বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

খালেদাকে লন্ডনে পাঠানোর দাবি বি. চৌধুরীর



নিউজ ডেস্ক::বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সর্বোচ্চ সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিকল্পধারার সভাপতি ও সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী। তিনি বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে দায় সরকারের। সরকারকে মনে রাখতে হবে তিনি দেশের একজন সম্মানিত প্রবীণ নাগরিক। দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলেরও প্রধান।’

রবিবার (১০ জুন) রাজধানীর তোপখানা শিশু কল্যাণ মিলনায়তনে বাংলাদেশ জনদল আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

বি. চৌধুরী বলেন, ‘আজ (রবিবার) পত্রিকায় দেখলাম, খালেদা জিয়ার চিকিৎসকরা বলেছেন, তিনি (বেগম জিয়া) ৭ মিনিট অজ্ঞান ছিলেন। এ কথা ঠিক হয়ে থাকলে তার নিশ্চয়ই টিআইএ হয়েছিল। অর্থাৎ সাময়িকভাবে তার মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল কমে গিয়েছিল। এই ধরনের রোগীর ভবিষ্যতে ব্রেন স্ট্রোক বা প্যারালাইসিস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। সেহেতু এই পর্যায়ে সর্বোত্তম নিউরোলজিক্যাল সেন্টারে তার চিকিৎসা হওয়া উচিত।’

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘যেহেতু খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী এবং বিরোধী দলের নেতা ছিলেন। সুতরাং অন্য বিবেচনা বাদ দিয়ে শুধু রাজনৈতিক ও সামাজিক বিবেচনায় তার সঠিক চিকিৎসা হওয়া উচিত।’ তিনি আরও বলেন, ‘প্রয়োজন হলে সর্বোত্তম চিকিৎসার জন্য তাকে (খালেদা জিয়া) পৃথিবীতে এই ধরনের রোগের জন্য শ্রেষ্ঠতম নিরাময় কেন্দ্রে পাঠানো উচিত। এই হিসেবে আমি তাকে লন্ডনের ইনস্টিটিউট অব নিউরোলজি কুইন্স স্কয়ার অথবা লন্ডনের হ্যামার স্মিথ হাসপাতালের মতো নিরাময় কেন্দ্রে পাঠানোর দাবি জানাবো।’

তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও মানবতা যেখানেই সঙ্কটে পড়বে আমরা সেখানেই কথা বলবো। প্রতিবাদ করবো। সেটা কারো পক্ষে বা বিপক্ষে গেলো সেটি বড় বিষয় নয়।’

বি. চৌধুরী বলেন, ‘বিরোধী দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে জেলখানায় আটক রাখা হয়েছে। তিনি প্রশ্ন করে বলেন, এই পরিস্থিতিতে কী করে একটি বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন হবে?’

সাবেক এই বিএনপি নেতা বলেন, ‘তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রশ্ন উঠলে এই সরকারের মন্ত্রীরা বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার সংবিধানে নাই। অথচ তারাই মাত্র ১৫ মিনিটে দেশে একদলীয় শাসন কায়েম করেছিলেন।’

যুক্তফ্রন্ট চেয়ারম্যান বলেন, ‘অন্যদিকে আমি যখন সংসদে উপনেতা ছিলাম সেসময় ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর একদিনে তাদের (আওয়ামী লীগ) দাবি বাস্তবায়ন করে তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা করি এবং মাত্র চার মাসের মধ্যে নতুন নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করেছিলাম।’

তিনি অংশগ্রহণমূলক ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে জাতীয় নির্বাচনের ১০০ দিন পূর্বে সংসদ ও মন্ত্রীসভা ভেঙ্গে দিয়ে নির্দলীয় সরকার বা জাতীয় সরকার গঠনের আহ্বান জানান।

জনদল সভাপতি এম শাহজাহানের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব মাহবুবুর রহমান জয় চৌধুরী, বক্তব্য রাখেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জেএসডি সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, লেবার পার্টি মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদী, সোনার বাংলা পার্টির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ হারুন-অর-রশিদ, জনদলের ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাশক আমিনুল ইসলাম, যুগ্ম মহাসচিব সেলিম আহমেদ, হারুনুর রশিদ, মাওলানা সাইদুর রহমান প্রমুখ।

জেএসডি সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন বলেন, ‘অন্য দেশের সনদ নিয়ে যারা দেশ পরিচালনা করতে চান তাদের দিয়ে আর যাই হোক দেশের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে না। পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজন গণআন্দোলন।’

তিনি বলেন, ‘দশ বছরে কারা শেয়ারবাজার লুট করেছে, হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করেছে, তাদের গুলি করে হত্যার কোনো ব্যবস্থা নেই। অথচ দশটা ইয়াবার ব্যবসায়ী বা বহনকারীদের গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে।’

বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ‘তাকে যে নির্জন কারাবাসে রাখা হয়েছে এটা এক ধরনের নির্যাতন। সেখানে তিনি দিনদিন অসুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। সুচিকিৎসাও দেয়া হচ্ছে না। তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। সেজন্য সরকারকে দায়দায়িত্ব বহন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা খবর পেয়েছি তিনি মাইল্ড স্ট্রোকে আক্রান্ত। সঠিক চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। আমরা সরকারকে বলবো, তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। তাকে মুক্তি দেয়ার ব্যবস্থা করুন।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: