রবিবার, ২০ মে ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লজ্জায় মানুষ না খেয়ে থাকার কথা বলতে পারে না —————————- : মোমিন মেহেদী  » «   রাতে মোবাইল ব্যবহার করলে হয়ে যাবেন অন্ধ!  » «   ৬ মামলার আসামি ইয়াবাসহ গ্রেফতার  » «   সৌন্দর্যের ৫ গোপন রহস্য!  » «   পরকীয়া প্রেমিকসহ চেয়ারম্যান-কন্যা আটক!  » «   হাত-পা বেঁধে আ’লীগ নেতার বাড়িতে ডাকাতি  » «   ছবি আঁকলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   গণভবনে প্রধানমন্ত্রী‘মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান কিন্তু চলছে’  » «   তাসপিয়া হত্যা মামলার আসামি আদনানের বাবার বক্তব্য!  » «   রাজকীয় বিয়েতে রাজকীয় সাজে ছিলেন প্রিয়াঙ্কাও  » «   যে কারণে বাদ ইমরুল-তাসকিন-সোহান  » «   সাইবার অপরাধ : তাৎক্ষণিক বিচার চান অধিকাংশ ভুক্তভোগী  » «   নয়াপল্টনে রিজভী‘কাদেরের বক্তব্য একতরফা নির্বাচনেরই ইঙ্গিতবহ’  » «   রাজীবের হাত বিচ্ছিন্ন : দুই বাসচালকের জামিন নামঞ্জুর  » «   এভারেস্টের চূড়ায় ১৬ বছরের কিশোরী!  » «  

ডাক্তারের অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ



এম শরীফ আহমেদ, ভোলা থেকে: ভোলা সদরে মোহনা ডায়াগনস্টিকে থাকা আয়া ও ডাক্তারের অবহেলায় শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (০২ সেপ্টেম্বর) রাতে ডায়াগনস্টিকে ভর্তি থাকা অবস্থায় হাসনাহেনা নামে প্রসূতির গর্ভের সন্তানের মৃত্যু হয়।

প্রসূতির পরিবারের অভিযোগে, চরপাতা কাজির হাট দৌলতখান গ্রামের হাসনাহেনা প্রসব ব্যথা নিয়ে গত রবিবার (১ অক্টোবর) দুপুর ১২:৩০ মিনিটে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স রোগীর অবস্থা খারাপ বলে উন্নত চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেন।

রুগীর সাথে থাকা স্বজনরা কর্তব্যরত ডাক্তার “সাইফুর রহমানকে” কে জানালে, তিনি আলট্রান্সোগ্রাফি করতে বলে ডায়াগনস্টিকে পাঠায় এবং বিকেলে ৪ টায় রোগীর রিপোর্ট ডায়াগনস্টিকে এসে দেখবেন বলে স্বজনদের আশ্বাস দেন।

রোগীর ভাই যানায়, বিকেলে ডাক্তার এসে রোগী দেখবেন বলেও না আসায় আমি ডায়াগনস্টিক থেকে নাম্বার নিয়ে ডাক্তারের কাছে রিপোর্ট নিয়ে যাই। সন্ধ্যার পরে ডাক্তার সাইফুর রহমান এসে রোগী ও রিপোর্ট না দেখেই চলে যায়। রোগীর স্বজনরা ডাক্তারের নাম্বার বন্ধ পেয়ে ডায়াগনস্টিকে থাকা নার্সদের কাছে রোগীর কথা জানতে চাইলে তারা বলেন, ডাক্তার তাদের সব বুঝিয়ে দিয়ে গেছেন। বাচ্চা নরমালে হবে এবং ওটি তে নিলেই ডাক্তার আসবে।

এরপর, তারা প্রসূতি হাসনাহেনা ওটি রুমে নিয়ে যায়। ওটি রুমে নিয়ে যাওয়ার দেড় ঘন্টা পরে ভিতরে থাকা প্রসূতি হাসনাহেনার চিৎকার শুনেতে পায় তার স্বজনরা। রোগীর স্বজনরা দেখেন নবাজাতক টি নাড়াচাড়া করছে না। তারা নিশ্চিত হন নবজাতক শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।

স্বজনদের অভিযোগ, ডায়াগনস্টিকের আয়াদের দিয়ে কাজ করানো হয়েছে। তারা ব্যর্থ হওয়ায় রাত ১০:১১ মিঃ ডাক্তার কে ফোন করে আনেন। ডাক্তার আসার পূর্বেই নবজাতক শিশুটির মৃত্যু হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: