মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের ‘বিরোধিতায়’ ১১ জেলায় বাস চালানো বন্ধ  » «   নগরীতে ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে পিয়াজ, ক্রেতাদের দীর্ঘ লাইন  » «   বলিভিয়ার অশান্তির নেপথ্যে ‘সাদা সোনা’, যা পরবর্তী বিশ্বের আকাঙ্ক্ষিত বস্তু  » «   আবরার হত্যা: পলাতক চারজনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি  » «   ‘অপকর্মে’ সংকুচিত দ. কোরিয়ার শ্রমবাজার  » «   ৩০০ টাকার পিয়াজ সরকারের দিনবদলের সনদ: ডাকসু ভিপি নুর  » «   অযোধ্যা রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করছে মুসলিমরা  » «   ভাঙছে শরিক দল সঙ্কটে ঐক্যফ্রন্ট  » «   হলি আর্টিসান হামলা: রায় ২৭ নভেম্বর  » «   চাকা ফেটেছে নভোএয়ারের, ভাগ্যগুণে বেঁচে গেলেন ৩৩ যাত্রী  » «   হাত-পা ছাড়াই মুখে ভর করে লিখে পিইসি দিচ্ছে লিতুন  » «   প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া বিএনপির চিঠিতে আবরার হত্যার বর্ণনা  » «   ১৫০ যাত্রী নিয়ে মাঝ আকাশে বিপাকে ভারতীয় বিমান, রক্ষা করল পাকিস্তান  » «   বিমান ছাড়াও ট্রেন, ট্রাক, বাসে করে আসছে পেঁয়াজ: সিলেটে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   চুক্তির তথ্য জানতে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিল বিএনপি  » «  

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথ: নতুন দ্বার উন্মোচিত হতে যাচ্ছে



অনলাইন ডেস্ক:: ঢাকা থেকে সরাসরি কক্সবাজারে রেল সংযোগ ছিল দেশের ভ্রমণ-প্রিয় মানুষদের অনেক দিনের চাওয়া। অবশেষে সেটা সত্যি হতে যাচ্ছে। চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত তৈরি হতে যাচ্ছে রেলপথ, এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ ইতোমধ্যেই চালু থাকায় এই নতুন রেলপথ চালু হলে ঢাকা থেকে সরাসরি কক্সবাজারে যাওয়া যাবে।

আগামী বছর ২০১৮ সালের মার্চ থেকেই শুরু হবে কর্মযজ্ঞ। দোহাজারী-রামু-কক্সবাজার ও ঘুমধুম রেললাইন প্রকল্পের আওতায় এর কাজ শুরু হবে এবং ২০২২ সালে কাজ শেষ হবে। জানা যায় যে, এ প্রকল্পের আওতায় কক্সবাজারে তৈরি হবে ঝিনুকের আদলে দৃষ্টিনন্দন একটি রেলওয়ে স্টেশন। এই রেল স্থাপনা ঘিরে পর্যটকদের জন্য গড়ে উঠবে আকর্ষণীয় হোটেল, বাণিজ্যিক ভবন, বিপণি-বিতান ও বহুতলবিশিষ্ট আবাসিক ভবন।

বিভিন্ন বিচারেই এই রেলপথটি বাংলাদেশের আর দশটি রেলপথের তুলনায় ভিন্ন। আঁকা-বাঁকা পাহাড়ি পথ বেয়ে ১০১ কিলোমিটার রাস্তা পার করে চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার যাবে এই রেলপথটি। শুধু কক্সবাজারই নয়, এর মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামের এলাকাতেও যাওয়া সহজ হয়ে যাবে। রেল থেকে নেমে বাকিটুকু রাস্তা বাসে যাওয়া সম্ভব বা অন্য কোন ব্যবস্থায়।

এই রেলের গুরুত্ব আরও বেশি হতে যাচ্ছে কারণ এটা একই সাথে আমাদেরকে ট্রান্স-এশিয়ান রেলওয়ের সাথে যুক্ত করবে। রামু থেকে একটা লাইন যাবে কক্সবাজারে, অন্য একটি লাইন রামু হয়ে মিয়ানমারের ঘুমধুন পর্যন্ত। এর ফলে আমরা মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, চীন, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, কম্বোডিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে স্থলপথে যুক্ত হবার সুযোগ পেয়ে যাব।

এই বিষয়টি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থানের জন্য দারুণ উপকারী হবে, আর ভ্রমণ-পিয়াসুদের কথা তো বলার বাইরে। বিমানের উচ্চ ভাড়ার কারণে অনেকেই দূর দেশগুলোতে যেতে পারেন না, তাদের জন্য এটা হবে একটা অসাধারণ সুযোগ। আর রেলপথে দেশ-বিদেশ ঘোরার যে অসাধারণ মজা, সেটা তো বলার অপেক্ষা রাখে না।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: