বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ: ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত  » «   ফের গ্রেপ্তার নাজিব রাজাক; দায়ের হবে ২১ মামলা  » «   প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ আবেদনেই প্রতিষ্ঠানের ৪০ কোটিরও বেশি আয় !  » «   ইউএনওদের জন্য উচ্চমূল্যে ১০০ জিপ গাড়ি, আপত্তি অর্থ মন্ত্রণালয়ের  » «   ডিজিটাল হলো জাতীয় পরিচয়পত্রের সেবা ব্যবস্থাপনা  » «   লন্ডনে মুসলিমদের ওপর গাড়ি হামলা, আহত ৩  » «   সরকারি চাকরিজীবীদের ৫% সুদে গৃহঋণের আবেদন অক্টোবরে  » «   ভারতে তিন তালাককে শাস্তিযোগ্য অপরাধ ঘোষণা  » «   স্কুলছাত্রীকে পিটিয়ে অজ্ঞান করলেন শিক্ষক  » «   বোমা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, আর ইয়েমেনে সেই বোমা ফেলছে সৌদি  » «   রাখঢাক রাখছেন না পর্নো তারকা ডানিয়েল স্টর্মি  » «   কাবা শরীফের ভেতরে প্রবেশের সুযোগ পেলেন ইমরান  » «   মিয়ানমারে নিলামে উঠছে সুচির ভাস্কর্য  » «   এক দিনেই মিলবে পাসপোর্ট  » «   ওসমানী বিমানবন্দরে বিমানে তল্লাশি : ৪০টি স্বর্ণের বার উদ্ধার, চোরাচালানী আটক  » «  

কারাগারে থেকেও হত্যা মামলার আসামি!



ডেস্ক রিপোর্ট:: গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে জেলহাজতে রয়েছেন জুনেদ আহমদ। অথচ তাকেই আসামি করা হয়েছে গত ৭ জানুয়ারি টিলাগড়ে ছাত্রলীগকর্মী তানিম আহমদ খান খুনের ঘটনার মামলায়। এ নিয়ে হতবাক জুনেদ আহমদের স্বজনরা।

অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে গত ৭ জানুয়ারি রাতে সিলেট নগরের টিলাগড় পয়েন্টে প্রতিপক্ষের হাতে খুন হন ছাত্রলীগ কর্মী তানিম খান। এ ঘটনায় গত বুধবার রাতে তানিমের বন্ধু দেলোয়ার হোসেন রাহী বাদী হয়ে ২৯ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর নামোল্লেখ করে শাহপরান থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এজাহারভুক্ত আসামিদের একজন জুনেদ আহমদ (২৪)।
সিলেট নগরের রাজপাড়া সুরভী আবাসিক এলাকার ১২ নম্বর বাসার সিরাজুল ইসলামের ছেলে জুনেদ।

সিরাজুল ইসলাম বলেন, গত সেপ্টেম্বর থেকে জুনেদ কারান্তরীণ। কারাগারে থাকা অবস্থায় জুনেদ কীভাবে তানিম খুনে জড়িত থাকতে পারে।

জুনেদ আহমদের বাবা আরও বলেন, ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে গোলাম চৌধুরী রাজনের উপর হামলার ঘটনার মামলায় আসামি ছিল জুনেদ। ওই মামলায় গত ২৪ সেপ্টেম্বর জুনেদ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। পরে নভেম্বর মাসে ওই মামলায় জুনেদের জামিন হয়। কিন্তু তার বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে ২০১৪ সালের একটি মামলা থাকায় সে জেলহাজত থেকে মুক্তি পায়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গোলাম চৌধুরী রাজনের উপর ২০১৭ সালের ৩০ জানুয়ারি রাতে নগরের টিলাগড়ে হামলার ঘটনা ঘটে। ওই সময় রাজনের সঙ্গে ছাত্রলীগকর্মী তানিম (যিনি খুন হয়েছেন) ও মাবরুরও ছিলেন। হামলায় গুরুতর আহত হন রাজন। এ ঘটনায় তার ভাই গোলাম হাসান চৌধুরী সাজন বাদী হয়ে ১০ জনের নামোল্লেখ করে শাহপরান থানায় মামলা (জিআর-২৪/২০১৭) করেন।

মামলায় জেলা ছাত্রলীগের তৎকালীন সহ-সভাপতি ছয়েফ খান, জুনেদ আহমদ, মঞ্জুর আহমদ, হাসান, কামরান আহমদ, উজ্জ্বল, সাগর, রুমান আহমদ, অসীম ও জামিল আহমদের নামোল্লেখ ছিল।

এদিকে, ছাত্রলীগ কর্মী তানিম আহমদ খান হত্যার আসামি হিসেবে জুনেদকে গ্রেফতার করতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর তার বাসায় অভিযান চালায় শাহপরান থানাপুলিশ। ওই সময় জুনেদ কারাগারে থাকার বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করেন তার বাবা সিরাজুল ইসলাম।

এ বিষয়ে সিরাজুল ইসলাম বলেন, বাসায় পুলিশ এসেছিল। আমরা জুনেদ কারাগারে থাকার কাগজপত্র দেখিয়েছি। সে যে সেপ্টেম্বর থেকে কারাগারে রয়েছে, তা পুলিশকে জানিয়েছি।

এ বিষয়ে সিলেট মহানগর পুলিশের শাহপরান থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন বলেন, জুনেদ আহমদের বিষয়ে পুলিশ তদন্ত করে দেখবে। তিনি যদি কারাগারে থেকে থাকেন, তবে সে অনুযায়ী তানিম হত্যা মামলার চার্জশিটে তার নাম বাদ দেয়া হবে। – সূত্র: জাগো নিউজ

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: