বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
যেভাবে আরবদের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা হয়ে উঠেছেন এরদোগান  » «   উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নার্সকে মেরে ফেলল বখাটে  » «   সড়কে নামাজ ঠেকাতে রাস্তায় বসে বিজেপির মন্ত্র পাঠ  » «   খুনির সঙ্গে রিফাতের স্ত্রী মিন্নির ‘সম্পর্কের তথ্য’ ফাঁস  » «   প্রাথমিকের শিক্ষক বদলির নীতিমালায় ফের পরিবর্তন।  » «   রিফাতের হত্যাকারীদের গ্রেফতারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর  » «   মুসলিম যুবককে হত্যার ঘটনায় উত্তাল ভারত, বিচারের আশ্বাস দিলেন মোদী  » «   টিম ইন্ডিয়ার কমলা জার্সি নিয়ে চলছে রাজনীতি  » «   ভারতীয় এমপির যে ভাষণে উত্তাল স্যোশাল মিডিয়া  » «   দুই প্রকৌশলীকে পেটালেন আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ নেতারা  » «   সিলেটে বিদেশী মদসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার  » «   রেল লাইন সংস্কারের দাবিতে শাহবাগে সিলেটি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধবন  » «   আসামে নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়লেন আরও এক লাখ  » «   বিশ্বনাথে ডাকাতের সঙ্গে গোলাগুলি, ৫ পুলিশ গুলিবিদ্ধ  » «   প্রাথমিকে চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের জন্য সুখবর  » «  

গরীবের টাকা খাওয়ার তালিকায় সুনামগঞ্জর কোটিপতিরা!



নিউজ ডেস্ক:: সরকারের গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচী ‘কাজের বিনিময়ে টাকা’র (কাবিটা) সুবিধাভোগীর তালিকায় রয়েছেন লাখপতি থেকে শুরু করে কোটিপতিরা। সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলায় কাবিটা কর্মসূচী ২০১৮-২০১৯ এর আওতায় দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণের উপকারভোগীদের নামের তালিকায় এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়, পিআইও দপ্তর কাবিটা’র আওতায় ওই উপজেলার ১৭টি গৃহহীন পরিবারের জন্য ২ লাখ ৫৮ হাজার টাকা বরাদ্দ করে। কিন্তু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মুক্তাদির হোসেন ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আজিজুর রহমান তালিকা ভালোভাবে যাচাই-বাছাই না করেই ১৩ মে তালিকাটি অনুমোদন করেন।

তবে অনুমোদিত সেই তালিকায় ১৭টি পরিবারের মধ্যে ৫টি পরিবার ছাড়া সবাই লাখপতি থেকে শুরু করে কোটিপতি ব্যক্তি বলে অভিযোগ পওয়া যায়। তালিকা অনুসারে, এসব ধনী ব্যক্তিদের অন্যতম হলেন ১নং আটগাঁও ইউপি’র ফরিদপুরের মামুদনগর গ্রামের আবু নছর মিয়ার বিত্তশালী ছেলে মতিউর রহমান। তিনি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম আজাদের জামাতা।

এছাড়াও ওই গ্রামেরই মনোয়ার হোসেনের ছেলে ইয়াহিয়া আলম, উজান ইয়ারাবাদ গ্রামের উকিল আলীর ছেলে কোটিপতি সালাম মিয়া ও ইউপি সদস্য বশির মিয়ার আপন ভাই আব্দুল হামিদের নাম পাওয়া যায়। এদিকে বাহাড়া ইউনিয়নের ডুমরা গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অভিমূন্য দাসের ছেলে চিন্ময় দাস, মেঘনাপাড়া গ্রামের প্রাণধন দাসের স্ত্রী শ্রীমতি বালা দাস, ঘুঙ্গিয়ারগাঁও গ্রামের আবু তাহেরের স্ত্রী ইমরানা বেগম অন্যতম।

অন্যদিকে হবিবপুর ইউনিয়নের আনন্দপুর গ্রামের হামিদ মিয়ার স্ত্রী হোসেনা বেগমের কোনো জমি নাই, তার নাম দিয়ে আপন ভাসুরের ছেলে ধনী ব্যক্তি হুমায়ুন মিয়ার পিতার জায়গায় নতুন ঘরটি তৈরির ব্যবস্থা করার অভিযোগে উঠেছে। এ বিষয়ে ৩ জুন হুমায়ুন মিয়ার ভুক্তোভোগী ফুফু অসহায় মমিনা বেগম বাদি হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি লিখিতভাবে অভিযোগ করেন। এমন অভিযোগের কথা স্বীকার করে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আজিজুর রহমান বলেন, ‘তালিকা তৈরি করার সময় সঠিকভাবে যাচাই না করার ফলে একটু ত্রুটি হয়েছে। পুনরায় যাচাই-বাছাই করে তালিকা প্রণয়ন করা হবে।’

সূত্র: ডেইলি স্টারের

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: