বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
২৭ জুলাই খালেদার মুক্তি দাবিতে জাতিসংঘের সামনে বিক্ষোভ  » «   মৌসুমি বায়ু দুর্বল, বর্ষার বর্ষণ নেই  » «   সিলেটে দুর্ঘটনায় কলেজ ছাত্রের মৃত্যু  » «   হরিণাকুণ্ডুতে র‌্যাবের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত সদস্য নিহত  » «   পুলিশের সোর্স মামুন মাদক ব্যবসায়ীর স্ত্রীকে নিয়ে উধাও  » «   ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা কিশোরি, সালিসে জরিমানার টাকা ভাগাভাগি!  » «   আইনমন্ত্রীর বাসায় প্রধানমন্ত্রী  » «   ‘এদেরকে নিয়েই মান্না সাহেব দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করিবেন’  » «   রাশিয়ায় বিশ্বকাপ দেখতে গিয়ে পুলিশের জালে বাংলাদেশী যুবক  » «   বিদেশ ও জেল থেকে আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণ করছে শীর্ষ সন্ত্রাসীরা  » «   বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রাষ্ট্রদূত মনোনীত রবার্ট মিলার  » «   বেবী নাজনীন অসুস্থ, হাসপাতালে ভর্তি  » «   কোটা আন্দোলন: ছাত্রলীগের হুমকিতে ক্যাম্পাস ছাড়া চবি শিক্ষক  » «   ভেবেই ক্লাব বদল করেছেন রোনালদো  » «   ভারতে নিষিদ্ধ, অন্য দেশে পুরস্কৃত যেসব ছবি  » «  

‘গোপন চুক্তি’ করতে সৌদিতে নওয়াজ!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক::নিজ দেশের ক্ষমতাধর সেনাবাহিনীর সঙ্গে গোপন চুক্তি করতে শনিবার পাকিস্তান থেকে সৌদি আরবের উদ্দেশে রওনা হন দেশটির পদচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। খবর এনডিটিভির।

এনডিটিভি জানায়, শনিবার সন্ধ্যায় সৌদি এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে করে রিয়াদের উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। সেখানে সৌদি রাজা সালমান এবং ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদের সঙ্গে দেখা করার কথা রয়েছে তার। পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন দল নওয়াজের পিএমএল-এন এই সাক্ষাতকে ‘গুরুত্বপূর্ণ বিষয়’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।

গত জুলাইয়ের ২৮ তারিখে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ে পনামা পেপার্স দুর্নীতির মামলায় তাকে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।

ওই একই ইস্যুতে তিনটি মামলা ঝুলছে নওয়াজ পরিবারের সদস্যদের মাথার ওপর।

মূলতঃ পানামা পেপার্স ইস্যুতে নওয়াজের নাম সামনে আসার পরই সুতোয় ঝুলছে পাকিস্তানের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনৈতিক দল পিএমএল-এন নেতার ভাগ্য। দোষী সাব্যস্ত হলে জেলে যেতে হতে পারে নওয়াজকে।

অবশ্য শরিফ পরিবারের দাবি, ওই মামলাগুলো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

উল্লেখ্য, নওয়াজের ভাই এবং পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফও এই মূহুর্তে এক ‘সরকারি সফরে’ অবস্থান করছেন সৌদি আরবে। বুধবার সৌদি সরকারের পাঠানো এক বিশেষ বিমানে সেখানে যান শাহবাজ। ধারণা করা হচ্ছে, বড় ভাইয়ের জন্য ক্ষেত্র তৈরি করতেই আগেভাগে সৌদি গেছেন তিনি।

বিরোধীদলগুলো বলছে, শরিফ পরিবার বর্তমানে বেশ কয়েকটি মামলার সম্মুখীন এবং রাজনৈতিকভাবেও তারা চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। তাই পাকিস্তানে সুবিধাজনক অবস্থায় ফিরে যেতে তাদের এখন সৌদি রাজপরিবারের সহায়তা প্রয়োজন।

নওয়াজ এবং তার ভাইয়ের সৌদি সফর সম্পর্কে পাকিস্তানি সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা সৈয়দ খুরশিদ শাহ বলেন, ‘অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে তারা ক্ষমা পাওয়ার পথ খুঁজছে এবং জাতীয় পর্যায়ে একটি চুক্তি আসন্ন। যদি সত্যিই তেমন কিছু হয়, তবে আমাদের আদালতগুলো বন্ধ করে বাড়ি চলে যেতে হবে।’

দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিদেশিদের নাক গলানোকে দুঃখজনক হিসেবেও আখ্যা দেন তিনি।

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির নেতা সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান জানান, শরিফ পরিবারকে কোনো রকম ক্ষমা প্রদর্শন করা হলে আন্দোলনে যাবে তার দল।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০০০ সালে নওয়াজ শরিফকে হটিয়ে জেনারেল পারভেজ মোশাররফ দেশটির ক্ষমতা দখল করলে শরিফ পরিবারকে নিরাপদে তাদের দেশে পৌঁছানোর দালালি করেছিল সৌদি আরব।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: