মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৭ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে ডাক্তারদের প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ, ফার্মেসিতেই চিকিৎসা  » «   ৯ এপ্রিল পবিত্র শবে বরাত  » «   এবার স্পেনও ছাড়ালো চীনকে, ২৪ ঘণ্টায় ৭৩৮ মৃত্যু  » «   সিলেট বিভাগে বৃহস্পতিবার থেকে গণপরিবহন বন্ধ  » «   করোনা মোকাবিলায় দেশে দেশে লকডাউন  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তি, করোনা বদলে দিচ্ছে রাজনীতি  » «   খালেদার মুক্তির সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাল যুক্তরাষ্ট্র  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তিতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক দেখছেন ড. কামাল  » «   করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে গ্রিসে লকডাউন  » «   বান্দরবানের ৩ উপজেলা লকডাউন  » «   ইতালিতে একদিনে ৭৪৩ জনের মৃত্যু  » «   ফ্রান্সে ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮৬ মৃত্যু  » «   নিউইয়র্কে করোনায় আক্রান্ত ২০ হাজার ছাড়াল  » «   সাধারণ ছুটিতে চালু থাকবে ব্যাংক  » «   করোনাভাইরাস: উৎকণ্ঠিত সিলেট, উদ্বিগ্ন মানুষ  » «  

করোনাভাইরাস : এক ম্যাচেই বার্সার ক্ষতি ৫৮ কোটি টাকা



 

করোনাভাইরাসে চীনের পর এখন কাঁপছে পুরো ইউরোপ। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ইতালি। দেশটিতে খেলাধুলার সব আয়োজন অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য স্থগিত। ইতালির পাশাপাশি ইউরোপের অন্য দেশগুলোতেও করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। ইংল্যান্ডে মঙ্গলবারই আর্সেনাল এবং ম্যানসিটির একটি ম্যাচ স্থগিত করা হয়েছে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কিছু ম্যাচও স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।

ইতিমধ্যেই স্প্যানিশ লা লিগা কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দিয়েছে, আগামী দুই সপ্তাহ দর্শকহীন মাঠে অনুষ্ঠিত হবে লা লিগা এবং স্প্যানিশ সেগুন্ডা ডিভিশনের ম্যাচগুলো।

করোনাভাইরাসের কারণে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আগামী ১৯ মার্চ নিজেদের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে বার্সেলোনাকে ন্যাপোলির মুখোমুখি হতে হবে দর্শকহীন মাঠে। করোনার কারণে, ওই ম্যাচটিতে দর্শক প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে আপাতত। অর্থ্যাৎ পুরো খালি স্টেডিয়ামে খেলতে নামবেন মেসি-সুয়ারেজরা।

ওই ম্যাচটির আয়োজক যেহেতু বার্সেলোনা, সে ক্ষেত্রে দর্শক অনুপস্থিতির ক্ষতিও বহন করতে হবে বার্সাকে। ক্লাবটির সভাপতি হোসে মারিয়া বার্তেম্যু মঙ্গলবার জানিয়েছেন, ন্যাপোলির বিপক্ষে বার্সেলোনার এই ম্যাচে দর্শকশূন্য থাকার অর্থ হচ্ছে বার্সার ৬০ লাখ ইউরো ক্ষতি।

টিকিটসহ অন্য আনুসাঙ্গিক বিষয়াধি বিক্রি বাবদ ৬০ লাখ ইউরো (বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৫৮ কোটি টাকা) যোগ হওয়ার কথা ছিল বার্সার তহবিলে। কিন্তু করোনার কারণে, এই অর্থ থেকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে মেসিদের ক্লাবকে। বার্তেম্যু বলেন, অবশ্যই এখানে আমাদের অনেক বড় অর্থনৈতিক ক্ষতির ব্যাপার রয়েছে।

তবে তিনি এটাও জানিয়ে দিয়েছেন, শুধুমাত্র বার্সেলোনাই নয়, এই পরিস্থিতিতে প্রতিটি ক্লাবকেই খেলতে হচ্ছে ক্লোজ ডোর স্টেডিয়ামে। এটা সবারই সমান সমস্যা। অর্থ হচ্ছে দ্বিতীয় সমস্যা। স্বাস্থ্যই সবার আগে। তবে এই এক ম্যাচেই বার্সার লস হচ্ছে ৬ মিলিয়ন ইউরো।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: