সোমবার, ১৫ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
টিকটক ভিডিও বানাতে গিয়ে নদীতে ঝাঁপ, ৪৮ ঘণ্টা পর লাশ উদ্ধার  » «   ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের দাবিতে সিলেট পিজিএস’র মানববন্ধন  » «   সিলেটে হোমিও শিক্ষায় বেড়েছে আগ্রহ,সহযোগিতায় সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা  » «   ভারী বৃষ্টিপাতে সিলেটের পাহাড়ি এলাকায় ধসের পূর্বাভাস  » «   জীবন দিয়ে হলেও এরশাদের মরদেহ রংপুরে আটকে দেয়ার ঘোষণা  » «   শেষ মুহূর্তে থেমে গেল ভারতের চন্দ্রযান ২-এর অভিযান  » «   এবার সংবাদ সম্মেলনে মুখ খুললেন মিন্নি  » «   হজ নিয়ে সৌদি-কাতার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ  » «   এরশাদের সন্তানরা কে কোথায়  » «   ওবামার সঙ্গে জেদের কারণেই ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের চুক্তি বাতিল!  » «   প্রধানমন্ত্রী সময় দিলে জুলাইয়েই ই-পাসপোর্ট উদ্বোধন  » «   লাইফ জ্যাকেট ছাড়াই পাঁচদিন বঙ্গোপসাগরে ভারতীয় জেলে! উদ্ধার চট্রগ্রামে  » «   বাংলাদেশের আর্থিক অন্তর্ভুক্তির প্রশংসায় রানী ম্যাক্সিমা  » «   অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযানে ম্যাজিস্ট্রেটের ওপর হামলা  » «   পদোন্নতি পেয়ে মন্ত্রী হচ্ছেন সিলেটের ইমরান আহমদ  » «  

ট্রাম্পের বাণিজ্যযুদ্ধে লাভবান বাংলাদেশ



নিউজ ডেস্ক:: চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নতুন করে বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু করায় লাভবান হচ্ছে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাত। এখন মার্কিন কোম্পানিগুলো চীনের অর্ডার বাতিল করে বাংলাদেশ থেকে পোশাক নিচ্ছে। এ সুযোগে বাংলাদেশের অনেক প্রতিষ্ঠানই প্রথমবারের মতো যুক্তরাষ্ট্রে পোশাক রফতানি করছে।

এতে বাংলাদেশের রফতানি আয় উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। ভবিষ্যতে এ আয় আরও বাড়বে বলে মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে বলেছে ব্ল–মবার্গ। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যমটি তাদের বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদনে বলেছে, বাংলাদেশে ৩০ বছর ধরে পোশাক উৎপাদন করছে নিউএজ গ্রুপ।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে কখনই তারা যুক্তরাষ্ট্রের কোনো প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কাজের অর্ডার পায়নি। চীনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যযুদ্ধের পর এই প্রথম তারা দেশটির কোনো প্রতিষ্ঠানের কাজ পেয়েছে। নিউএজ গ্রুপের ভাইস প্রেসিডেন্ট আসিফ ইব্রাহীম বলেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকে ইউরোপে পোশাক রফতানি করে আসছেন। প্রথমবারেই তারা বছরে আড়াই কোটি ডলারের পোশাক রফতানি করতে পারবেন বলে আশা করছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সম্প্রতি প্রায় ২০০ বিলিয়ন ডলার মূল্যমানের চীনা পণ্যের ওপর শুল্ক বাড়িয়ে ১০ শতাংশ থেকে ২৫ শতাংশ করা হয়। এর ফলে চীনে যুক্তরাষ্ট্রের পোশাক বিপণনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর অর্ডার প্রায় অর্ধেক কমে গেছে। অর্ডারগুলো বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম ও মালয়েশিয়ায় দেয়া হয়েছে। আসিফ ইব্রাহীম বলছেন, চীনে বাতিল হওয়া অর্ডারগুলোর প্রায় ৩০ শতাংশ বাংলাদেশে এসেছে। শুধু তাই নয়, চীনা অনেক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে বিনিয়োগও করতে যাচ্ছে।

ব্লুমবার্গ বলছে, ২০২৪ সাল নাগাদ পোশাক রফতানি বাবদ ৭২০ কোটি ডলার আয় করতে পারে বাংলাদেশ।এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক বলছে, এর অর্থ হচ্ছে চীনের প্রায় ৪১০ কোটি ডলারের অর্ডার বাংলাদেশে ঢুকবে। বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতে আরও ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ঘটবে। বাংলাদেশের সরকার ও ব্যবসায়ীরা ইতিমধ্যে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়েছে বলেও উল্লেখ করেছে সংবাদমাধ্যমটি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: