মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বিতর্কিত আইনে কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী গ্রেপ্তার  » «   অপমানজনক বিতাড়ণের আগে সিনেট ও ডাকসু ছাড়ুন: শোভন-রাব্বানীকে ভিপি নুর  » «   পেঁয়াজ নেই, তবুও বিক্রির ঘোষণা টিসিবির!  » «   শর্ত ভেঙে ‘অযোগ্য’ প্রতিষ্ঠানকে কাজ দিচ্ছে গণপূর্ত  » «   মেট্রোরেলের জন্য আলাদা পুলিশ ইউনিট গঠনের নির্দেশ  » «   রংপুর উপনির্বাচনে সরে দাঁড়ালেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী  » «   সিলেটে কমতে শুরু করেছে ডেঙ্গুর প্রকোপ  » «   শোভন-রাব্বানীর পর এবার আলোচনায় যুবলীগ  » «   মধ্যরাতে ‘এক কাপড়ে’ সৌদি থেকে ফিরলেন ১৭৫ বাংলাদেশি  » «   ভারতে ভয়াবহ নৌকাডুবি: নিহত ১২, নিখোঁজ ৩০  » «   এবার রিফাত হত্যার নতুন ভিডিও প্রকাশ্যে  » «   সিলেটে গ্রেফতার সেই ডিআইজির পক্ষে দাঁড়ালেন সাবেক খাদ্যমন্ত্রী  » «   পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের সঙ্গে সিলেট বিভাগের পৌর মেয়রদের বৈঠক  » «   কমিশন কেলেঙ্কারিতে ফেঁসে যাচ্ছেন জাবি উপাচার্য  » «   সৌদির তেলক্ষেত্রে হামলার পর থেকেই তেলের দাম ১০ শতাংশ বৃদ্ধি  » «  

‘জয় শ্রীরাম’ না বলায় পিটিয়ে মুসলিম যুবককে হত্যা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ভারতের ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগানটি এখন আর রাজনীতিতে সীমাবদ্ধ রইলো না। কেড়ে নিল এক নিরীহ মুসলিম যুবকের প্রাণ। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি হয়েছে ঝাড়খণ্ড রাজ্যের খরসাবত জেলায়। চোর সন্দেহে তবরেজ আনসারি নামের ওই যুবককে বৈদ্যুতিক থামের সঙ্গে বেঁধে মারধর করা হয়। পাশাপাশি তাকে জোর করে ‘জয় শ্রীরাম’ বলানো হয় বলেও অভিযোগ উঠেছে। এই অত্যাচারের জেরে চব্বিশ বছর বয়সি ওই যুবক পরে মারা যান।

নিহত যুবক তবরেজ আনসারি পুণেতে দিনমজুরের কাজ করতেন। ইদের ছুটি কাটাতে গ্রামে এসেছিলেন। পরিবার তার বিয়ে ঠিক করেছিলো। গত ১৮ জুন অন্য দুই যুবকের সঙ্গে জামশেদপুরে যাচ্ছিলেন তবরেজ। ঝাড়খণ্ডের খারসাওয়ান দিয়ে যাওয়ার সময় চোর সন্দেহে বেশ কয়েকজন তাকে ঘিরে ধরে। সুযোগ বুঝে দুই সঙ্গী পালিয়ে যায়। উন্মত্ত জনতার ধর্মীয় রোষের শিকার হন তবরেজ।

তারা তাকে সমানে পেটাতে থাকে, কেউ লাঠি আবার কেউ বা হাত দিয়ে। আক্রমণকারীদের কাছে কাকুতি মিনতি করলেও কোনও লাভ হয়নি৷ একটানা প্রায় ১৮ ঘণ্টা ধরে এভাবেই তবরেজের উপর চলে অকথ্য অত্যাচার। মারধরের পাশাপাশি তবরেজকে ‘জয় শ্রীরাম ’বলতেও বাধ্য করা হয়।

ইন্টারনেটে ছড়ানো বহু ভিডিয়োর একটিতে দেখা যায়, তবরেজকে পেটাতে পেটাতে লাঠিই ভেঙে যায় একজনের। বুকফাটা আর্তনাদ করছেন তবরেজ। অনেক পরে পুলিশ এসে তবরেজকে উদ্ধার করে চুরির দায়ে কোর্টে তোলে। কোর্ট পাঠায় জেল হেফাজতে। শনিবার অবস্থা খারাপ হলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তবরেজকে। সেখানেই তিনি মারা যান। তবে মানবাধিকার কর্মীদের অভিযোগ, হাজতে মৃত্যুর পরেই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাকে।

তবরেজকে পেটানোর সময়ও তাকে না বাঁচিয়ে, অমানবিকভাবে তার উপর অত্যাচারের চিত্র মোবাইলে ভিডিও করতে দেখা যায় অনেককেই। সেইসব ভিডিও ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে, যা পুলিশের কাছেও এসে পৌঁছেছে। পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে। প্রথমে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয় তাকে। গত শনিবার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তবরেজকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়। সেখানেই প্রহৃত ওই মুসলমান যুবকের মৃত্যু হয়।

ভিডিওর সূত্র ধরে পুলিশ পাপ্পু মণ্ডল নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। মোদির দেশে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের ওপর ধর্মান্ধ হিন্দুদের এ ধরনের নির্যাতন কোনো নতুন ঘটনা নয়। কখনও গোরক্ষার নামে, কখনও বা জঙ্গি দমনের নামে তারা মুসলিমদের ওপর চড়াও হয়ে থাকে। কেবল ঝাড়খণ্ড রাজ্যেই গত ৩ বছরে ১৩ মুসলিমকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

সূত্র: আনন্দবাজার

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: