মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ইসি প্রশ্নবিদ্ধ ভোট করতে চায় না: সিইসি  » «   বিয়ানীবাজারে ‘পুলিশ প্রহরায়’ নাহিদের প্রচারণা!  » «   হবিগঞ্জে ধানের শীষ পেলেন রেজা কিবরিয়া  » «   কাতারে কোরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম সিলেটের সাইয়্যেদ  » «   প্রিয়ডটকম-বিএনপিনিউজ২৪-সিএনএনবিডি২৪ সহ ৫৮ নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ  » «   আজ থেকে শুরু জাতীয় ভ্যাট দিবস ও ভ্যাট সপ্তাহ  » «   নিজেকে ট্রাম্পকন্যা দাবি এক পাকিস্তানি তরুণীর!  » «   প্রতীক বরাদ্দ আজ, শঙ্কা নিয়ে শুরু হচ্ছে ভোটযুদ্ধ  » «   আজ খালেদা জিয়ার ভাগ্য নির্ধারণ  » «   নৌকা প্রতীকে লড়বেন জাতীয় পার্টির যে ২৯ প্রার্থী  » «   জাপা পেলো ৩০ আসন, উন্মুক্ত ১৩২  » «   মেয়র পদে থেকেই সংসদ নির্বাচন করা যাবে: হাইকোর্ট  » «   সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি প্রবেশ করছে: প্রধান বিচারপতি  » «   প্রার্থিতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে হিরো আলম  » «   যেসব আসনে ধানের শীষের প্রার্থী পরিবর্তন  » «  

গ্রাহকের তথ্য পাচার: জনপ্রিয়তা কমছে ফেসবুকের



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: কমতে শুরু করেছে বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের জনপ্রিয়তা। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র এবং জার্মানিতে চালানো এক জনমত জরিপে দেখা গেছে, ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সংক্রান্ত বিষয়ে দিন দিন ফেসবুকের ওপর আস্থা হারাচ্ছেন ব্যবহারকারীরা। গ্রাহকের তথ্য পাচার ইস্যুতে ব্রিটেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদপত্রগুলোতে ক্ষমা চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দেয়ার পর আস্থাহীনতা বেড়েছ আরও কয়েকগুণ।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, অর্ধেকেরও বেশি মার্কিন নাগরিক ব্যক্তিগত তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষায় ফেসবুককে নিরাপদ মনে করেন। অন্যদিকে, জার্মানির সবচেয়ে জনপ্রিয় সাপ্তাহিক পত্রিকা বিল্ড আম সোনতাগের মতে, শতকরা ষাট জন জার্মান নাগরিকই ফেসবুক এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে গণতন্ত্রের জন্য ক্ষতিকর বলে মনে করেন।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি গ্রাহকদের ‘বিশ্বাসভঙ্গের’ বিষয়টি স্বীকার করে নিয়ে ব্রিটেনের অবজারভার এবং যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন পোস্টের মতো বড় বড় পত্রিকায় ক্ষমা চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ।

তিনি বলেন, ‘আপনাদের তথ্যের সুরক্ষা নিশ্চিত করা আমাদের কর্তব্য। আমরা যদি সেটা না পারি, তবে আমাদের তথ্য সংরক্ষণের অধিকার নেই।’

সাম্প্রতিক সময়ে ইউরোপ এবং আমেরিকার দেশগুলোর সরকারের সূক্ষ্ম তদন্তের সম্মুখীন হচ্ছে ফেসবুক। আর মার্ক জাকারবার্গ চেষ্টা করছেন তার প্রতিষ্ঠানের সুনাম ফিরিয়ে আনতে।

মূলতঃ ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তথ্য বিক্রির অভিযোগ ওঠার পরই তদন্ত শুরু হয় ফেসবুকের বিরুদ্ধে। ফেসবুকের পাচার করা তথ্য ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট হতে সহায়তা করেছিল।

বিশ্বাস ভঙ্গ
২০১৪ সালে একজন মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের তৈরি একটি অ্যাপের মাধ্যমে ফেসবুক গ্রাহকদের ব্যক্তিগত তথ্য পাচার করেছিল বলেও স্বীকার করে নেন জাকারবার্গ।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘এটা ছিল এক ধরনের বিশ্বাসঘাতকতা। আমি দুঃখিত এবং আমরা বর্তমানে এমন কিছু করছি না।’
উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে #DeleteFacebook হ্যাশট্যাগটি ইন্টারনেটে ভাইরাল হলে, শেয়ার বাজারে ১৪ শতাংশ লোকসানের সম্মুখীন হয় ফেসবুক।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: