বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ভারতীয় বিমানে ‘বোমা হুমকি’, লন্ডনে জরুরি অবতরণ  » «   যেভাবে আরবদের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা হয়ে উঠেছেন এরদোগান  » «   উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নার্সকে মেরে ফেলল বখাটে  » «   সড়কে নামাজ ঠেকাতে রাস্তায় বসে বিজেপির মন্ত্র পাঠ  » «   খুনির সঙ্গে রিফাতের স্ত্রী মিন্নির ‘সম্পর্কের তথ্য’ ফাঁস  » «   প্রাথমিকের শিক্ষক বদলির নীতিমালায় ফের পরিবর্তন।  » «   রিফাতের হত্যাকারীদের গ্রেফতারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর  » «   মুসলিম যুবককে হত্যার ঘটনায় উত্তাল ভারত, বিচারের আশ্বাস দিলেন মোদী  » «   টিম ইন্ডিয়ার কমলা জার্সি নিয়ে চলছে রাজনীতি  » «   ভারতীয় এমপির যে ভাষণে উত্তাল স্যোশাল মিডিয়া  » «   দুই প্রকৌশলীকে পেটালেন আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ নেতারা  » «   সিলেটে বিদেশী মদসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার  » «   রেল লাইন সংস্কারের দাবিতে শাহবাগে সিলেটি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধবন  » «   আসামে নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়লেন আরও এক লাখ  » «   বিশ্বনাথে ডাকাতের সঙ্গে গোলাগুলি, ৫ পুলিশ গুলিবিদ্ধ  » «  

জগন্নাথপুরে সংঘর্ষে আহত কিশোর লাইফ সাপোর্টে



Jogonnatpur3নিউজ ডেস্ক :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে পুকুরে মাছ ধরা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত কিশোর সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থেকে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এ ঘটনায় এক নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটে জগন্নাথপুর পৌর শহরের জগন্নাথপুর বড় দীঘিরপাড় গ্রামে।
পুলিশ ও এলাকাবাসি সূত্রে জানাগেছে, গ্রামের বড়দীঘি পুকুরটিতে দীর্ঘদিন ধরে মাছের চাষ করছেন একই গ্রামের বাসিন্দা আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল জলিল ময়না। গত মঙ্গলবার সকাল ১০ টার দিকে পুকুরে একটি মাছ ভেসে উঠে। ওই মাছটি ধরার চেষ্টা করে একই গ্রামের সাজু মিয়া। এ সময় আব্দুল জলিল ময়নার লোকজন বাধা দেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরই জের ওই দিন রাত ৮ টার দিকে উভয় পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে সাজু পক্ষের আতিক মিয়া (১৯) ও শিকন্দর আলী (২০) আহত হন। এ সময় মাথায় রামদার আঘাতে গুরুত্বর আহত কিশোর আতিক মিয়াকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
বর্তমানে গুরুত্বর আহত কিশোর আতিক মিয়া হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে থেকে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে জানাগেছে। এ ঘটনায় আহত আতিক মিয়ার পিতা লাল মিয়া বাদি হয়ে প্রতিপক্ষের আব্দুল জলিল ময়নাসহ ৭ জনকে আসামি করে জগন্নাথপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পরিপ্রেক্ষিতে মামলার আসামি একই গ্রামের লেবু মিয়ার স্ত্রী মমিনা বেগমকে (৩০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতকে গতকাল বুধবার সুনামগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে এ মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা জগন্নাথপুর থানার এস আই কবির উদ্দিন জানান, এ মামলার অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া ডাক্তার জানিয়েছেন লাইফ সাপোর্টে থাকা আতিকের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা খুবই কম।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: