বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

ছাত্রলীগের নৈরাজ্যের কারণে এইচএসসি পরীক্ষায় ফল বিপর্যয়



2. bslনিউজ ডেস্ক::
শিক্ষাঙ্গনে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা নৈরাজ্য সৃষ্টি করার কারণে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ফল বিপর্যয় ঘটেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন। সোমবার দুপুরে বিএনপির নয়াপল্টনস্থ দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

“বিরোধীদলের নৈরাজ্যের কারণে এইচএসসিতে প্রত্যাশিত ফল আসেনি” সরকারের পক্ষ থেকে করা এমন মন্তব্য প্রত্যাখ্যান করে রিপন বলেন, সরকার দলীয় ক্যাডাররা (ছাত্রলীগ) শিক্ষাঙ্গানে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট করেছে। আর এ কারণেই ফলাফলের এ দশা হয়েছে।

রিপন বলেন, শুধু রাজনৈতিক বিবেচনায় পরীক্ষার ফল খারাপ হয় না। রেজাল্টে দেখা গেছে অনেক পরীক্ষার্থী সব বিষয়ে পাশ করছে শুধু ইংরেজীতে ফেল করছে। তাহলে কি রাজনৈতিক প্রভাব শুধু ইংরেজীর ওপর পড়েছে।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক প্রভাব অর্থনৈতিক, সামাজিক, শিক্ষা, কূটনৈতিক সব ক্ষেত্রে পড়ে। সরকারের সৎ ইচ্ছা থাকলে বিরোধী রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান করতে পারতো। পরীক্ষার সময়সূচি পরিবর্তন করে পিছিয়ে নিতে পারত।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়ে বিএনপির মুখপাত্র বলেন, এটি একটি ভাল উদ্যোগ। তার এ বক্তব্যকে আমরা স্বাগত জানাই। আগে ছাত্র সংসদ ছিল। সেখানে ভবিষৎ নেতৃত্ব তৈরি হতো। সে পথ আজ বন্ধ। ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করার জন্য ছাত্র সংসদ নির্বাচন বন্ধ করে রেখেছে সরকার। তাই সরকারের কাছে আহ্বান জানাই অনতিবিলম্বে ছাত্রসংসদের ব্যবস্থা করার।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের শিশু ও তাদের বেশি সমালোচনা না করতে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের এমন বক্তব্যর সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ছাত্রলীগ শিক্ষকদের মেরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে বের করে দেয়। ছাত্রাবাস পুড়িয়ে দেয়, ধর্ষণে সেঞ্চুরী করে এগুলো কি শিশুদের কাজ। ছাত্রলীগের অপকর্মের জন্য শেখ হাসিনাও তার নাম ছাত্রলীগ থেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।
বিএনপির মুখপাত্র আরও বলেন, ছাত্রলীগ সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের বিতাড়িত করেছে। তাদের স্বাভাবিক কর্মকাণ্ড করতে দেয় না। এতেই ছাত্র রাজনীতি রুগ্ন হয়ে পড়ছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: