শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
যমুনা নদীতে বিলীন হচ্ছে বসত বাড়ি, দেখার কেউ নেই!  » «   নতুন চলচ্চিত্রের জন্য ইরানে অনন্ত  » «   নেইমারের জার্সি গায়ে অপু ও জয়  » «   সিসিক নির্বাচন: আ.লীগ মেয়র প্রার্থী হলেন কামরান  » «   বাসায় ঢুকে অভিনেত্রীকে শ্লীলতাহানি!  » «   আর্জেন্টিনার হার, বেরিয়ে এলো বিস্ফোরক তথ্য!  » «   দুর্ঘটনা সড়কে মৃত্যুর মিছিল, নিহত ৩০, আহত ৪৭  » «   ‘নির্বাচনে জয়ী হতে গিয়ে যেন দলের বদনাম না হয়’  » «   হাসপাতালে পরীমনি  » «   আর্জেন্টিনার হার, ‘সুইসাইড নোট’ লিখে নিখোঁজ মেসি ভক্ত  » «   সাপাহারে ট্রাক ও ভ্যানের মুখো-মুখি সংঘর্ষে নিহত-২  » «   দুর্ঘটনার দিন ঢাকাতেই ছিলাম না’  » «   ভক্তদের হতাশ করেনি ব্রাজিল : অতিরিক্ত সময়ই বিশ্বকাপে টিকিয়ে রাখল নেইমারদের  » «   হাসপাতালের এক্সরে রুমে রোগীর মাকে ধর্ষণের চেষ্টা!  » «   গজারী বনে যুবতীর অর্ধগলিত লাশ  » «  

ট্রেন রক্ষাকারী ‘মাফলার বীর’ সিহাব-লিটনকে সংবর্ধনা



নিউজ ডেস্ক:: তেলবাহী ট্রেনকে দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা করা সেই সাহসী দুই শিশুকে সংবর্ধনা দিয়েছে রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় কর্মকর্তারা। বুধবার দুপুরে পাকশীতে এ সংবর্ধনা দেয়া হয়।

বুদ্ধিমত্তা দিয়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে তেলবাহী ট্রেনকে রক্ষা করা সেই দুই শিশুর পরিচয় এখন ‘মাফলার বীর’। গলার মাফলার দিয়েই নিজ গ্রামে ঘুরে বেড়ায় আলোচিত সিহাবুর রহমান (৬) ও লিটন আলী (৭)।

শিহাবের মা রিতা ও লিটনের নানী শুকুরজান জানান, তাদের থাকার জায়গা নেই।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে রেলওয়ের বিভাগীয় ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার প্রত্যেককে ১২ হাজার ৫শ’ টাকা ও ক্রেস্ট প্রদান করেন। এ সময় বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা শওকত জামিল মহসি, বিভাগীয় প্রকৌশলী আসাদুল হক, বৈদ্যুতিক কর্মকর্তা খাইরুল ইসলাম, পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাবিবুল ইসলাম হব্বুল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এখানে উপস্থিত রেলওয়ে ঠিকাদার আনোয়ারুল ইসলাম ওদের দু’জনকে এক হাজার টাকা করে নগদ পুরস্কার দেন।

সাহসী দুই শিশু রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানি ইউনিয়নের ঝিনা গ্রামের বাসিন্দা। তাদের মধ্যে সিহাবুর গ্রামের সুমন আলীর ছেলে ও লিটন শহীদুল ইসলামের ছেলে। সিহাব প্রথম ও লিটন দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র। রেলের জমিতে পরিবারের সঙ্গে তাদের বসবাস।

মঙ্গলবার দুই শিশুকে পুরস্কৃত করেছেন বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহীন রেজা। দুপুর ১২টার দিকে রেললাইনের ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সিহাবুর ও লিটনের হাতে স্কুলব্যাগ, টিফিন বক্স ও শীত নিবারণের কম্বল পুরস্কার হিসেবে তুলে দেন তিনি।

ছোট্ট দুই শিশুর বুদ্ধিদীপ্ত তাৎক্ষণিক পদক্ষেপে জ্বালানি তেলবাহী ৩২ বগির ট্রেনের বিশাল বহরটি রক্ষা পেয়েছে। না হলে হয়তো অনেক বড় ধরনের দুর্ঘটনাও ঘটতে পারতো। এরপর ওই লাইন দিয়ে আন্তঃনগর ট্রেনও আসতো! তাই তাদের দু’জনকে পুরস্কৃত করা হবে।

গত ১৮ ডিসেম্বর সোমবার এ ঘটনা ঘটে। রেললাইন দিয়ে হাঁটার সময় ভাঙা দেখতে পেয়ে দৌড়ে বাড়ি থেকে লাল রঙের মাফলার এনে দুজন দু’দিকে ধরে দাঁড়িয়ে থাকলে ট্রেনের চালক ট্রেনটি থামিয়ে দেন। এতে মারাত্মক দুর্ঘটনা থেকে তেলবাহী ট্রেনটি রক্ষা পায়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: