শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পাবলিক পরীক্ষার সব ফি দেবে সরকার  » «   বাচ্চারা সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে ইভিএম, দাবি লালুপুত্রের  » «   আগামীকাল প্রাথমিকের প্রথম ধাপের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা  » «   পরাজিত হওয়া মানেই হার নয়: মমতা  » «   কুলাউড়ায় ওজন বাড়াতে চিংড়িতে বিষাক্ত জেলি!  » «   শতবর্ষী বৃদ্ধাকে ধর্ষণ: ‘আমাকে ছেড়ে দাও, আমি রোজা রাখছি’  » «   কিছুটা সময় লাগলেও ইসরাইল-আমেরিকার পতন অনিবার্য: ধর্মীয় নেতা  » «   মেয়াদোত্তীর্ণ সেমাই ও অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে খাবার তৈরি: সিলেটে ওয়েল ফুডকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা  » «   একক দল হিসেবেই ম্যাজিক ফিগারে মোদির বিজেপি!  » «   পারিবারিক কলহে সৎ মাকে কুপিয়ে জখম করেছে ছেলে  » «   রাজস্ব কর্মকর্তা হিসেবে ১০ হাজার শিক্ষার্থীকে নিয়োগ দেয়া হবে: অর্থমন্ত্রী  » «   পবিত্র কোরআন কেটে ভেতরে ইয়াবা পাচার, ৩ রোহিঙ্গা আটক  » «   গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে একই পরিবারের চার জন নিহত  » «   খালেদার কারামুক্তি, এবারও ‘হ্যান্ডল’ করতে পারেনি বিএনপি!  » «   বালিশ মাসুদের খোলা চিঠি  » «  

খাদিজা দিলেন বর্ণনা, বদরুল বললেন সুখে থেকো



‘আমার শাস্তি হোক, তুমি সুখে থেকো। … আমি মিথ্যা বলি না। তুমিও (খাদিজা) সত্য কথা বলো।’

আজ রোববার দুপুরে সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতের বিচারক সাইফুজ্জামান হিরোর আদালতে খাদিজা আক্তার নার্গিসের সাক্ষ্য গ্রহণের সময় চিৎকার করে এসব কথা বলছিলেন বদরুল।

পরে বদরুলের আইনজীবী সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী তাকে দমিয়ে দেন। এভাবে আদালতে কথা বলতে নিষেধ করলে বদরুল শান্ত হন।

পরে আইনজীবীদের জেরায় খাদিজা ঘটনার লোমহর্ষক বর্ণনা দেন। খাদিজা বলেন, ঘটনার দিন পরীক্ষা শেষে তিনি হল থেকে বের হন। পরে বদরুল তাঁর হাত ধরে টেনে পুকুরের পাড়ে নিয়ে যান। সেখানে প্রথমে বদরুল তাঁকে চর মেরে মাটিতে ফেলে দেন। এর পরই চাপাতি দিয়ে প্রথমে তাঁর বাম হাতে কোপ দেন। আত্মরক্ষার চেষ্টা করলে আরো তিনটি কোপের আঘাতে তিনি জ্ঞান হারান। আর কিছু তাঁর মনে নেই বলে জানান খাদিজা।

বদরুলের আইনজীবী এ সময় বিচারক ও খাদিজাকে একটি ছবি দেখিয়ে বলেন, এ ছবিটি খাদিজা ও বদরুলের। এখানে উভয়ের মধ্যে সম্পর্কের প্রমাণ পাওয়া যায়।

তখন খাদিজা বলেন, বদরুলের সঙ্গে তাঁর কোনো সম্পর্ক নেই। লজিং থাকা অবস্থায় বদরুলকে চা করে খাওয়াতেন তিনি। ওই সময় বদরুলের ব্যবহারে পরিবর্তন এলে পরিবার থেকে বদরুলকে বের করে দেওয়া হয়। তাই ছবিটিতে থাকা মেয়েটি তিনি নন।

বদরুলের আইনজীবী খাদিজার উদ্দেশে প্রশ্ন করে বলেন, ‘আপনি (খাদিজা) বদরুলের রেজিস্ট্রেশন করা সিম ব্যবহার করতেন কি না?’ সেই বিষয়টিও খাদিজা অস্বীকার করেন।

আদালতে স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বের হয়ে বদরুলের আইনজীবী সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘খাদিজা বদরুলের সঙ্গে সম্পর্ক ও সিম ব্যবহারের কথা অস্বীকার করায় বদরুলের ন্যায় বিচার প্রাপ্তিতে সহায়তা হবে।’

এ ছাড়া বদরুল ঘটনার সময় নেশাগ্রস্ত ছিল বলে দাবি করেন এই আইনজীবী।

এদিকে খাদিজার আইনজীবী আ ক ম শিবলী বলেন, ‘খাদিজা আজ আদালতে হামলার সুস্পষ্ট ঘটনা তুলে ধরেছেন। আমরা আশা করছি ন্যায়বিচার পাব।’


 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: