শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা  » «   সীমান্তের খালে মিয়ানমারের সেতু, বন্যার আশঙ্কা বাংলাদেশে  » «   দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাবে বাংলাদেশ: শাবিতে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   আতিয়া মহল মামলা: ৫ দিনের রিমান্ডে ৩ আসামি  » «   শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলা: হাইকোর্টে আপিল শুনানি শুরু  » «   টিআইবির রিপোর্টে সরকার ও ইসির আঁতে ঘা লেগেছে: বিএনপি  » «   মাফিয়াদের স্বর্গরাজ্যে দশ বাংলাদেশির অনন্য সাহসিকতার নজির  » «   ১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে থাকাই ভালো: ওবায়দুল কাদের  » «   সন্ত্রাস-মাদক-জঙ্গিবাদের মতো দুর্নীতির বিরুদ্ধেও ‘জিরো টলারেন্স’ : প্রধানমন্ত্রী  » «   সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ  » «   কৃত্রিম কিডনি তৈরি করলেন বাঙালি বিজ্ঞানী  » «   ব্রেক্সিট ইস্যু: অনাস্থা ভোটে টিকে গেলেন তেরেসা মে  » «   টিআইবির প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয়, পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করি: সিইসি  » «   জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করছেন শেখ হাসিনা  » «   সংসদ কার্যকর রাখতেই বিরোধী দলে জাপা : জিএম কাদের  » «  

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের ভরাডুবির কারণ কী?



স্পোর্টস ডেস্ক:: দেশের অষ্টম এবং বিশ্বের ১১৬তম ভেন্যু হিসেবে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ফুটেছে টেস্ট ‘ফুল’। জাঁকজমকপূর্ণ আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে অভিষেক ঘটে এ মাঠের। ঐতিহাসিক প্রথা মেনে ঘণ্টা বাজিয়ে উদ্বোধন ঘোষণা করেন সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান।

তবে ক্রিকেটের অভিজাত সংষ্করণে সেখানে বাংলাদেশের অভিষেকটা হলো নিদারুণ বিরহের। খর্বাশক্তির জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ব্যাটিং ব্যর্থতায় দেড় দিন আগে এবং ১৫১ রানের বিশাল ব্যবধানে হারল স্বাগতিকরা। কিন্তু কেন এ চরম ভরাডুবি টাইগারদের? কৌতুহলী ক্রিকেটপ্রেমীদের এ প্রশ্নের জবাব দিতেই এ আয়োজন-

১. টেস্ট ফরম্যাটটা এখনো বুঝে উঠতে পারেনি বাংলাদেশ। ক্রিকেটের এ সংষ্করণে সেশন বাই সেশনে কেমন খেলা হচ্ছে তার ওপর ফলাফল নির্ভর করে। এক সেশনে ভালো খেললেও পরের সেশনে তা ধরে রাখতে পারেনি টাইগাররা। আবার উল্টোটিও ঘটেছে। প্রথম সেশনে বাজে খেললে দ্বিতীয় সেশনে ঘুরে না দাঁড়িয়ে হুড়মুড় করে গুটিয়ে গেছে।

২. টেস্ট খেলতে যে মেজাজ-মর্জির দরকার সেটা বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে নেই। এজন্য ঘরোয়া ক্রিকেটকে দায়ী করা যেতে পারে। এখানে তিনদিন বা চারদিনের যে ম্যাচগুলো খেলা হয়-তার মান অতি নিম্ন। বৈচিত্র্যপূর্ণ বোলিং আক্রমণের মুখোমুখি হতে হয় না ব্যাটসম্যানদের।

৩. টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে ফরম্যাটের মেজাজ থেকে বের হতে পারছেন না টাইগাররা। এ দুই ফরম্যাটে তেড়েফুঁড়ে মারার যে প্রবণতা তা টেস্টেও অনূদিত করছেন তারা। কিন্তু এখানে অযাচিত শট খেলা যাবে না। যথাসম্ভব ক্লাসিরে ওপর নির্ভর করতে হবে।

৪. সাম্প্রতিক সময়ে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে ফরম্যাটে অতি আত্মবিশ্বাসী ক্রিকেট খেলছে বাংলাদেশ। সেই আত্মবিশ্বাসই টেস্টে কাল হয়ে দাঁড়াচ্ছে। কারণ, লংগার ভার্সনে আত্মবিশ্বাসটা অন্যরকম হওয়া দরকার।

৫. সাম্প্রতিক সময়ে ক্রিকেটের আদি ফরম্যাটে যাচ্ছেতাই অবস্থা বাংলাদেশের। শেষ ৯ ইনিংসের ৭টিতেই ৫০ ওভারের বেশি খেলতে পারেননি তারা। স্বাভাবিকভাবেই আত্মবিশ্বাস তলানিতে। তুলনামূলক কম শক্তির জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারের এটিও অন্যতম কারণ।

৬. সিলেট টেস্টে জয়ের জন্য চতুর্থ ইনিংসে বাংলাদেশের দরকার ছিল ৩২১ রান। ইতিহাস বলছে, এ রান তাড়া করে জিততে হলে অসাধ্য সাধন করতে হতো টাইগারদের। গড়তে হতো অনন্য রেকর্ড। নিজেদের টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড নজির স্থাপন করতে হতো। আগের রেকর্ডটি ছিল ২১৫। ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে এ রান তাড়া করে জেতে টিম বাংলাদেশ। রেকর্ড রান তাড়া করে জেতার ভূতও বিপাকে ফেলেছে টাইগারদের।

৭. ক্রিকেটে বিবর্তন ঘটেছে। আগের চেয়ে এখন অনেক বেশি কাযর্কর লেগ স্পিনার। বাংলাদেশে সেই মানের লেগি নেই। তাদের কিভাবে খেলতে হয় সেই অভিজ্ঞতাও নেই। এরই খেসারত গুনতে হয়েছে বাংলাদেশকে। ব্রেন্ডন মাভুতাকে কোনোভাবেই পড়তে পারেননি ব্যাটাররা।

৮. এ টেস্টের আগে ফেভারিট ছিল বাংলাদেশ। এ তকমাও ডুবিয়েছে স্বাগতিকদের।

৯. ভালো খেলতে মুখিয়ে ছিল জিম্বাবুয়ে। তবুও নিশ্চুপ ছিল তারা। বরাবরই এগিয়ে রেখেছে স্টিভ রোডস শিষ্যদের। সাদা পোশাকে প্রতিপক্ষের নীরবতা কৌশলও গ্রাস করেছে তাদের।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: