শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
তিন সিটিতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী যারা  » «   ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি: চিদম্বরমের সময় অমিত, অমিতের সময় চিদম্বরম গ্রেপ্তার  » «   অক্টোবর থেকে মোবাইল অ্যাপে মিলবে বিমানের টিকিট  » «   আগামীকাল জুমার নামাজের পর গণবিক্ষোভের ডাক কাশ্মীরিদের  » «   হবিগঞ্জে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে নবজাতক চুরি, নারী আটক  » «   কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ বাংলাদেশির মৃত্যু, চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ  » «   ভীতি কাটাতে চা বিস্কুট খেতে খেতে ভাইভা দেবেন বিসিএস পরীক্ষার্থীরা  » «   তৃতীয় ড্রিমলাইনার ‘গাঙচিল’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   রাস্তার পাশে চা বানাচ্ছেন মমতা! ভিডিও ভাইরাল  » «   ঋণের টাকায় ভারত থেকে অস্ত্র কিনবে বাংলাদেশ  » «   কানাইঘাটে মৃত্যুর পাঁচ মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন  » «   কাশ্মীরে ফের যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন, গুলি চালিয়েছে পাকিস্তান  » «   রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হতে পারে আজ  » «   পুলিশের ছেলে বিশ্বের এক নম্বর ডন  » «   জাহালম কাণ্ড: ১১ তদন্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা  » «  

ওরা বাংলাদেশি হতে চায়



PON-1418369194নিউজ ডেস্ক:: বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের ১১১টি ছিটমহলের বাসিন্দারা এখন বাংলাদেশি নাগরিক হতে চান। সেই দাবিতে গত দুদিন ধরে বিক্ষোভ সমাবেশ করছে বাংলাদেশে বসবাসরত ভারতীয় ছিটমহলের নাগরিকরা।

ছিট মহলবাসীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১১ সালে ভারত সরকারের উদ্যোগে ছিটমহলবাসীদের মধ্যে ভারতে যেতে ইচ্ছুকদের ফরম পুরণের মাধ্যমে তালিকা করা হয়। সে সময় বাংলাদেশে অবস্থিত ভারতের ১১১টি ছিট মহলের ১৪৩ টি পরিবার স্বেচ্ছায় ভারত যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে ফরম পুরণ করেন। কিন্তু এখন তারা আর ভারত যেতে চাচ্ছেন না। তারা বাংলাদেশের নাগরিক হতে চান।

নাজিরগঞ্জ দইখাতা ছিটমহলের সুশিল চন্দ্র বলেন, ‘ফরম পুরণের সময় বলা হয়েছিল ভারতে গেলে আট বিঘা জমি, ঘর বাড়ি ও কাজের সংস্থান করে দেওয়া হবে। কিন্তু এখন বলা হচ্ছে পুনর্বাসন করা হবে। সে জন্য আমরা ভারতে যেতে চাই না। যেহেতু বাংলাদেশে আমাদের জন্ম হয়েছে তাই বাংলাদেশের নাগরিক হয়েই মরতে চাই।’

গারাতি ছিটমহলের নির্মল কুমার বলেন, ‘আমরা ছিটমহলবাসী আর বাংলাদেশি ভাইয়েরা এক সঙ্গে মানুষ হয়েছি। আমরা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব চাই।’ শালবাড়ি ছিটমহলের হরিদাশ চন্দ্র বলেন, ‘ভারত সরকার জমি-ঘরবাড়ি দেবে বলে ফরম পুরণ করেছিলাম। কিন্তু এখন ভারত সরকার বলছে আমাদের পুণর্বাসন করবে। তাই আমরা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব চাই।’

নাজিরগঞ্জ দইখাতা ছিটমহলের চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক জানান, এই ছিটমহলে ভারত যাওয়ার জন্য ৪১ টি পরিবারের ফরম পুরণ করা হয়েছে। কিন্তু এখন তারা আর ভারত যেতে চান না। তারা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব চান।

পঞ্চগড়-নীলফামারী জেলার ছিটমহল সমন্বয় কমিটির সভাপতি মফিজার রহমান বলেন, ‘২০১১ সালে ব্যক্তিগত মতামতের ভিত্তিতে বাংলাদেশের ১১১টি ছিটমহলের ১৪৩টি পরিবার ভারত যেতে চাইলেও এখন আর তারা যেতে চাচ্ছেন না।’

উল্লেখ্য, ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর থেকে ভারত ও বাংলাদেশের অভ্যন্তরে থাকা ১৬২টি ছিট মহলের মানুষ নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়ে এক ধরনের অবরুদ্ধ জীবনযাপন করে আসছেন। এর মধ্যে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের ১১১টি এবং ভারতের অভ্যন্তরে বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল রয়েছে।

দীর্ঘ দিনের এই সমস্য সমাধানে সম্প্রতি ভারত সরকার সম্মতি প্রকাশ করেছেন। এ নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছিটমহল বিনিময়ের ঘোষণা দেন। এতে উভয় দেষের ছিটমহলগুলোতে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়।

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: