বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
অবশেষে বিপিএলে মাঠে নামছেন মোস্তাফিজ!  » «   ‘গণতন্ত্র অব্যাহত রাখায় অবদান রাখবে সেনাবাহিনী’  » «   সৌদিতে লিফট ছিঁড়ে আহত যুবকের মৃত্যু  » «   নায়করাজই আমাকে তার জীবনী লিখতে বলেছিলেন : ছটকু আহমেদ  » «   জীবনের শেষ চিঠিতে যা লিখে গেলেন এই তরুণী!  » «   ঝরে পড়ার হার অনেক কমেছে: শিক্ষামন্ত্রী  » «   বাংলাদেশ-বার্মা সমঝোতা ২ মাসের মধ্যে বাড়ি ফিরতে শুরু করবে রোহিঙ্গারা  » «   অল্প সময়ের মধ্যেই প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দেবেন রাষ্ট্রপতি  » «   আ’লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১০  » «   বৃহস্পতিবার সারা দেশে হরতাল  » «   মাদকদ্রব্য বহনকারী প্রাইভেটকার চাপায় নিহত ১  » «   স্কুলজীবনে দেখতে যেমন ছিলেন মিস ওয়ার্ল্ড মানুসী  » «   ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় হাসপাতালে বাবা ও চাচা  » «   হেলিকপ্টারে উড়ে চট্টগ্রামে মাশরাফি  » «   মাইক্রোবাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল তিন মোটরসাইকেল আরোহীর  » «  

কৃমি থেকে সাবধান, জেনে নিন ওষধ খাওয়ার নিয়ম



লাইফস্টাইল ডেস্ক::দুই বছরের পর থেকে সবার জন্য কৃমির ওষুধের ডোজ একই অর্থাৎ আপনি যে পরিমাণ ওষুধ খাবেন আপনার আড়াই বছরের শিশুও একই পরিমাণ ওষুধ খাবে। তাই এ নিয়ে বিভ্রান্ত হবেন না।

বাড়ির সবার একসঙ্গে কৃমির ওষুধ খাওয়া উচিত, এতে ক্রিমি থেকে সহজে রক্ষা পাওয়া যায়। সুস্থ মানুষ বা শিশুরা যদি চার থেকে পাঁচ মাস পর পর কৃমির ওষুধ খায় তবে কোনো ক্ষতি হয় না। আজকাল দুই বছরের কম বয়সের শিশুদেরও কৃমির ওষুধ খাওয়ানো যায়, তবে তার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

শিশু সুতাকৃমি বাদে অন্য কৃমিতে আক্রান্ত হলে মেবেনডাজল ১০০ মিলিগ্রামের একটি বড়ি ১২ ঘণ্টা পরপর তিন দিন বা অ্যালবেনডাজল ৪০০ মিলিগ্রাম একটা বড়ি বা পিপেরাজিন ৪ গ্রাম একটি বড়ি খাওয়াতে হবে।

সুতাকৃমি হলে মেবেনডাজল ১০০ মিলিগ্রাম বা অ্যালবেনডাজল ৪০ মিলিগ্রাম বা পিপেরাজিন ৪ গ্রাম একটি বড়ি খাওয়াতে হবে। এর দুই সপ্তাহ পর আরও একটি বড়ি খাওয়াতে হবে।

ক্রিমির ওষুধের জন্য শীত বা গ্রীষ্ম কোনো ব্যাপার নয়। যে কোনো সময়ই খাওয়ানো যায়, এতে শিশুর কোনো ক্ষতি হয় না। জেনে রাখা ভালো, বিভিন্ন জাতের কৃমি শিশুদের শরীরে নানা বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: