে নিজ নিজ অপারেটরের প্রতিবারের জন্য দিতে হবে তিন টাকা।

নিয়ম অনুযায়ী, আঠার বছরের উপরে সকল নাগরিককে সিম কার্ড কেনার সময় জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি দিতে হবে। আঠার বছরের নিচে হলে তাদের অভিভাবকের জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি লাগবে।

রাজধানীর বিভিন্ন আউটলেট ঘুরে দেখা গেছে গ্রামীণ ফোন, বাংলালিংক, রবি, এয়ারটেলসহ বিভিন্ন অপারেটররা প্রি-আক্টিভেটেড সিম কার্ড প্রদর্শন এবং বিক্রি করছে।

পল্টনে এক খুচরা পর্যায়ের বিক্রেতা হাসানুল ইলাহি বলেন, ডকুমেন্ট কোন জরুরি বিষয় না। কেউ চাইলেই সিমকার্ড পেতে পারে। এতে কোন সমস্যা নাই।

এর আগে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা নিরাপত্তা উদ্বেগ প্রকাশ করে, কারন দেখা যায় অনিবন্ধীকৃত সিমকার্ড দিয়ে আন্ডারওয়ার্ল্ড নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠিত করে অপরাধকারিরা।

উল্লেখ্য, এক হিসাবে জানা যায়, বাংলাদেশের ০.১৫ মিলিয়ন মোবাইল সিম কার্ড অপরাধমূলক কার্যক্রমে ব্যবহৃত হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: