মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
কমলাপুর রেলওভার ব্রিজের ত্রুটির চিত্র তুলে ধরলেন ব্যারিস্টার সুমন  » «   জিন্দাবাজারে মিললো ২টি গোখরাসহ ৬ বিষধর সাপ  » «   কাশ্মীর ইস্যুতে আলোচনায় বসছেন ট্রাম্প- মোদী!  » «   মাত্র ১০০ মিটার দূরেই শত্রু  » «   অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে থাকবে সরকার: কাদের  » «   থানায় ‘গণধর্ষণের’ শিকার সেই নারীর জামিন নামঞ্জুর  » «   মিন্নির স্বীকারোক্তির আগে নাকি পরে এসপির ব্রিফিং : হাইকোর্ট  » «   প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের দুপুরের খাবারে মন্ত্রিসভার সায়  » «   নবম ওয়েজবোর্ডের গেজেট প্রকাশ নিয়ে আপিল বিভাগের সিদ্ধান্ত মঙ্গলবার  » «   পাঁচভাই রেস্টুরেন্টে প্রবাসীর ওপর হামলা: দুই ছাত্রলীগ কর্মী গ্রেপ্তার  » «   সিলেটসহ রেলের পূর্বাঞ্চলের নিরাপত্তা নিশ্চিতে হাইকোর্টের রুল  » «   বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়া নয়, আ.লীগ নেতারা জড়িত : ফখরুল  » «   রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন: ‘শঙ্কা’ নিয়েই প্রস্তুত বাংলাদেশ  » «   সুনামগঞ্জে বিষপানে যুবকের আত্মহত্যা  » «   পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ইভিনিং প্রোগ্রামে জমজমাট শিক্ষা বাণিজ্য  » «  

জিন্দাবাজারে ছাত্রলীগ কর্মীকে পেটালেন তাঁতী লীগ নেতা



নিউজ ডেস্ক:: সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বের জেরে সিলেট নগরীর জিন্দাবাজারে এক ছাত্রলীগ নেতাকে মারধর করা হয়েছে। তাঁতী লীগের এক নেতার নেতৃত্বে নেওয়াজ আহমদ (২৩) নামে ওই ছাত্রলীগ নেতাকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। নেওয়াজ দক্ষিণ সুরমা ছাত্রলীগের নেতা। শুত্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে জিন্দাবাজারের পালকী রেস্টুরেন্টের সামনে এ মারধরের ঘটনা ঘটে।

প্রতক্ষদশী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাতে মোটরসাইকেলযোগে পালকী রেস্টুরেন্ট থেকে বের হচ্ছিলেন নেওয়াজ। এসময় প্রাইভেটকার নিয়ে সড়কে ছিলেন মহানগর তাঁতী লীগ নেতা আজহারুল ইসলাম মুনিমসহ একদল যুবক। নেওয়াজ মূল সড়কে আসামাত্র তাকে মোটর সাইকেল থেকে নামিয়ে মারধর করেন মুনিমসহ তাঁর সঙ্গের যুবকরা।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত ১৬ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাহফুজ হাসান তান্না বলেন, আমি একটি অনুষ্ঠানে ছিলাম। এসময় তাঁতী লীগের মুনিম আমাকে ফোন করে জানান, নেওয়াজ তাঁর সাথে বেয়াদবি করেছে। এই খবর শুনে শুনে আমি জিন্দাবাজারের দিকে রওয়ানা দেই। কিন্তু ঘটনাস্থলে আসার আগেই নেওয়াজকে মারধর করে তাঁরা চলে যান। চিকিৎসার জন্য নেওয়াজকে ওসমানী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তান্না।

তবে মারধরের জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে আজহারুল ইসলাম মুনিম বলেন, নেওয়াজ আমার কাছে চাঁদা দাবি করেছিলেন। শুক্রবার রাতে জিন্দাবাজারে তিনি অসংলঘ্ন আচরণ করছিলেন। এসময় স্থানীয় পথচারীরাই তাকে মারধর করেন। আমি তাকে উদ্ধার করেছি।

মারধরের কোনো অভিযোগ পাননি বলে জানিয়েছেন কতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সেলিম মিয়া।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: