শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
২৪ ডিসেম্বর মাঠে নামছে সেনাবাহিনী, থাকবেন ম্যাজিস্ট্রেটও  » «   ইন্টারনেটে ধীর গতি ও মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ চায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী  » «   প্রার্থিতা নিয়ে শুনানি: আদালতের প্রতি খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের অনাস্থা  » «   আওয়ামী লীগ ১৬৮ থেকে ২২০ আসনে জিতবে: জয়  » «   সিলেট-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়ন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট  » «   আম্বানি কন্যার বিয়েতে নাচলেন হিলারি ক্লিনটন [ভিডিও ]  » «   সিলেট-১ আসনে ধানের শীষের প্রচারণার একসঙ্গে মুক্তাদির-আরিফ  » «   সহিংসতার ঘটনা খতিয়ে দেখতে সিইসির নির্দেশ  » «   ‘ইডিয়ট’ লিখে গুগলে সার্চ দিলে কেনো আসে ট্রাম্পের ছবি?  » «   বিশ্ব ভ্রমণ করবে বাংলাদেশের প্রথম বিদ্যুৎচালিত গাড়ি  » «   খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি আরব ছাড়পত্র পাবে না: নিক্কি হ্যালি  » «   গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজ খালেদা ও হিরো আলম  » «   আস্থা ভোট, নেতৃত্বের পরীক্ষায় উতরে গেলেন তেরেসা মে  » «   ফোনালাপ ফাঁস: খন্দকার মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ  » «   নির্বাচনে এজেন্ট পাওয়া নিয়ে চিন্তায় বিএনপি  » «  

জাহান্নামের আগুনে বসিয়া হাসি পুষ্পের হাসি: হাসিনা



নিউজ ডেস্ক::আন্তর্জাতিক ভাষা দিবসের উদযাপনের আগের দিন গণভবনে ভারতীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ করছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় নিজের খোশ মেজাজে থাকার জবাবে তিনি কবিতার ভাষায় বলেন, ‘জাহান্নামের আগুনে বসিয়া হাসি পুষ্পের হাসি!’

এসময় তিস্তার পানি চুক্তি এবং চীনের বিনিয়োগ নিয়েও কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের সম্পর্ক নিয়ে উদ্বেগের কোনো কারণ নেই ভারতের। মঙ্গলবার গণভবণে ভারতীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ করার সময় প্রতিবেশী দেশটিকে এভাবেই আশ্বস্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিস্তা প্রসঙ্গ উঠতেইবলেছেন, ‘‌একটা দুঃখ আছে। দিদিমণি(মমতা বন্দোপাধ্যায়) তিস্তার পানি দিলেন না। যখন পানি চাইলাম, তখন উনি বললেন, বিদ্যুৎ দেব। আমি বললাম, তথাস্তু। যা পাওয়া যায়, তাই দিন।’‌

ভারতীয় সাংবাদিকদের অন্য এক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে চীনের বিনিয়োগ নিয়ে ভারতের উদ্বেগের কোনও কারণ নেই। বাংলাদেশের কাছ ভারত ভারতের জায়গাতেই থাকবে, চীন চীনের জায়গায়। ভারতের বন্ধুত্ব সময়ের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ। চীন তো নতুন বন্ধু।’

ভারতের ভূমিকা নিয়ে একবারই আক্ষেপ করার কারণ ঘটেছিল বলে জানিয়ে হাসিনা বলেন, ‘২০০১-এর ভোটে আমরা ভারতের সহযোগিতা পাইনি। তারা যাদের সহযোগিতা করেছিল, তারা কিছুই দেয়নি।’ তিনি এভাবেই কটাক্ষ করেন বিরোধী দল বিএনপিকে।

সামনেই সাধারণ নির্বাচন বাংলাদেশে। তাতে কি বিরোধী দল বিএনপি যোগ দেবে? ভারতীয় সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে দলের অভাব নেই। তারা না-এলেও ভোট ঠিকই হবে।’

বাংলাদেশের একটি ‘থিঙ্ক ট্যাঙ্ক’-এর আমন্ত্রণে ঢাকায় আসা ভারতীয় সাংবাদিকদের হাসিনা বলেন, ‘আমি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আপনাদের ডাকিনি। প্রধানমন্ত্রী আজ আছি, কাল না-ও থাকতে পারি। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর কন্যা হিসেবে ভারতের মানুষকে আমি প্রাণের বন্ধু বলে মনে করি।’ এসময় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় সাংবাদিকদের অবদান স্মরণ করেন তিনি।

প্রতিবেশী দেশের সাংবাদিকরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চান, তার সবসময় হাসিখুশি থাকার কারণ। উত্তরে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘ভয়ে মুখ শুকিয়ে থাকি না আমি। ১৯ বার আক্রান্ত হয়েছি। সময় যখন আসবে মরতে হবেই।’ তারপরে হেসে আবৃত্তি করেন, ‘জাহান্নামের আগুনে বসিয়া হাসি পুষ্পের হাসি!’

সূত্র: আনন্দবাজার

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: