শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নিজেদের বিমান বাহিনী থেকে সুরক্ষা পেতেই এরদোগানের এস-৪০০ ক্রয়!  » «   জাপানে অ্যানিমেশন স্টুডিওতে অগ্নিসংযোগ, নিহত ১২  » «   খাদ্য ঘাটতি পূরণ করেছি, এখন লক্ষ্য পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী  » «   রিফাত হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে মিন্নি  » «   বাংলাদেশের পতাকার আদলে অন্তর্বাস বিক্রি করছে অ্যামাজন  » «   রিফাত হত্যাকাণ্ড: এবার রিশান ফরাজীও গ্রেফতার  » «   বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কেলেঙ্কারি: সিস্টেম লস নয় দুর্নীতি  » «   বন্যার কারণে জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পরীক্ষা স্থগিত  » «   হঠাৎ কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে শক্ত পদক্ষেপ, মাঠে নামছে র‌্যাব  » «   ধসে পড়া ভবনে মিললো বাবা-ছেলের মরদেহ  » «   ইসরাইলের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের তীব্র নিন্দা  » «   ‘নয়ন বন্ডের বাড়িতে বসেই স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মিন্নি’  » «   সিলেটের ২ জনসহ দেশসেরা ১২ শিক্ষার্থীকে পুরস্কার দিলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   বেনাপোল ও বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   উপজেলা নির্বাচন: সিলেটে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কারের তালিকা  » «  

জ্বিন তাড়াতে শিশুটিকে আগুনের ছ্যাঁকা দিতো অভিনেত্রী!



নিউজ ডেস্ক:: ফেনী সদর উপজেলার শর্শদিতে প্রিয়াঙ্কা আক্তার নামে এক শিশুকে নির্মম নির্যাতনের ঘটনায় আটক মেয়েটির পালক মা অভিনেত্রী শাহানা আক্তার শাহেনী পুলিশকে জানিয়েছেন কবিরাজের পরামর্শে জ্বিন তাড়াতে মেয়েটির গায়ে ছ্যাঁকা দিতেন তিনি।বুধবার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে ফেনী পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম সরকার এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘ঢাকার খিলগাঁও থাকা অবস্থায় সিলেটের সুফিয়া বেগম নামের এক নারীর কাছ থেকে আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০১১ সালে এক বছর বয়সী প্রিয়াঙ্কাকে দত্তক নেয় শাহেনী। তিনি প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে প্রেয়সী নামে আরও এক মেয়েকে দত্তক নিয়ে খিলগাঁও এলাকার একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন। গত ১৫ দিন আগে শর্শদি এলাকার গজারিয়া কান্দি পাঠান বাড়ি এলাকার গ্রামের বাড়িতে আসে শাহেনী। শাহেনী ওই এলাকার মতিউর রহমানের মেয়ে হলেও আলাদা একটি বাড়ি রয়েছে তার।’

পুলিশ সুপার জানান, ‘শাহেনী বলেন এ বাড়িতে আসার পর তার মেয়ে অদ্ভুত রকমের আচরণ করতো। এটা দেখে স্থানীয় বাজারের এক লন্ড্রি দোকানের অমৃত কুমার ও আবদুল্লাহ নামে দু’জনের কাছে চিকিৎসার জন্য যান শাহেনী। তারা বলেন মেয়ের গায়ে জ্বিনের আছর আছে, তা তাড়াতে হলে আগুনের ছ্যাঁকা দিতে হবে।’

শাহেনা আরও বলেন, ওই দু’জনের পরামর্শে মেয়েটির গায়ে ছ্যাঁকা দিতেন জ্বিন তাড়ানোর জন্য।এ ঘটনায় বুধবার সকালে অভিযান চালিয়ে শর্শদি এলাকা থেকে অমৃত কুমার, আবদুল্লাহ ও মুন্নী আক্তার প্রেমা নামে আরও এক মেয়েকে আটক করে পুলিশ।

অবশ্য অমৃত ও আবদুল্লাহ জানায়, ‘তারা মেয়েটির গায়ে কখনও ছ্যাঁকা দেয়নি। ছ্যাঁকা দিয়েছে শাহেনী।সে মেয়ের গায়ে আগুনের ছ্যাঁকা দিয়ে আনন্দ পেতেন।এ কারণেই ছ্যাঁকা দিতো।’পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম সরকার জানান, এ ঘটনায় এখনো কোনো মামলা হয়নি।কোনো মানবাধিকার কর্মী অথবা পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করবে।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে শিশুটিকে কাঁদতে দেখে জোহরা নামে এক নারী তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন।জোহরা জানান, ওই দিন দুপুরে শর্শদী ইউনিয়নের এলাকার পাঠান বাড়ির সংলগ্ন একটি সড়কে ক্ষত-বিক্ষত শরীর নিয়ে কাঁদতে দেখে তাকে বাড়ি নিয়ে যান। পরে স্বামী জাহাঙ্গীর আলমের পরামর্শে তাকে ফেনী সদর হাসপাতালে ভর্তি করায় তারা।

মেয়েটি তার নাম প্রিয়াঙ্কা ও মায়ের নাম শাহেনী শুধু এ তথ্য দিতে পেরেছে। এরপর পুলিশের দুটি টিম কয়েক ঘণ্টা অভিযানের পর রাত সাড়ে ১২টার দিকে শর্শদি এলাকার একটি জঙ্গল থেকে নির্যাতনকারী শাহেনীকে আটক করে। এর আগে তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মেয়েটির ওপর নির্যাতনের আলামত হিসেবে কয়েকটি জায়নামাজ খুঁজে পায়।

ফেনী সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ফয়জুল কবির বলেন, ‘শিশুটির শরীরে অসংখ্য পোড়া ক্ষত রয়েছে। চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসা দিচ্ছেন। যেহেতু মেয়েটির কোনো স্বজন নেই সেহেতু তার দেখাশুনা করছে স্বেচ্চাসেবী সংগঠন ‘সহায়’।সহায়’র প্রধান সমন্বয়ক মঞ্জিলা আক্তার মিমি জানান, ‘মেয়েটিকে সার্বক্ষণিক পরিচর্যা করছেন তারা।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: