মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অগ্নিঝুঁকিতে ঢাকার ৪১৬ হাসপাতাল-ক্লিনিক  » «   ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাবেন অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   ফেসবুক ‘ডিজিটাল গ্যাংস্টার’: ব্রিটিশ পার্লামেন্ট  » «   মানহানির মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন নামঞ্জুর  » «   পাকিস্তান থেকে ভারতে না গিয়ে দেশে ফিরলেন সৌদি যুবরাজ  » «   দুই বছরের মধ্যে বিলুপ্ত হবে বিএনপি!  » «   মেয়র আরিফের বিরুদ্ধে কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ, প্রতিকী আত্মহুতি  » «   আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে আজ শেষ হল বিশ্ব ইজতেমা  » «   আমিরাতের ক্রাউন প্রিন্সের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক  » «   ট্রাম্পের জরুরি অবস্থা ঘোষণার বিরুদ্ধে ১৬ অঙ্গরাজ্যের মামলা  » «   মেডিকেলের ডাস্টবিনে শিশুসহ ২৬ মানবদেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ  » «   উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় ধাপ থেকে ইভিএম: ইসি সচিব  » «   হজ পালনে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি হিজড়াদের  » «   সব বাধা উপেক্ষা করে গণশুনানি করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট  » «   অভিজিৎ হত্যা: অব্যাহতি পাচ্ছেন সাতজন, আসামি ছয়  » «  

ডাক্তারের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ



এম শরীফ আহমেদ, ভোলা থেকে: ভোলা সদরে মোহনা ডায়াগনস্টিকে থাকা আয়া ও ডাক্তারের অবহেলায় শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (০২ সেপ্টেম্বর) রাতে ডায়াগনস্টিকে ভর্তি থাকা অবস্থায় হাসনাহেনা নামে প্রসূতির গর্ভের সন্তানের মৃত্যু হয়।

প্রসূতির পরিবারের অভিযোগে, চরপাতা কাজির হাট দৌলতখান গ্রামের হাসনাহেনা প্রসব ব্যথা নিয়ে গত রবিবার (১ অক্টোবর) দুপুর ১২:৩০ মিনিটে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স রোগীর অবস্থা খারাপ বলে উন্নত চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেন।

রুগীর সাথে থাকা স্বজনরা কর্তব্যরত ডাক্তার “সাইফুর রহমানকে” কে জানালে, তিনি আলট্রান্সোগ্রাফি করতে বলে ডায়াগনস্টিকে পাঠায় এবং বিকেলে ৪ টায় রোগীর রিপোর্ট ডায়াগনস্টিকে এসে দেখবেন বলে স্বজনদের আশ্বাস দেন।

রোগীর ভাই যানায়, বিকেলে ডাক্তার এসে রোগী দেখবেন বলেও না আসায় আমি ডায়াগনস্টিক থেকে নাম্বার নিয়ে ডাক্তারের কাছে রিপোর্ট নিয়ে যাই। সন্ধ্যার পরে ডাক্তার সাইফুর রহমান এসে রোগী ও রিপোর্ট না দেখেই চলে যায়। রোগীর স্বজনরা ডাক্তারের নাম্বার বন্ধ পেয়ে ডায়াগনস্টিকে থাকা নার্সদের কাছে রোগীর কথা জানতে চাইলে তারা বলেন, ডাক্তার তাদের সব বুঝিয়ে দিয়ে গেছেন। বাচ্চা নরমালে হবে এবং ওটি তে নিলেই ডাক্তার আসবে।

এরপর, তারা প্রসূতি হাসনাহেনা ওটি রুমে নিয়ে যায়। ওটি রুমে নিয়ে যাওয়ার দেড় ঘন্টা পরে ভিতরে থাকা প্রসূতি হাসনাহেনার চিৎকার শুনেতে পায় তার স্বজনরা। রোগীর স্বজনরা দেখেন নবাজাতক টি নাড়াচাড়া করছে না। তারা নিশ্চিত হন নবজাতক শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।

স্বজনদের অভিযোগ, ডায়াগনস্টিকের আয়াদের দিয়ে কাজ করানো হয়েছে। তারা ব্যর্থ হওয়ায় রাত ১০:১১ মিঃ ডাক্তার কে ফোন করে আনেন। ডাক্তার আসার পূর্বেই নবজাতক শিশুটির মৃত্যু হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: