শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল সংসদে ফেরত পাঠানোর আহ্বান  » «   কোনো বইকে নিষিদ্ধ করা ঠিক নয় : অর্থমন্ত্রী  » «   সিলেটে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে লাল কার্ড প্রদর্শন ও মানববন্ধন  » «   ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠক হবে প্রধানমন্ত্রীর  » «   কাশ্মীর বিদ্রোহী নেতার নামে পাকিস্তানের ডাকটিকিটি প্রকাশ  » «   সংসদ নির্বাচনে হুমকি ‘সাইবার ক্রাইম’, গুজব ঠেকাতে সজাগ পুলিশ  » «   তাঞ্জানিয়ায় ফেরি ডুবি, নিহত বেড়ে ১৩৬  » «   আইনগত অনুমোদন পেলেই সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার: সিইসি  » «   সরকারি চাকরিজীবীদের কার জন্য কত টাকা গৃহঋণ  » «   গণেশের ছবি দিয়ে বিজ্ঞাপন: হিন্দুদের কাছে ট্রাম্পের দলের দুঃখ প্রকাশ  » «   প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলো কোটা বাতিলের সুপারিশ  » «   রেলের আধুনিকায়নে দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প  » «   কেন মুনকে বিশেষ সেই ‘পবিত্র পর্বতে’ নিয়ে গেলেন কিম?  » «   সুখোই কিনলে ভারতকেও নিষেধাজ্ঞায় পড়তে হবে!  » «   প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কের পথে লন্ডন পৌঁছেছেন  » «  

‘গোপন চুক্তি’ করতে সৌদিতে নওয়াজ!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক::নিজ দেশের ক্ষমতাধর সেনাবাহিনীর সঙ্গে গোপন চুক্তি করতে শনিবার পাকিস্তান থেকে সৌদি আরবের উদ্দেশে রওনা হন দেশটির পদচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। খবর এনডিটিভির।

এনডিটিভি জানায়, শনিবার সন্ধ্যায় সৌদি এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে করে রিয়াদের উদ্দেশে রওনা দেন তিনি। সেখানে সৌদি রাজা সালমান এবং ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদের সঙ্গে দেখা করার কথা রয়েছে তার। পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন দল নওয়াজের পিএমএল-এন এই সাক্ষাতকে ‘গুরুত্বপূর্ণ বিষয়’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে।

গত জুলাইয়ের ২৮ তারিখে পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ে পনামা পেপার্স দুর্নীতির মামলায় তাকে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য অযোগ্য ঘোষণা করা হয়।

ওই একই ইস্যুতে তিনটি মামলা ঝুলছে নওয়াজ পরিবারের সদস্যদের মাথার ওপর।

মূলতঃ পানামা পেপার্স ইস্যুতে নওয়াজের নাম সামনে আসার পরই সুতোয় ঝুলছে পাকিস্তানের সবচেয়ে প্রভাবশালী রাজনৈতিক দল পিএমএল-এন নেতার ভাগ্য। দোষী সাব্যস্ত হলে জেলে যেতে হতে পারে নওয়াজকে।

অবশ্য শরিফ পরিবারের দাবি, ওই মামলাগুলো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

উল্লেখ্য, নওয়াজের ভাই এবং পাঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শাহবাজ শরিফও এই মূহুর্তে এক ‘সরকারি সফরে’ অবস্থান করছেন সৌদি আরবে। বুধবার সৌদি সরকারের পাঠানো এক বিশেষ বিমানে সেখানে যান শাহবাজ। ধারণা করা হচ্ছে, বড় ভাইয়ের জন্য ক্ষেত্র তৈরি করতেই আগেভাগে সৌদি গেছেন তিনি।

বিরোধীদলগুলো বলছে, শরিফ পরিবার বর্তমানে বেশ কয়েকটি মামলার সম্মুখীন এবং রাজনৈতিকভাবেও তারা চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। তাই পাকিস্তানে সুবিধাজনক অবস্থায় ফিরে যেতে তাদের এখন সৌদি রাজপরিবারের সহায়তা প্রয়োজন।

নওয়াজ এবং তার ভাইয়ের সৌদি সফর সম্পর্কে পাকিস্তানি সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা সৈয়দ খুরশিদ শাহ বলেন, ‘অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে তারা ক্ষমা পাওয়ার পথ খুঁজছে এবং জাতীয় পর্যায়ে একটি চুক্তি আসন্ন। যদি সত্যিই তেমন কিছু হয়, তবে আমাদের আদালতগুলো বন্ধ করে বাড়ি চলে যেতে হবে।’

দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিদেশিদের নাক গলানোকে দুঃখজনক হিসেবেও আখ্যা দেন তিনি।

পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির নেতা সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খান জানান, শরিফ পরিবারকে কোনো রকম ক্ষমা প্রদর্শন করা হলে আন্দোলনে যাবে তার দল।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০০০ সালে নওয়াজ শরিফকে হটিয়ে জেনারেল পারভেজ মোশাররফ দেশটির ক্ষমতা দখল করলে শরিফ পরিবারকে নিরাপদে তাদের দেশে পৌঁছানোর দালালি করেছিল সৌদি আরব।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: