রবিবার, ১৭ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষকের কুকীর্তি ফাঁস!  » «   মায়ের পছন্দ ব্রাজিল, সমর্থক জয়ও  » «   পুলিশ কমিশনার‘ঈদগাহে ছাতা ও জায়নামাজ ছাড়া অন্য কিছু নয়’  » «   ‘আমিও প্রেগনেন্ট হয়েছি, অনেকবার অ্যাবরশনও করিয়েছি’  » «   গুগল পেজ ইরর দেখায় কেন?  » «   রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, সিইসি কে কোথায় ঈদ করছেন  » «   ইসি সচিব : তিন সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা  » «   বিপজ্জনক রূপ নিয়েছে মনু ও ধলাই  » «   বিশ্বকাপের একদিন আগে বরখাস্ত স্পেন কোচ!  » «   ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে ৭ কি.মি. যানজট  » «   শারীরিক সম্পর্ক নিয়ে আলিয়ার সোজা কথা!  » «   যে কারণে ইউনাইটেড হাসপাতালে যেতে চান খালেদা  » «   খালেদা চিকিৎসা চান নাকি রাজনীতি করছেন : সেতুমন্ত্রী  » «   যানজটের কথা শুনিনি, কেউ অভিযোগও করেননি  » «   ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান ‘বকশিসের নামে নীরব চাঁদাবাজি নেই’  » «  

জীবনের গুরুত্বপূর্ণ ১১টি শিক্ষা মানুষ দেরিতে শেখে



লাইফস্টাইল ডেস্ক :মানুষ তার বয়সের কোনো এক পর্যায়ে যেয়ে আফসোস করে, অনুশোচনা করে। কিন্তু এর কারণ কি? জীবনের সমস্ত সময় কেটে যাওয়ার পর সে যখন তার অতীতের ভুল সিদ্ধান্তগুলোর কথা ভাবে, ঠিক তখনি তার কন্ঠ এমনি ভার হয়ে যায়। তাই ভবিষ্যতে এমন অবস্থায় না পড়তে না চাইলে আপনার করণীয়গুলো জেনে নিন-

সময়ের সঠিক ব্যবহার :
সময় আপনার জীবনের মহান চিকিৎসক আবার জীবন নাশকারীও হতে পারে। এসব নির্ভর করে আপনার বর্তমান বিবেচনার উপর। হারিয়ে যাওয়া সময় আর কখনো ফিরে পাবেন না। তাই সময়ে কাজ সময়ে করার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

ঝুঁকি নিন :
জীবনের যেকোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার পরেই তা বাস্তবে পরিণত করার জন্য দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হয়। অনেক কঠিন মুহূর্তের সম্মুখীন হতে হয়। যে জীবনের পথ চলার এই ঝুঁকি নিতে পারবে না, তার পক্ষে সুন্দর জীবনের আশা করাও সম্ভব নয়।

নিজের মনের কথা শুনুন :
নিজের মন যা বলে তা মেনে কাজ করলেই মানুষের জীবনের পরিতৃপ্তি মেটে। পরিবার বা কাছের মানুষদের কথা রাখতে যেয়ে অনেক ক্ষেত্রেই মানুষ তার নিজের ইচ্ছার বা শখের বাইরে কাজ করে বসে। আর তা আজীবন তাকে তিলে তিলে কষ্ট দেয়।

কাজকে ভালোবাসুন :
আপনি যে কাজই করেন না কেন, আপনার কাজের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থাকা উচিৎ। কাজের প্রতি আপনার একাগ্রতা আপনার জীবনের ধারাবাহিকতাকে ধরে রাখে। এছাড়া আপনাকে দেখে অনেকেই সে শিক্ষা নেবে।

অভিযোগ করার প্রবণতা বন্ধ করুন :
কোনো বাচ্চা শিশুর মতো যে কোন কথাতেই অভিযোগ বা দোষ ধরানোর স্বভাব বন্ধ করুন। তা নাহলে এটি আপনাকে অন্যের কাছে অনেক নিচু মানসিকতার পরিচয় দেবে।

নীরবতা বজায় রাখা :
কারো জন্য অনেক সময় ভুল করে আপনার প্রতিক্রিয়া দেখান। এটি আদৌ আপনার উচিত নয়। কেউ ভুল করলে আপনার নীরবতা তাকে অনেক বড় শিক্ষা দিতে সক্ষম।

সুন্দর জীবন উপভোগ করুন :
আপনি আপনার জীবনের ভারসাম্য হার‍্যে ফেললে সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে ব্যর্থ হবেন। তাই আপনার নিজের মতো করেই বেঁচে থাকার জন্য সবচেয়ে সঠিক পথটি বেছে নিন।

কঠোর পরিশ্রম :
চেহারা দেখিয়ে কখনো কারো জীবনে সাফল্য আসে নি। কঠোর পরিশ্রম আর সাধনার ফলে মানুষের জীবনের কাঙ্ক্ষিত সাফল্য আসে। তাই যত দ্রুত পারেন নিজের জীবনের লক্ষ্যে পৌঁছাতে কঠোর পরিশ্রম শুরু করুন।

হার না মানা :
আপনাকে হয়তো অনেক সময় অনেক সংকটময় অবস্থার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। কিন্তু আপনি যদি সে পরিস্থিতির কাছে হার মেনে বসে থাকেন তাহলে আপনি জীবনের কাছেও হার মানতে বাধ্য হবেন।

টাকা সমাধান নয় :
কেউ টাকা দিয়ে সুখ কিনতে পারে না। আমরা অনেক সময় সমৃদ্ধি আনতে প্রধান উপকরণ হিসেবে আমাদের স্বপ্ন, সম্পর্ক, সময় এবং আরো অনেক কিছু দাবি করি। কিন্তু সে সমৃদ্ধি মানে এই নয় যে আপনি প্রকৃতভাবে সুখী হবেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: