মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
কমলগঞ্জে সংখ্যালঘুর বাড়িতে হামলা: পিইসি পরীক্ষার্থী সহ আহত ৩  » «   নাতির সঙ্গে পিএসপি পরীক্ষা দিচ্ছেন নানি  » «   তবু চলছে সৌদি হামলা; আরো ১২ ইয়েমেনি নিহত  » «   হাইকোর্টের রুল জারি মুক্তি বার্তায় নাম থেকেও, তালিকায় অন্তর্ভুক্তি নয় কেন?  » «   ২০ কোটি টাকায় ‘ভার্জিনিটি’ নিলামে বেচলেন যে মডেল  » «   ওসমানীনগর উপজেলা স্বেচ্চাসেবক দলের মত বিনিময়  » «   ‘সংবিধান অনুসারেই জাতীয় নির্বাচন করতে হবে’  » «   টিকল না ১০ নম্বর সম্পর্কও? সুস্মিতার বয়ফ্রেন্ডের তালিকা…  » «   জাতীয় পতাকা উত্তোলন ছাড়াই চলছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়  » «   বিয়ের রাতে পালালেন সাবিলা নূর!  » «   নিজেকে আরো সুন্দর করে তুলতে ব্যবহার করুন এই ৭ তেল  » «   ‘দু:শাসনের জন্য আ’লীগকে জবাবদিহি করতে হবে’  » «   হাসপাতাল ও হোটেলে র‌্যাবের অভিযান : জরিমানা ২২ লাখ টাকা  » «   জঙ্গি সংগঠনের কার্যক্রম ঠেকাতে ইজতেমায় পুলিশের কড়া নজরদারি থাকবে  » «   ঢাকা সেনানিবাসে প্রধানন্ত্রী‘বাঙালি জাতিকে ধ্বংস করতেই জাতির পিতাকে হত্যা’  » «  

কোকোর দুই মেয়ে দাদীর সাথেই আছে



Untitled-2 copyনিউজ ডেস্ক :: সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী ও দুই সন্তান এখন খালেদা জিয়ার কাছেই অবস্থান করছেন।

স্বামী আরাফাত রহমান কোকোর মরদেহের সঙ্গে মঙ্গলবার দুপুরে কুয়ালালামপুর থেকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেন স্ত্রী শামিলা রহমান সিঁথি এবং তাদের দুই সন্তান জাহিয়া রহমান ও জাফিয়া রহমান। তারা বর্তমানে দাদী খালেদা জিয়ার সঙ্গে গুলশান কার্যালয়ে অবস্থান করছেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শামসুদ্দিন দিদার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ম্যাডামের ছোট ছেলের স্ত্রী ও দুই সন্তান এখন গুলশান কার্যালয়ে অবস্থান করছেন। প্রাণপ্রিয় সন্তানকে শেষ বিদায় দেয়ার পর একেবারে মুষড়ে পড়েছেন মা খালেদা জিয়া।

তিনি বলেন, ছেলেকে শেষ বিদায়ের পর অঝরে কেঁদেছেন খালেদা জিয়া। মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন তিনি। পরিবারের সদস্যরা তাকে বিশ্রামে রেখেছেন।

গুলশান কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে এখন অবস্থান করছেন বোন সেলিনা ইসলাম, ভাই শামীম এস্কাদারের স্ত্রী কানিজ ফাতেমা, সাইদ এস্কাদারের স্ত্রী নাসরিন সাইদ, তারেক রহমানের শাশুড়ি সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানু, বড় বোন শাহিনা খানম বিন্দুসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা।

১৯৯৭ সালে আরাফাত রহমান কোকোর সঙ্গে বিয়ে হয় শামিলা রহমান সিঁথির। আরাফাত রহমান কোকো ২৪ জানুয়ারি মালয়েশিয়ার ইউনিভার্সিটি মালায়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। কোকো ছিলেন বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক পরিবারের সদস্য। তিনি রাজনীতিবিদের চেয়ে একজন ব্যবসায়ী হিসেবেই বেশি পরিচিত ছিলেন।

এছাড়া তিনি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও সিটি ক্লাবের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। দুই মেয়ের জনক কোকোর বয়স হয়েছিল ৪৫ বছর।

সাত বছর আগে দেশ ছাড়ার পর স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে কুয়ালালামপুরের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন তিনি। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ২০০৮ সালের মে মাসে আটক অবস্থায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে বিদেশে চিকিৎসার জন্য প্যারোলে মুক্তি দেয়া হয়েছিল তাকে।

এরপর থেকে তিনি বিদেশেই অবস্থান করছিলেন। আরাফাত রহমান কোকোর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা বিচারাধীন ছিল। খালেদা জিয়া ২০১২ সালে কোকোর সঙ্গে সিঙ্গাপুরে সাক্ষাৎ করেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: