মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ইসি প্রশ্নবিদ্ধ ভোট করতে চায় না: সিইসি  » «   বিয়ানীবাজারে ‘পুলিশ প্রহরায়’ নাহিদের প্রচারণা!  » «   হবিগঞ্জে ধানের শীষ পেলেন রেজা কিবরিয়া  » «   কাতারে কোরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম সিলেটের সাইয়্যেদ  » «   প্রিয়ডটকম-বিএনপিনিউজ২৪-সিএনএনবিডি২৪ সহ ৫৮ নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ  » «   আজ থেকে শুরু জাতীয় ভ্যাট দিবস ও ভ্যাট সপ্তাহ  » «   নিজেকে ট্রাম্পকন্যা দাবি এক পাকিস্তানি তরুণীর!  » «   প্রতীক বরাদ্দ আজ, শঙ্কা নিয়ে শুরু হচ্ছে ভোটযুদ্ধ  » «   আজ খালেদা জিয়ার ভাগ্য নির্ধারণ  » «   নৌকা প্রতীকে লড়বেন জাতীয় পার্টির যে ২৯ প্রার্থী  » «   জাপা পেলো ৩০ আসন, উন্মুক্ত ১৩২  » «   মেয়র পদে থেকেই সংসদ নির্বাচন করা যাবে: হাইকোর্ট  » «   সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি প্রবেশ করছে: প্রধান বিচারপতি  » «   প্রার্থিতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে হিরো আলম  » «   যেসব আসনে ধানের শীষের প্রার্থী পরিবর্তন  » «  

জ্যাককে কেন বাঁচানো হয়নি তার কারণ বললেন নির্মাতা!



বিনোদন ডেস্ক::‘টাইটানিক’-এর শেষের দিকের সেই দৃশ্যটা পছন্দ হয়নি দর্শকদের। দৃশ্যটি ছিল—সেখানে রোজকে একটা ভাসমান দরজার ওপর উঠিয়ে দিয়ে ধীরে ধীরে ঠাণ্ডায় জমে মারা যায় জ্যাক।

২০ বছর ধরে নানা যুক্তি দিয়ে এই দৃশ্যের বিরুদ্ধে নিজেদের মত প্রকাশ করছেন জ্যাক-রোজ ভক্তরা। তবে ছবির পরিচালক জেমস ক্যামরনের মত কিন্তু ভিন্ন। অনেক দিন ধরেই তিনি যুক্তি দিয়ে বলে আসছেন, যুক্তিযুক্ত কারণেই জ্যাক মারা গিয়েছিল।

২০১২ সালে এক সাক্ষাৎকারে তিনি যুক্তি দিয়ে বলেছিলেন, ‘দরজার সেই ভেলায় রোজকে উঠিয়ে দিয়ে জ্যাক কিন্তু চেষ্টা করেছিল ওটায় উঠতে। কিন্তু সেটা উল্টে যেতে পারত। এখানে ভেলার স্থানসংকুলানের কথা আসছে না। দরজাটি যেকোনো একজনকে নিয়েই ভেসে থাকতে পারত। ফলে জ্যাক সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, সেই একজনটা হবে রোজ। বিষয়টি বাস্তবসম্মত করার জন্য একটা কাঠের টুকরার ওপর মানুষজন রেখে প্রায় দুই দিন ধরে পরীক্ষাও করেছিলাম। পরীক্ষার পর আমরা একমত হয়েছিলাম, সাহায্য করতে আসা জাহাজটি পৌঁছার আগ পর্যন্ত সেই কাঠের টুকরায় একজন মানুষই ভেসে থাকতে পারত।’

‘টাইটানিক’-এর মুক্তির ২০ বছর পূর্তিতে আবারও সেই তর্ক উঠে এসেছে। এবার ভ্যানিটি ফেয়ার ম্যাগাজিন প্রশ্নটি রেখেছিল জেমস ক্যামরনের কাছে। পরিচালক এই তর্ক-বিতর্কে রীতিমতো ত্যক্ত-বিরক্ত।

তাই এই বিতর্ক শেষ করার জন্য এবার পরিষ্কার করেই উত্তর দিলেন, “এর উত্তরটা আসলে খুবই সহজ। কেননা ‘টাইটানিক’-এর চিত্রনাট্যের ১৪৭ পৃষ্ঠায় সাফ সাফ লেখা আছে, জ্যাক মারা যাবে। এর থেকে বোকামির আর কী হতে পারে যে দুই দশক পরও এ বিষয়টি এখনো আমরা আলোচনা করে যাচ্ছি। দর্শকরা যেন জ্যাকের মৃত্যুতে দুঃখ পায়, সে জন্যই আসলে দৃশ্যটা রচনা করা হয়েছিল। জ্যাক যদি বেঁচে যেত তাহলে ছবির সমাপ্তিটা কোনো প্রভাব ফেলত না দর্শকদের মনে। ছবিটির বিষয়বস্তু হচ্ছে মৃত্যু আর বিচ্ছেদের। ফলে জ্যাককে মরতেই হতো। এখানে পদার্থবিজ্ঞানের যতই যুক্তি দেখান না কেন, শৈল্পিকতার কারণে জ্যাককে মরতেই হতো। ”

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: