সোমবার, ১৬ জুলাই ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নেদারল্যান্ডে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলকে লাল গালিচা সংবর্ধনা  » «   বাজারে অ্যাপলের নতুন ল্যাপটপ  » «   বেলকে বিক্রি করতে প্রস্তুত রিয়াল: পেরেজ  » «   চায়ের বিজ্ঞাপনে ঐন্দ্রিলা  » «   দলের হারে যাকে দায়ী করছেন ক্রোয়েশিয়ার কোচ  » «   সিরিয়ায় ইসরায়েলের রকেট হামলায় ৯ সেনা নিহত  » «   ট্রাম্প-পুতিনের বৈঠকে কি হতে যাচ্ছে?  » «   আকর্ষণীয় চোখের কৌশল  » «   ভয়ে ‘মসজিদের ওযুখানায়’ রাত কাটাচ্ছে তরুণী!  » «   রাতে দেশ ছাড়ছেন মাশরাফি  » «   বিজয় উল্লাস করতে গিয়ে ২ ফ্রান্স সমর্থকের মৃত্যু  » «   দুই মামলায় খালেদার জামিন শুনানি আজ  » «   উড়ন্ত ট্রেন আসছে এবার !  » «   পানামা পেপারসে নামচার ব্যবসায়ীকে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ  » «   বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, ধরা পরে অদ্ভুত কাণ্ড পুলিশ সদস্যের!  » «  

ডাক্তারের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ



এম শরীফ আহমেদ, ভোলা থেকে: ভোলা সদরে মোহনা ডায়াগনস্টিকে থাকা আয়া ও ডাক্তারের অবহেলায় শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (০২ সেপ্টেম্বর) রাতে ডায়াগনস্টিকে ভর্তি থাকা অবস্থায় হাসনাহেনা নামে প্রসূতির গর্ভের সন্তানের মৃত্যু হয়।

প্রসূতির পরিবারের অভিযোগে, চরপাতা কাজির হাট দৌলতখান গ্রামের হাসনাহেনা প্রসব ব্যথা নিয়ে গত রবিবার (১ অক্টোবর) দুপুর ১২:৩০ মিনিটে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স রোগীর অবস্থা খারাপ বলে উন্নত চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেন।

রুগীর সাথে থাকা স্বজনরা কর্তব্যরত ডাক্তার “সাইফুর রহমানকে” কে জানালে, তিনি আলট্রান্সোগ্রাফি করতে বলে ডায়াগনস্টিকে পাঠায় এবং বিকেলে ৪ টায় রোগীর রিপোর্ট ডায়াগনস্টিকে এসে দেখবেন বলে স্বজনদের আশ্বাস দেন।

রোগীর ভাই যানায়, বিকেলে ডাক্তার এসে রোগী দেখবেন বলেও না আসায় আমি ডায়াগনস্টিক থেকে নাম্বার নিয়ে ডাক্তারের কাছে রিপোর্ট নিয়ে যাই। সন্ধ্যার পরে ডাক্তার সাইফুর রহমান এসে রোগী ও রিপোর্ট না দেখেই চলে যায়। রোগীর স্বজনরা ডাক্তারের নাম্বার বন্ধ পেয়ে ডায়াগনস্টিকে থাকা নার্সদের কাছে রোগীর কথা জানতে চাইলে তারা বলেন, ডাক্তার তাদের সব বুঝিয়ে দিয়ে গেছেন। বাচ্চা নরমালে হবে এবং ওটি তে নিলেই ডাক্তার আসবে।

এরপর, তারা প্রসূতি হাসনাহেনা ওটি রুমে নিয়ে যায়। ওটি রুমে নিয়ে যাওয়ার দেড় ঘন্টা পরে ভিতরে থাকা প্রসূতি হাসনাহেনার চিৎকার শুনেতে পায় তার স্বজনরা। রোগীর স্বজনরা দেখেন নবাজাতক টি নাড়াচাড়া করছে না। তারা নিশ্চিত হন নবজাতক শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।

স্বজনদের অভিযোগ, ডায়াগনস্টিকের আয়াদের দিয়ে কাজ করানো হয়েছে। তারা ব্যর্থ হওয়ায় রাত ১০:১১ মিঃ ডাক্তার কে ফোন করে আনেন। ডাক্তার আসার পূর্বেই নবজাতক শিশুটির মৃত্যু হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: