মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অবশেষে বাড়ছে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স  » «   টানা দুই সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিলে ঝুঁকিতে পড়বে নিবন্ধন: ইসি  » «   সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করুন: বিশ্বনেতাদের প্রধানমন্ত্রী  » «   আসামের নাগরিক তালিকা সংশোধন শুরু, চলবে দুই মাস  » «   শিক্ষার উন্নয়নে মুনাফার মানসিকতা ত্যাগের আহ্বান শেখ হাসিনার  » «   ভারতে ‘গণেশ’ বিসর্জন দিতে গিয়ে ১৮ জনের মৃত্যু  » «   পাকিস্তানের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে চান ভারতীয় সেনাপ্রধান  » «   প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইটের ক্রুর মাদক সেবন  » «   কাশ্মীরে বিদ্রোহীদের টার্গেট এখন পুলিশ  » «   রোহিঙ্গাদের জন্য ১৩শ কোটি টাকার মার্কিন সহায়তার ঘোষণা  » «   ট্রাক চাপায় অটোরিকশার চালকসহ নিহত ৫  » «   দুর্নীতির প্রমাণ পেলেই সিনহার বিরুদ্ধে মামলা হবে: দুদক চেয়ারম্যান  » «   মানব পাচারের ঝুঁকি বেড়েই চলেছে: জাতিসংঘে প্রতিমন্ত্রী  » «   আরপিও সংশোধন: সরকারের দিকে তাকিয়ে ইসি  » «   রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর ৩ প্রস্তাব  » «  

কেন নারীদের বেশি মুড সুইং হয়?



লাইফ স্টাইল ডেস্ক:: মেজাজ হুট করেই বদলে যাওয়া, মন ভাল না খারাপ তাও বুঝতে না পারা, এই হাসিমুখ তো পরক্ষণেই রাগ এগুলো মনের একটা অসুখের লক্ষণ। যার নাম মুড সুইং।

এই মুড সুইং এ শিকার ব্যক্তি অনবরত বিপরীতধর্মী সব আবেগের মধ্য দিয়ে যেতে পারে। হঠাৎ মন ভাল থেকে একটু খারাপ, অনেক বেশি খারাপ, তীব্র হতাশা, আবার খুশি হয়ে যাওয়া এইসব ঘটতে পারে অল্প সময়ের মধ্যে।

মুড সুইং বেশি দেখা যায় নারীদের মধ্যে।বিশেষ করে পরিবর্তিত শারীরিক অবস্থায় যেমন মাসিক আর গর্ভাবস্থায় তাদের মুড সুইং অনেক বেশি হয়ে থাকে।এ সময় শরীরে হরমোনের তারতম্যে কারণে একজন নারী মানসিকভাবে অনেকটা বিপর্যস্ত থাকে। যার কারণে হালকা বা চরম মাত্রার মুড সুইং হতে পারে।

ঋতুচক্রের সময়টা অল্প হয় বলে এই সময়ের মুড সুইং দ্রুত কেটে যায়।কিন্তু গর্ভকালীন মুড সুইং দীর্ঘমেয়াদী হয় আর খুব প্রবল মাত্রায় ঘটতে পারে।সন্তান জন্মদানের পরেও মানসিক অশান্তির রেশ থেকে যেতে পারে।যা মা ও শিশু দুইজনের জন্যই ভয়াবহ।

তাই বলে কেবল নারীরাই মুড সুইংয়ের শিকার হন না,মুড সুইং ঘটে পুরুষদেরও।টানা কিছু দিন ধরেই মনমেজাজ বদলে যাওয়া পুরুষদের মাঝেও খুব সাধারণ বিষয় হতে পারে।কিন্তু সপ্তাহ পেরিয়ে গেছে, বা আরো বেশি সময় পার হয়েছে কিন্তু মেজাজ ঠিক হচ্ছে না তবে বিশেষজ্ঞদের মতামত বা কাউন্সেলিং প্রয়োজন।

তবে অনেক সময় আক্রান্ত ব্যক্তি নিজেকে ধ্বংস করার চিন্তাও করে। আর তাই নিয়মিত নিজের মানসিক স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখা উচিত প্রতিটি মানুষেরই।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: