মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   সুনামগঞ্জে অজ্ঞাতনামা যুবকের মরদেহ উদ্ধার  » «   বন্দরবাজার থেকে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আফগান প্রেসিডেন্টকে লক্ষ্য করে বোমা হামলা, নিহত ২৪  » «   বিভাগীয় শহরে হচ্ছে পূর্ণাঙ্গ ক্যান্সার চিকিৎসাকেন্দ্র  » «   মৌলভীবাজার থেকে হত্যা মামলার দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার  » «   হবিগঞ্জে বিজিবির অভিযানে ১৯ কেজি গাঁজা উদ্ধার  » «   উপজেলা নির্বাচন: হবিগঞ্জ আ.লীগের ১০ বিদ্রোহী প্রার্থীকে শোকজের চিঠি  » «   রোমে যে কারণে আলোচিত প্রবাসী বাংলাদেশি তরুণ  » «   বিকেলে ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী  » «   বিতর্কিত আইনে কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী গ্রেপ্তার  » «   অপমানজনক বিতাড়ণের আগে সিনেট ও ডাকসু ছাড়ুন: শোভন-রাব্বানীকে ভিপি নুর  » «   পেঁয়াজ নেই, তবুও বিক্রির ঘোষণা টিসিবির!  » «   শর্ত ভেঙে ‘অযোগ্য’ প্রতিষ্ঠানকে কাজ দিচ্ছে গণপূর্ত  » «   মেট্রোরেলের জন্য আলাদা পুলিশ ইউনিট গঠনের নির্দেশ  » «  

কাভানিকে আনফলো করে দিলেন নেইমার



স্পোর্টস ডেস্ক:: রোববার ফরাসী লিগে শক্তিশালী লিওর মুখোমুখি হয়েছিল প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি)। জোড়া আত্মঘাতী গোলের সৌজন্যে শেষ পর্যন্ত জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছিল পিএসজি। কিন্তু সেই ম্যাচেই ফ্রি কিক ও পেনাল্টি শট নিয়ে পিএসজির দুই তারকা ফুটবলার নেইমার ও এডিনসন কাভানির মাঝে সৃষ্টি হয় ঝগড়ার। কে নেবে শট? এমন প্রশ্নের উত্তর মেলাতে দুই দফা বিতর্কে জড়ান নেইমার-কাভানি।
মাঠের বিতর্কের সেই রেশ চলে এলো মাঠের বাইরেও। পেনাল্টি নিয়ে সেই তিক্ত স্মৃতি ভুলতে পারেননি ব্রাজিলের তারকা ফরোয়ার্ড নেইমার। তাই তো ড্রেসিংরুমে ফিরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটার এবং ইন্সটাগ্রামে কাভানিকে আনফলো করে দিলেন নেইমার। এ ঘটনায় নতুন করে সৃষ্টি হয়েছে আলোচনার। ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম এটাকে ‘ওয়ার অব ইগো’ হিসেবে অভিহিত করেছে!

ঘটনার সূত্রপাত, পিএসজি-লিও ম্যাচের ৫৭ মিনিটে। পিএসজির হয়ে ফ্রি-কিক নিতে এগিয়ে আসেন কাভানি। কিন্তু নেইমারের স্বদেশী বন্ধু দানি আলভেজ বল নিয়ে বাড়িয়ে দেন নেইমারকে। ব্যাপারটি পছন্দ হয়নি কাভানির। বেশ রাগান্বিত হয়ে পড়েন এই উরুগুয়ে ফরোয়ার্ড। এরপর ম্যাচের ৭৯তম মিনিটে পিএসজি পেনাল্টি পেলে দানি আলভেজ চেয়েছিলেন কিকটা নেইমারকে দিয়ে কিকটা নেওয়াতে।

তবে আলভেসের চাওয়া প্রত্যাখান করে কাভানি নিজেই পেনাল্টি শট নেন। এ নিয়ে ত্রিমুখী তর্কে জড়ান কাভানি, আলভেজ ও নেইমার। এরপরই ফুটবল দুনিয়ায় যেন ঝড় বয়ে যায়। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শুরু হয় তুমুল আলোচনা-সমালোচনার। কেননা বর্তমান ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে দামী ফুটবলার নেইমার। কাভানি-আলভেজও সময়ের আলোচিত ফুটবলার।

মাঠের এমন ঝগড়া নজরে পড়ে পিএসজি কোচেরও। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে কোচ বলেন, ‘আমি দুজনকে বলেছি ব্যাপারটা নিজেদের মাঝে মিটমাট করে ফেলতে। তারা দুজনই ফ্রি কিক ও পেনাল্টি ভালোভাবেই সামলাতে পারে। আশা করি এই সমস্যা তারা দ্রুতই মিটিয়ে ফেলবে। এটা তো মাঠেই মিটিয়ে ফেলার মতো ব্যাপার। যদি তারা এটা না করে, তাহলে আমিই সিদ্ধান্ত দেবো কে কিক নেবে। আমি চাইনা এটা দলের জন্য কোনো সমস্যা বয়ে আনুক।’
কাভানিও বিষয়টিকে বড় করে দেখতে নারাজ। এ প্রসঙ্গে তার ভাষ্য, ‘এটা একটা স্বাভাবিক ব্যাপার। খেলার মাঠে এমন হতেই পারে। এটাকে কে বা কারা ইস্যু বানাল জানি না। অনেকে বলছে, আমি নাকি কাউকে পেনাল্টি নিতে দেইনা। নেইমারের সঙ্গেও একই কাজ করেছি। আমার মনে হয় এটা সমস্যা হিসেবে দেখা উচিত হবে না।’
তবে উরুগুয়ের এই স্ট্রাইকার স্বাভাবিকভাবে নিলেও নেইমার যে ব্যাপারটা একটু অন্যরকম ভাবেই নিলেন তার প্রমান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কাভানিকে আনফলো দেওয়াতেইও বোঝা গেল!

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: