সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দ্বিতীয় দিনের সাক্ষাৎকার চলছে: ভিডিও কনফারেন্সে আছেন তারেক রহমান  » «   নির্বাচনে রোহিঙ্গাদের সম্পৃক্ততা প্রতিরোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ইসির নির্দেশনা  » «   চিকিৎসা বিষয়ে খালেদার রিটের আদেশ আজ  » «   তারেক রহমান মনোনয়ন প্রত্যাশীদের কাছে যা জানতে চাচ্ছেন  » «   চ্যারিটেবল মামলায় দণ্ডের বিরুদ্ধে খালেদার আপিল  » «   সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলা; শিশু ও নারীসহ নিহত ৪৩  » «   থার্টি ফার্স্ট নাইট উদযাপনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা  » «   দু’দিনের মধ্যেই খাশোগি হত্যার পরিপূর্ণ তদন্ত রিপোর্ট : ট্রাম্প  » «   বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন তারেক  » «   বাড়িতে বাবার লাশ, পিএসসি পরীক্ষা দিতে গেল মেয়ে  » «   প্রবাসী স্ত্রীকে লাইভে রেখে সিলেটের স্বামীর আত্মহত্যা!  » «   খাশোগি হত্যা: যুক্তরাষ্ট্র-সৌদির নীল নকশা ও তুরস্কের উদ্দেশ্য  » «   দুই নম্বরি কেন ১০ নম্বরি হলেও ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে থাকবে: ড. কামাল  » «   বোরকার বিরুদ্ধে সৌদি নারীদের অভিনব প্রতিবাদ  » «   আজ থেকে শুরু হচ্ছে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষা  » «  

গজনিতে তালেবান সংঘর্ষ, নিহত বেড়ে ৩০০



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: আফগানিস্তানের কৌশলগত শহর গজনিতে তালেবান সদস্যদের তীব্র আক্রমণের মুখে নিরাপত্তা বাহিনীর অন্তত ১০০ সদস্য প্রাণ হারিয়েছে। এতে আরও ২০ থেকে ৩০ জন বেসামরিক লোকের প্রাণহানী ঘটেছে। ফলে চতুর্থ দিনে এসে শহরটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩০০’তে দাঁড়িয়েছে।

সোমবার দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে কাতার ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা এ তথ্য জানিয়েছে। এদিন গজনিতে সরকার ও তালেবানদের চতুর্থ দিনের মতো সংর্ঘষ হয়।

খবরে বলা হয়, তালেবান সদস্যদের বিরুদ্ধে লড়তে গজনি প্রদেশের রাজধানীতে সরকার আরও শক্তি বৃদ্ধি করেছে। এছাড়াও তালেবান ঘাঁটিকে লক্ষ্য করে বিমান হামলার প্রস্তুতিও নিয়েছে সরকার।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী তারিক শাহ বাহরামি সংবাদমাধ্যমকে বলেন,১০০ জনের মতো নিরাপত্তাকর্মী তালেবানদের বিরুদ্ধে লড়তে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছেন। আরো ২০ থেকে ৩০ জন বেসামরিক নিহত হওয়ায় বাস্তবে প্রাণহানির সংখ্যা বেশি।

তবে সংঘর্ষে শত্রুপক্ষের ১৯৪ জন যোদ্ধাও নিহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে ১২ জন প্রধান কমান্ডার রয়েছেন। এছাড়াও বিমান হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন ৯৫ জন তালেবান যোদ্ধা। খবরে বলা হয়, প্রদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রায় বিচ্ছিন্ন। দেশটির সরকারি কর্মকর্তারাও শহরের পরিস্থিতি সম্পর্কে তেমন কোনো মন্তব্য করছেন না। ফলে যে কোন তথ্য যাচাই করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, চলতি বছরের জুনে সরকারের সঙ্গে যুদ্ধ বিরতি ঘোষণার পর তালেবানদের এটিই সবচেয়ে বড় কৌশলগত অভিযান। তালেবান সদস্যরা গজনিতে হামলার কারণে বিদ্রোহীদের ওপর শান্তি আলোচনার চাপ বাড়ছে।

কাবুল-কান্দাহার মহাসড়কের পাশে গজনি শহর অবস্থিত। এছাড়াও শহরটি কাবুল ও বিদ্রোহীর নিয়ন্ত্রিত দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশ পথ।গত ১০ আগস্ট থেকে গজনি শহরে তালেবান যোদ্ধারা হামলা শুরু করে। ওইদিন থেকে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে তাদের দফায় দফায় সংর্ঘষে এতো সংখ্যক মানুষের প্রাণহানি ঘটলো।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: